শিলিগুড়ির ফুটপাতে সারি সারি মাস্কের দোকান ! বাড়ছে চাহিদা !

পেশা বদলে অনেক ব্যবসায়ী এখন মাস্কের ব্যবসা করছেন।

পেশা বদলে অনেক ব্যবসায়ী এখন মাস্কের ব্যবসা করছেন।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: করোনা মোকাবিলায় মাস্ক পরে বাড়ি থেকে বের হতে হবে। মাস্ক না হলেও ফেস কভার বাধ্যতামূলক। পরামর্শ দিয়েছেন বিশিষ্ট চিকিৎসকেরা। এর আগে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকও ঘোষণা করে, মাস্ক পরেই রাস্তায় বের হতে হবে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ও স্পষ্ট ঘোষণা করেছেন, রাস্তায় বের হলেই মাস্ক বা ফেস কভার বাধ্যতামূলক। নইলে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷ তারপরও একাংশের হুঁশ ফেরেনি। বাজার থেকে মুদিখানার দোকান। ওষুধের দোকান থেকে রেশন বা ব্যাঙ্কের লাইন। সর্বত্রই নজরে এসছে বহু লোকের মুখ এখনও ঢাকেনি মাস্ক বা ফেস কভারে। পুলিশ  রাস্তায় নেমে বিনা মাস্কের বিরুদ্ধে অভিযানও চালায়। চলে ধরপাকড়ও। তবে একটা বড় অংশের হুঁশ ফিরেছে। মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণার পর পুলিশ কড়াকড়ি হতেই শিলিগুড়িতে বেড়েছে মাস্কের চাহিদা। আর তাই পেশা বদলে অনেক ব্যবসায়ী এখন মাস্কের ব্যবসা করছেন।

ফুটপাতজুড়ে মাস্কের সারি সারি দোকান। লকডাউনের জেরে যেখানে খাঁ খাঁ করছে বিধান মার্কেট, সেখানে উঁকি মারলে এখন নজরে আসছে মাস্কের দোকান। N 95 মাস্কের দেখা নেই। চাহিদা থাকলেও তা মিলছে না। ওষুধের দোকানগুলিতে মাস্ক অমিল। মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছেন, বাড়িতেই তৈরী করা যায় মাস্ক। এমনকী ফেস কভারও ঘরে বসেই অনায়াসেই তৈরী করা যায়। মুখ ঢেকে বের হতে হবে। আর তাই শিলিগুড়ির বাজারে মিলছে হরেক রকম মাস্ক! শহরের উত্তর থেকে দক্ষি, পূর্ব থেকে পশ্চিম সর্বত্রই বসছে মাস্কের দোকান। নাই বা হল মেডিকেটেড মাস্ক! তবু সাধারন মানের মাস্কের চাহিদা বাড়ছে সর্বত্র। মাত্র ১০ টাকা দিয়ে শুরু। ২০, ৫০, ৭০, ১১০ থেকে ১৫০ টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে রকমারী মাস্ক। হরেক রকমের মাস্কের ডালি নিয়ে রাস্তার ধারেই ফুটপাতে বসছে দোকান। শুধু কি মাস্ক? তার সঙ্গে মিলছে হ্যাণ্ড গ্লাভস। এমনকী হ্যাণ্ড স্যানিটাইজারও বিক্রি হচ্ছে একই ডালি থেকে। ব্যবসায়ীরা জানাচ্ছে, দিন দিন বাড়ছে মাস্কের চাহিদা। আর তাই খুশীর হাসি ব্যবসায়ীদের মুখেও। বিকল্প আয়ে খুশী ব্যবসায়ীরা।

PARTHA PRATIM SARKAR

Published by:Piya Banerjee
First published: