পরিবারের সম্মতি ছাড়া বিয়ে,অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যু ঘিরে চাঞ্চল্য

পরিবারের সম্মতি ছাড়া বিয়ে,অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর অস্বাভাবিক মৃত্যু ঘিরে চাঞ্চল্য

জানা গেছে, গত নয়মাস আগে পরিবারের সম্মতি ছাড়াই চাকুলিয়া থানার সাটিয়ারা গ্রামের বাসিন্দা মহম্মদ নিজামের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল নুরবানুর।

জানা গেছে, গত নয়মাস আগে পরিবারের সম্মতি ছাড়াই চাকুলিয়া থানার সাটিয়ারা গ্রামের বাসিন্দা মহম্মদ নিজামের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল নুরবানুর।

  • Share this:

#চাকুলিয়া: অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যুকে ঘিরে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনাটি উত্তর দিনাজপুর জেলার চাকুলিয়া থানার নিজামপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের সাটিয়ারা গ্রামে। মৃতার পরিবারের অভিযোগ, শ্বশুড় বাড়ির লোকেরা তাকে বিষ খাইয়ে হত্যা করেছে। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ইসলামপুর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। পুলিশি ঘটনার তদন্ত দাবি করে অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন মৃতার দাদা। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে চাকুলিয়া থানার পুলিশ।

জানা গেছে, গত নয়মাস আগে পরিবারের সম্মতি ছাড়াই চাকুলিয়া থানার সাটিয়ারা গ্রামের বাসিন্দা মহম্মদ নিজামের সঙ্গে  বিয়ে হয়েছিল নুরবানুর। পরিবারের সম্মতি ছাড়া বিয়ে হওয়ায় নূরবানুর সঙ্গে যোগাযোগ রাখত না। বিয়ের পর নূরবানু অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন।গতকাল, মঙ্গলবার, রাতে আচমকাই খবর পান তাঁর পরিবার যে, নূরবানুকে চাকুলিয়া প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। খবর পেয়ে নূরবানুর পরিবারের লোকেরা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ছুটে আসেন। সেখানে তাকে মৃত অবস্থায় দেখতে পান। নূরবানুর পরিবারের লোকেরা হাসপাতালে পৌঁছাতেই তার স্বামী সহ শ্বশুড় বাড়ির লোকেরা সেখান থেকে গা ঢাকা দেন বলে অভিযোগ।

মৃতার দাদা জাভেদ আলম পারভেজের অভিযোগ, তাঁরা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে বোনের মৃতদেহ দেখতে পান। মুখ দিয়ে ফেনা বের হতে দেখেন। চিকিৎসক তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করার পরই তড়িঘড়ি মৃতদেহ নিয়ে যাবার চেষ্টা করেন শ্বশুড়বাড়ির লোকেরা। তাঁরা হাসপাতালে পৌঁছানোর পরই মৃত দেহ ছেড়ে শ্বশুড়বাড়ির লোকেরা পালিয়ে যান, এমনই অভিযোদ। মৃতার দাদার অভিযোগ,শ্বশুড়বাড়ির লোকেরা বোনকে বিষ খাইয়ে হত্যা করেছে।

পুলিশ মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ইসলানপুরে পাঠিয়েছে। পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে৷ অতিমধ্যেই ঘটনার সত্যতা উদঘাটন করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করার দাবি করেছেন নূরের পরিবার।এইধরণেরর ঘটনা আর করোর সঙ্গে যাতে না হয় পুলিশকে সেই ব্যবস্থা করার দাবি করেছেন মৃতার দাদা জাভেদবাবু।

Published by:Pooja Basu
First published: