করোনার প্রকোপ বৌদ্ধ মঠেও! সিকিমে বন্ধ করে দেওয়া হল দুই বৌদ্ধ মঠ

করোনার প্রকোপ বৌদ্ধ মঠেও! সিকিমে বন্ধ করে দেওয়া হল দুই বৌদ্ধ মঠ

এবারে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানেও পর্যটকদের জন্য বন্ধ। সিকিমে প্রবেশের বিভিন্ন গেটেই চলছে হেলথ স্ক্রিনিং ক্যাম্প। তল্লাশি চালাচ্ছেন স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীরা।

  • Share this:

Partha Sarkar

#সিকিম: করোনার প্রভাব এবারে বৌদ্ধ মঠেও। সিকিমের দুটো বৌদ্ধ মঠের দরজা বন্ধ করে দিল কর্তৃপক্ষ। এমনকী তীর্থ যাত্রীদেরও "না" কর্তৃপক্ষের। বিদেশী পর্যটক তো বটেই ভারতীয়দের জন্যও মঠের দরজা বন্ধ করে দিল কর্তৃপক্ষ। পশ্চিম সিকিমের পেলিংয়ের সব চাইতে পুরনো বৌদ্ধ মঠ পেমায়াংগাতসে। ১৭০৫ সালে এই মঠ প্রতিষ্ঠিত হয়। কর্তৃপক্ষ নোটিশ জারি করেছে, দেশজুড়ে করোনা ছড়াচ্ছে। তাই মঠের দরজা বন্ধ করে দেওয়া হল বহিরাগতদের জন্যে। পরবর্তী নির্দেশিকা জারি না হওয়া পর্যন্ত দরজা পুরোপুরি বন্ধ থাকবে। দেশ-বিদেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা তীর্থ যাত্রীরাও প্রবেশ করতে পারবে না মঠে।

গ্যাংটক থেকে ১৩১ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত পেমায়াংগাতসে বৌদ্ধ মঠ বরাবরই পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয়। পাশাপাশি রুমতেক বৌদ্ধ গুম্ফার দরজাও বন্ধ করেছে কর্তৃপক্ষ। আজই নোটিশ জারি করেছে তারা। আগামী ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে রুমতেকের দরজা। সিকিমের রাজধানী গ্যাংটক থেকে ২৪ কিলোমিটার দূরে এই রুমতেক। সিকিম বেড়াতে গিয়ে পর্যটকেরা একবার যাবেন না রুমতেক গুম্ফায়! এমনটা সাধারনত হয় না। আর করোনার প্রভাব গোটা দেশে বাড়ছে। তাই এই সিদ্ধান্ত। গত ৫ মার্চ থেকে বিদেশী পর্যটকদের সিকিমে প্রবেশে "না" করে দেওয়া হয়েছে। এমনকী ভারতীয় পর্যটকদের জন্য বন্ধ রয়েছে ইন্দো-চীন সীমান্তের না থুলা যাওয়ার পারমিটও। এবারে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানেও পর্যটকদের জন্য বন্ধ। সিকিমে প্রবেশের বিভিন্ন গেটেই চলছে হেলথ স্ক্রিনিং ক্যাম্প। তল্লাশি চালাচ্ছেন স্বাস্থ্য বিভাগের কর্মীরা। রীতিমতো গাড়ি থামিয়ে পর্যটকদের নামিয়ে চলছে স্ক্রিনিং। সন্দেহ হলেই হাসপাতালের আইশোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তির পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

সিকিমের পর্যটন ব্যবসা ব্যপক মার তো খাচ্ছেই। তবু সতর্ক সিকিম সরকার। গোটা রাজ্যজুড়েই জারি করোনা সতর্কতা। বিদেশী পর্যটকদের জন্য বন্ধ ভুটানের দরজা। ক্রমেই উত্তর-পূর্ব ভারতের পর্যটন শিল্প বড়সড় ধাক্কার মুখে, বলছেন পর্যটন ব্যবসায়ীরা। কীভাবে ঘুড়ে দাঁড়াবে তাই ভাবাচ্ছে তাঁদের।

First published: March 8, 2020, 11:38 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर