উত্তরবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

রেকর্ড সংখ্যক পরিযায়ি পাখি রায়গঞ্জ কুলিক পক্ষীনিবাসে

রেকর্ড সংখ্যক পরিযায়ি পাখি রায়গঞ্জ কুলিক পক্ষীনিবাসে

রায়গঞ্জ রেকর্ড সংখ্যক পরিযায়ি পাখি আসল রায়গঞ্জ কুলিক পক্ষীনিবাসে।

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: রায়গঞ্জ রেকর্ড সংখ্যক পরিযায়ি পাখি আসল রায়গঞ্জ কুলিক পক্ষীনিবাসে।জেলা বনাধিকারিকদের দাবি, একটানা লকডাউন এবং টানা বর্ষার কারনে এবারে রেকর্ড পরিমান পরিযায়ি পাখি কুলিক পক্ষীনিবাসে এসে বাসা বেধেছেন। এই বিপুল পরিমান পরিযায়ি পাখি রায়গঞ্জ কুলিক পক্ষীনিবাসে এলেও তাদের নিরাপত্তার দিকে সেভাবে নজর দেয় না জেলা বনদপ্তর। নয়ের দশক থেকে রায়গঞ্জ কুলিক পক্ষীনিবাসে পরিযায়ি পাখি বাসা বাধতে শুরু করে। এই পক্ষীনিবাসে ওপেন বিল ষ্টক,নাইট হেরন, এগরেট,কর্মোরেন্ট প্রজাতির পাখি  বাসা বাধে। ২০১৯ সালে ওপেন বিল ষ্টক ৬৫ হাজার ৮৬৪,নাইট হেরন..৮ হাজার ১২৪ ইগরিট. ১১ হাজার ৯৭০ এবং কর্মোরেন্ট ৭ হাজার ১৩০টি পাখি এসেছিল। মে মাসের শেষ নাগাদ পরিযায়ি পাখিরা এই পক্ষিনিবাসে আসা শুরু করে।জুন মাস জুড়ে পাখি আসা শেষ হয়।চলতি বছরে পাখি আসার আগে করোনা সংক্রামন ঠেকাতে দেশ জুড়ে লকডাউন ঘোষনা করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার।এই লকডাউনের কারনে জাতীয় সড়কে যান চলাচল পুরোপুরি বন্ধ ছিল।যান চলাচল বন্ধ থাকায় বায়ু দূষনের পরিমান অনেকটাই কমে যায়।মে মাসের শেষ নাগাদ পাখি আসার সময় সীমা থাকলেও অনুকূল আবহওয়ার কারনে মে মাসের মাঝামাঝি পাখি আসা শুরু হয়ে যায়। এদিকে লকডাউন এবং অন্যদিকে একটানা বর্ষার কারনে চলতি মরসুমে ৬ হাজারের কিছু বেশী পাখি বাড়ে।এবারে ওপেন বিল ষ্টক ৬৮ হাজার ১৫৯, নাইট হেরন...৭হাজার ৯৫৬ ইগরিট ১৩ হাজার ৯৪ এবং কর্মরেন্ট  ১০ হাজার ৪২২টি পাখি। জেলা বনাধিকারিক সোমনাথ সরকার জানিয়েছেন, অনুকূল আবহাওয়া ছাড়াও বর্ষার কারনে পক্ষিনিবাস সংলগ্ন এলাকায় প্রচুর পরিমানে মাছের খাদ্য মাছ এবং শামুক পাওয়া গেছে। এসমস্ত কারনেই রেকর্ড সংখ্যক পরিযায়ি পাখি বাসা বেধেছে রায়গঞ্জ কুলিক পক্ষীনিবাসে। কুলিক পক্ষিনিবাসে রেকর্ড সংখ্যক পাখি এলেও তাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা পর্যাপ্ত নয় বলে অভিযোগ করেছেন উত্তর নিনাজপুর জেলার পশু প্রেমী সংগঠনের কর্নধার গৌতম তান্তিয়া। তার দাবি পরিযায়ি পাখিদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা আরো আটোসাটো করা হলে পাখির সংখ্যা আরো বাড়তে বলে তিনি মনে করেন।

Published by: Akash Misra
First published: October 13, 2020, 10:29 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर