উত্তরবঙ্গ

?>
corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা ভাইরাসের জন্য এবছর ইসলামপুরেও রথের চাকা ঘুরছে না ! বন্ধ রথযাত্রা উৎসব !

করোনা ভাইরাসের জন্য এবছর ইসলামপুরেও রথের চাকা ঘুরছে না ! বন্ধ রথযাত্রা উৎসব  !

জনজীবন অনেকটাই স্বাভাবিক হতে শুরু করলেও এবারে রথের চাকা ঘুরছে না।কারণ একটাই করোনা ভাইরাস।

  • Share this:

#ইসলামপুর: করোনা ভাইরাসের জন্য এবছর ইসলামপুরে রথের চাকা ঘুরছে না।রথের চাকা না ঘোরায় উদ্যোক্তা থেকে সাধারণ মানুষ প্রত্যেকের মন খারাপ। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে বড় বড় জমায়েত,মিছিল মিটিং,ধর্মিয় স্থান বন্ধ রাখা হয়েছিল।এই নিয়ম মানতে গিয়ে এবার বেশ কিছু অনুষ্ঠান, পূজা বন্ধ রাখা হয়েছিল।কিন্তু দিন যত গড়িয়েছে ধীরে ধীরে সবকিছু স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে।সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সমস্ত ধর্মিয় স্থান খুলতে শুরু করেছে।রাজ্যে আনলক ওয়ান চালু হয়েছে।দোকানপাট, হাটবাজার খুলছে।জনজীবন অনেকটাই স্বাভাবিক হতে শুরু করলেও এবারে রথের চাকা ঘুরছে না।কারণ একটাই করোনা ভাইরাস।

রথের দড়ি টানতে হাজার হাজার মানুষ ভিড় করেন।পুরীর রথযাত্রা উৎসবও এবারে স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।পুরী রথ বন্ধ রাখায় শহরতলির রাথযাত্রার উদ্যোক্তারাও তার বাইরে যেতে চাইছেন না।তাই গ্রাম শহরতলির রথযাত্রা এবার বন্ধ রাখছে। উত্তর দিনাজপুর জেলার  ইসলামপুরের থানা কলোনীর রথ উৎসব বহু বছরের পুরোনো।দীর্ঘ ৬০ বছর আগে স্বর্গীয় লোকনাথ দাস প্রথম জগন্নাথ দেবের পুজোর পাশাপাশি রথযাত্রার প্রচলন শুরু করেছিলেন। বর্তমানে তাঁর নাতি নাতনিরা সেই পুজো চালিয়ে আসছিলেন।এই উৎসবে ইসলামপুরের বাসিন্দাদের কাছে আলাদা মাত্রা বহন করে।রথযাত্রা উৎসবকে ঘিরে এলাকায় বিশাল মেলা বসে। মেলায় বহু  মানুষের আর্থিক উপার্জন হয়।কিন্তু এবারে করোনা ভাইরাসের কারনে রথযাত্রা বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন স্বর্গীয় লোকনাথ দাসের পূর্বপুরুষেরা।

তবে রথ উৎসবে সেভাবে জাঁকজমক না হলেও, নিয়মাচারে কোন ত্রুটি থাকবে না। জগন্নাথ দেবকে মাসির বাড়িতে প্রথা মেনেই নিয়ে যাওয়া হবে। থাকবে না কোন অনুষ্ঠান।আবার সাতদিন পর প্রথা মেনে মাসির বাড়ি থেকে আনা হবে।প্রথা মেনে সব কিছু হলেও সাধারণ মানুষের কোন রকম অংশগ্রহণ থাকবে না।ফলে ইসলামপুর বাসিন্দাদের মন খারাপ।দাস পরিবারের নাতবউ সোমা দাস জানিয়েছেন, "করোনা সংক্রমণের জন্যই তাঁরা সমস্ত রকম নিয়মাচার মেনে বাড়িতেই পুজো করবেন। শুধুমাত্র মাসির বাড়ি যাবার যে প্রথা সেটা থানা কলোনীর দুর্গামন্দিরে রথ নিয়ে যাওয়া হবে এবং সেখান থেকে ফের সাত দিন পর নিয়ম রক্ষা করা হবে।" এবছর কোনও মেলা বসছে না।ইসলামপুরের বাসিন্দা বিজয় দাস জানিয়েছেন, রথ মানেই ইসলামপুরে একটা উৎসব।ইসলামপুরে খুব বেশি রথ বের  না হলেও, যে কয়টি রথ এখানে বের হয় সেখানে মানুষ ব্যাপক আনন্দ করেন। রথ উৎসবকে ঘিরে  ইসলামপুরে বিরাট মেলা বসে। ইসলামপুরে তেমন কোনও বিনোদনের  জায়গা না থাকায় মেলায় ইসলামপুর বাসি ব্যাপক আনন্দ করেন।এবারে করোনা ভাইরাসের কারণে রথ যাত্রা না হওয়ায় মেলায় বসছে না।ফলে ইসলামপুর বাসির মন খারাপ।

UTTAM PAUL 

Published by: Piya Banerjee
First published: June 20, 2020, 9:54 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर