বুধবার মালদহে মুখ্যমন্ত্রীর সভা, লক্ষাধিক জমায়েতের টার্গেট তৃণমূলের

বুধবার মালদহে মুখ্যমন্ত্রীর সভা, লক্ষাধিক জমায়েতের টার্গেট তৃণমূলের

জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ৪০ হাজার সক্রিয় কর্মী আনার টার্গেট নিয়েছে তৃণমূল। এর পাশাপাশি অন্যান্য কর্মী , সমর্থক মিলিয়ে জমায়েত লক্ষাধিক ছাপাতে পারে বলে আশা জেলা তৃণমূল সভাপতি মৌসম বেনজির নূরের

  • Share this:

#মালদহ: বুধবার মালদহে মুখ্যমন্ত্রীর কর্মীসভায় লক্ষাধিক জমায়েতের পরিকল্পনা করছে তৃণমূল কংগ্রেস। বুধবার বিকেলে পুরাতন মালদহের ছোট সুজাপুর মাঠে বুথ ভিত্তিক কর্মী সভা করবেন তৃণমূল নেত্রী। জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ৪০ হাজার সক্রিয় কর্মী আনার টার্গেট নিয়েছে তৃণমূল। এর পাশাপাশি অন্যান্য কর্মী , সমর্থক মিলিয়ে জমায়েত লক্ষাধিক ছাপাতে পারে বলে আশা জেলা তৃণমূল সভাপতি মৌসম বেনজির নূরের ।

সামনেই মালদহের ইংরেজবাজার এবং পুরাতন মালদহ পুরসভার নির্বাচন হওয়ার কথা । এর আগে ২০১৬-র বিধানসভা এবং ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে মালদহে খাতা খুলতে পারেনি তৃণমূল।  সেই অর্থে এবারের পুরভোট তৃণমূলের কাছে ঘুরে দাঁড়ানোর চ্যালেঞ্জ । কিন্তু সবচেয়ে বেশি সমস্যা মালদহ তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব । এই অবস্থায় কর্মীসভায় মুখ্যমন্ত্রী কী বার্তা দেন তা নিয়ে এখন থেকেই শুরু হয়েছে জোর চর্চা । গত কয়েক মাস ধরে মুখ্যমন্ত্রী নিজেই মালদহে সাংগঠনিক দায়িত্ব নিজের হাতে রাখেন । গত ২০১৬ বিধানসভা নির্বাচনে মালদহে বৈষ্ণবনগর বিধানসভা আসনে জেতে বিজেপি । ২০১৯  লোকসভা  ভোটেও  উত্তর মালদহ লোকসভা আসন এবং হবিবপুর বিধানসভা উপনির্বাচনে তৃণমূলকে  পরাজিত করে বিজেপি ।

সাম্প্রতিককালে জেলায় বিজেপি সংগঠন অনেক বেড়েছে। এই অবস্থায় নানা গোষ্ঠীতে বিভক্ত তৃণমূল কতটা এককাট্টা হয়ে পুরভোটের লড়াইয়ে নামতে পারে তা নিয়েও জল্পনা রয়েছে। বিশেষ করে গত লোকসভা ভোটে ইংরেজবাজার ও পুরাতন মালদার দুই পুরসভা এলাকাতেই তৃণমূলের চেয়ে  এগিয়ে ছিল বিজেপির। এই অবস্থায় আগামী পুরভোটে জোর লড়াইয়ের সম্ভাবনা মালদহে। বুধবার তৃণমূলের সভা মাঠ প্রস্তুতির কাজ প্রায় শেষ। প্রতি ব্লকে কর্মীদের জন্য বাড়তি গাড়ির ব্যবস্থা করা হয়েছে । এছাড়া সভা চত্বরে কর্মীদের শুকনো খাবার, প্রাথমিক চিকিৎসা পরিষেবা, পানীয় জল বিতরণের ব্যবস্থা থাকবে। মুখ্যমন্ত্রী ছাড়াও বুধবার মালদহের সভায় থাকতে পারেন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী, মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

Sebak DebSarma

First published: March 3, 2020, 11:13 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर