কোর্ট লকআপে অসুস্থ বন্দির মৃত্যু মালদহে

কোর্ট লকআপে অসুস্থ বন্দির মৃত্যু মালদহে
কোর্ট লক-আপে বন্দি মৃত্যু

মৃতের নাম পাহাড়ি সোরেন৷ বয়স ৬৫৷ গাজলের ছোট জলসা এলাকার বাসিন্দা। তার বিরুদ্ধে স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে খুনের অভিযোগ ছিল।

  • Share this:

সেবক দেবশর্মা

#মালদহ: কোর্ট লকআপে অসুস্থ হওয়ায় পুলিশ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরেই মৃত্যু হল বিচারাধীন বন্দির। মঙ্গলবার বিকেলে ঘটনাটি ঘটেছে মালদহ জেলা আদালতে পুলিশ লক-আপে। মৃতের নাম পাহাড়ি সোরেন৷ বয়স ৬৫৷ গাজলের ছোট জলসা এলাকার বাসিন্দা। তার বিরুদ্ধে স্ত্রীকে শ্বাসরোধ করে খুনের অভিযোগ ছিল।

মালদহ পুলিশ লকআপে অসুস্থ হয়ে বিচারাধীন বন্দির মৃত্যুর ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল মঙ্গলবার। সোরেন পাহাড়ি নামে ওই ব্যক্তি এক বছরেরও বেশি সময় ধরে বিচারাধীন ছিলেন। এ দিন পুরনো মামলার শুনানির জন্য জেলা সংশোধনাগার থেকে তাকে আনা হয় মালদহ আদালতে। মালদহের অতিরিক্ত নগর দায়রা আদালত পঞ্চম কোর্টের বিচারকের সামনে পুলিশ হাজির করায় সোরেনকে। শুনানির পর বিকেল নাগাদ তাকে ফিরিয়ে আনা হয় পুলিশ লক-আপে। সেখানেই আচমকা অসুস্থতার কথা জানান তিনি। পুলিশ দ্রুত তাকে মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতলে নিয়ে গেলেও বাঁচানো যায়নি।

জানা গিয়েছে, ২০১৮ সালের ২৮ অক্টোবর স্ত্রী চাঁদনী পাহাড়িকে খুনের অভিযোগে তাকে গ্রেপ্তার করে মালদা থানার পুলিশ। পুরাতন মালদার মালদহে রাস্তার ধারে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায় তার স্ত্রীকে। মৃতের বাপের বাড়ির লোকজনের অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেপ্তার হয় সরেনকে। ওই মামলায় পুলিশ তার বিরুদ্ধে বধূ নির্যাতন এবং হত্যার অভিযোগে চার্জশিট দেয়। এরপর শুরু হয়েছিল বিচার পর্ব।

যদিও মৃতের মেয়ে সোনামণি কিস্কু র দাবি, খুনের সন্দেহে তার বাবাকে গ্রেপ্তার করা হয়। মিথ্যে অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়াই ওই ব্যক্তি মানসিকভাবে বিপর্যস্ত ছিলেন। অসুস্থতা সত্ত্বেও এদিন তাকে আদালতে হাজির করানো হয়। বিচারাধীন অবস্থায় সঠিক চিকিৎসা হয়নি বলেও অভিযোগ তুলেছেন সোনামণি। যদিও পুলিশ জানিয়েছে, ঠিক কীভাবে মৃত্যু তা জানতে মৃতদেহের ময়নাতদন্ত করানো হবে।​

First published: 09:42:01 PM Dec 03, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर