বিজয়ার মিষ্টি মুখে অভিনব সন্দেশ বানিয়ে মন জয় করল রায়গঞ্জের মিষ্টির দোকান

বিজয় দশমী মানে মিষ্টি মুখ করাতে সবাই চাই। সে ক্ষেত্রে গতানুগতিক মিষ্টির বাইরে একটু অন্য রকম মিষ্টি পেলে ভালই হয়।রায়গঞ্জ উকিলপাড়া একটি মিষ্টির দোকানে বিকছে শুভ বিজয়া লেখা সন্দেশ।

বিজয় দশমী মানে মিষ্টি মুখ করাতে সবাই চাই। সে ক্ষেত্রে গতানুগতিক মিষ্টির বাইরে একটু অন্য রকম মিষ্টি পেলে ভালই হয়।রায়গঞ্জ উকিলপাড়া একটি মিষ্টির দোকানে বিকছে শুভ বিজয়া লেখা সন্দেশ।

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: বিজয় দশমী মানে মিষ্টি মুখ করাতে সবাই চাই। সে ক্ষেত্রে গতানুগতিক মিষ্টির বাইরে একটু অন্য রকম মিষ্টি পেলে ভালই হয়।রায়গঞ্জ উকিলপাড়া একটি মিষ্টির দোকানে বিকছে শুভ বিজয়া লেখা সন্দেশ।সেই সন্দেশ কিনতে দোকানে ভিড় জমিয়েছেন রায়গঞ্জের বাসিন্দারা।ক্রেতাদের পছন্দ মত মিষ্টি সরবরাহ করতে পেরে খুশী দোকানদার। বিজয় দশমীতে আত্মীয়দের বাড়িতে মিষ্টি নিয়ে গিয়ে একে অপরকে পরিজনদের মিষ্টি খাইয়ে প্রনাম করে আর্শিবাদ দেওয়া হয়। বাঙালির শ্রেষ্ঠ পুজো মানে দূর্গাপুজো। এই পুজো কয়েকটি দিন বাঙালিরা পুজোতে মেতে উঠে। মা দূর্গা চলে গেলেন শ্বশুর বাড়িতে। তাই আগামী বছর মা যাতে আবার বাপের বাড়িতে আসেন তারজন্য আপামর বাঙালিরা মিষ্টি নিয়ে আত্মীয় পরিজনদের মিষ্টি মুখ করান। তার জন্য ভালো মিষ্টি খাওয়াতে হবে আত্মীয় পরিজনদের। এবারের দশমীর স্পেশাল মিষ্টি নিয়ে এসেছেন রায়গঞ্জ শহরের উকিলপাড়ার টাউন ক্লাবের পাশে অবস্থিত একটি মিষ্টির দোকান। এখানে ৫ টাকা থাকে শুরু করে ২০ টাকার পর্যন্ত ভালো সুস্বাদু মিষ্টি পাওয়া যায়। বিজয় দশমী উপলক্ষে তারা বিজয় দশমী লেখা সন্দেশ  তৈরি করেছে। নিম্নবিত্ত সাধারণ মানুষের কথা মাথায় রেখে এই মিষ্টি দাম রেখে মাত্র ১০ টাকা। কারন এবার করোনা অবহে সাধারণ মানুষের পকেটে টান পরেছে সে কথা মাথায় রেখে তারা কম দামের এই বিজয় দশমীর স্পেশাল মিষ্টি তৈরি করেছেন। দোকানের মালিক দেবব্রত বোস জানিয়েছেন, প্রতিবছর আমরা বিজয় দশমীতে শহরবাসীদের নতুন  ধরনের স্পেশাল কিছু মিষ্টি তৈরি করেছেন। মধ্যবিত্ত সাধারণ মানুষদের কথা চিন্তা করে পাশাপাশি করোনা আবহে মানুষের টাকা পয়সা নেই। তাদের কথা মাথায় রেখে ক্রেতাদের সাধ্যের দাম রেখেছেন। সমস্ত ধরনের মানুষ এই মিষ্টি কিনতে পারেন লক্ষ্য নিয়েই তার এই ভাবনা।রায়গঞ্জের মানুষ এই সন্দেশ কিনতে সকাল থেকে দোকানে আসছেন। অনুপ চৌধুরী নামে এক ক্রেতা  জানালেন, বিজয়া করতে তিনি শ্বশুড়বাড়ি যাবেন।শুভ বিজয়া লেখা সন্দেশ পেয়ে ভাল লাগছে।প্রতিবছর এই দোকানে মিষ্টির নতুনত্ব পাওয়া যায়। এবারে সেই আশা নিয়েই দোকানে এসেছিলেন।এসে এই শুভ বিকয়া লেখা সন্দেশ পেয়েছেন।।

Published by:Akash Misra
First published: