মাত্র ৫ টাকাতেই মিলল গরম ভাত-ডাল-সবজি-ডিমের ঝোল, 'মা' প্রকল্পের সূচনা মালদহেও

মাত্র ৫ টাকাতেই মিলল গরম ভাত-ডাল-সবজি-ডিমের ঝোল, 'মা' প্রকল্পের সূচনা মালদহেও
‘মা’ প্রকল্পের সূচনা হল মালদহে।

রাজ্যের অন্যান্য জেলার সঙ্গে সোমবার মালদহেও চালু হল রাজ্য সরকারের নতুন প্রকল্প 'মা কিচেন'। ইংরেজবাজার পূরসভার উদ্যোগে সোমবার শহরের ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের ভবানী মোড় এলাকায় 'মা' প্রকল্পের আনুষ্ঠানিক সূচনা হয়।

  • Share this:

#মালদহ: রাজ্যের অন্যান্য জেলার সঙ্গে সোমবার মালদহেও চালু হল রাজ্য সরকারের নতুন প্রকল্প 'মা কিচেন'। ইংরেজবাজার পূরসভার উদ্যোগে সোমবার শহরের ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের ভবানী মোড় এলাকায় 'মা' প্রকল্পের আনুষ্ঠানিক সূচনা হয়। এই প্রকল্পে ইংরেজবাজার শহর এলাকার বাসিন্দারা মাত্র পাঁচ টাকায় ভাত-ডাল-সবজি-ডিমের থালি দুপুরের আহার পাবেন। প্রথম দিন পাঁচ টাকার বিনিময়ে কুপন কেটে প্রায় দেড়শ মানুষ সরকারি প্রকল্পের খাবার গ্রহণ করেন।

আগামিকাল থেকে প্রতিদিন দুপুর একটা থেকে দুটো পর্যন্ত এই প্রকল্পে নামমাত্র খরচে খাবার দেওয়ার ব্যবস্থা থাকবে। ইংরেজবাজার পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের সদস্য দুলাল সরকার জানিয়েছেন, এই প্রকল্পে সরকারিভাবে মাথাপিছু দু-শো গ্রাম চাল বরাদ্দ হয়েছে। এছাড়া রান্নাঘরেরগুলিতে সরাসরি সরকারি ব্যবস্থাপনায় সবজি পৌঁছে দেওয়া হবে। রান্না করা খাবার পৌঁছে দেওয়ার জন্য মাথাপিছু দশ টাকা করে আর্থিক বরাদ্দ পাবে পুরসভা। খাবার রান্না এবং পরিবেশনের কাজে যুক্ত করা হবে স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলাদের। প্রকল্পের জন্য স্থায়ী রান্না ঘর তৈরি করা হবে। প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত মহিলাদের নির্দিষ্ট পোশাক দেওয়া হবে।

মালদহে মা কিচেন। মালদহে মা কিচেন।

এ দিন প্রকল্পের সূচনা পর্বে ভবানী মোর এলাকায় উপস্থিত ছিলেন মালদহ জেলা প্রশাসনের প্রশাসনের পদস্থ আধিকারিকেরা। মুখ্যমন্ত্রী দুপুর সাড়ে তিনটে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকল্পের উদ্বোধন ঘোষণা করেন। একইসঙ্গে নবান্ন থেকে বিভিন্ন জেলায় প্রকল্পের বাস্তবায়ন খতিয়ে দেখা হয়। প্রকল্প বাস্তবায়নের প্রথম দিন দুপুর থেকেই মালদহ শহরের ভবানী মোর এলাকায় দুঃস্থ- দরিদ্র মানুষের ভিড় লক্ষ করা যায়। সস্তায় রুচিশীল খাবার পেয়ে অনেকেই কার্যত চেটেপুটে খান। যদিও এই প্রকল্পকে ভোটের চমক বলে কটাক্ষ করেছে বিরোধীরা।

বিজেপি জেলা সাধারণ সম্পাদক অজয় গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, দু'বারের তৃণমূল সরকার গরিব মানুষের জন্য কিছুই করেনি। এখন ভোট চলে আসায় গরিব মানুষকে সস্তায় খাবার দেওয়ার কথা বলে প্রভাবিত করার চেষ্টা হচ্ছে। কিন্তু, এভাবে ভোটে সাফল্য আসবে না। সাধারণ মানুষ খেলেও পরিবর্তনের পক্ষেই ভোট দেবেন।

Sebak DebSarma

Published by:Shubhagata Dey
First published: