• Home
  • »
  • News
  • »
  • north-bengal
  • »
  • সচেতনতার প্রচারই সার! মানছেন না স্বাস্থ্য বিধি! আক্রান্তের গ্রাফ অপরিবর্তিত

সচেতনতার প্রচারই সার! মানছেন না স্বাস্থ্য বিধি! আক্রান্তের গ্রাফ অপরিবর্তিত

 বাজারঘাট, মার্কেট, শপিং মল সর্বত্রই একই ছবি। ধীরে ধীরে সব পরিষেবাই চালু হচ্ছে। কিন্তু যেটা হচ্ছে না, তা হল স্বাস্থ্য বিধি মানার বালাই নেই।

বাজারঘাট, মার্কেট, শপিং মল সর্বত্রই একই ছবি। ধীরে ধীরে সব পরিষেবাই চালু হচ্ছে। কিন্তু যেটা হচ্ছে না, তা হল স্বাস্থ্য বিধি মানার বালাই নেই।

বাজারঘাট, মার্কেট, শপিং মল সর্বত্রই একই ছবি। ধীরে ধীরে সব পরিষেবাই চালু হচ্ছে। কিন্তু যেটা হচ্ছে না, তা হল স্বাস্থ্য বিধি মানার বালাই নেই।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: না, সংক্রমণের গ্রাফ নামেনি। পাহাড়েও প্রতিদিনই বাড়ছে সংখ্যাটা। গ্রামাঞ্চলেও গ্রাফ অপরিবর্তিত। আর পুর এলাকায় ওঠা নামা করছে। সার্বিকভাবে এই হল জেলার করোনার বর্তমান ছবি! আনলক ফোরের প্রথম দিনেই শিলিগুড়ির রাস্তায় সেই ভিড়ের ছবি। পাল্লা দিয়ে শুরু রাজনৈতিক কর্মসূচীও। বাজারঘাট, মার্কেট, শপিং মল সর্বত্রই একই ছবি। ধীরে ধীরে সব পরিষেবাই চালু হচ্ছে। কিন্তু যেটা হচ্ছে না, তা হল স্বাস্থ্য বিধি মানার বালাই নেই।

দিব্বি মুখ মাস্কে না ঢেকে চলছে পায়চারি! দেদার জমিয়ে আড্ডা! যেখানে সংখ্যাটা বেড়েই চলছে, সেখানে কোভিড প্রোটোকল মেনে চলা আবশ্যিক। কিন্তু বার বার বলার পরও হুঁশ ফিরছে না শহরের। বেহুঁশ পাহাড় থেকে সমতলের গ্রামীন এলাকাও! আর এই যদি অসাবধানতার ছবি ধরা পড়ে, তাহলে গ্রাফ নামবেই বা কোন পথ ধরে? বিশেষজ্ঞ থেকে কোভিড জয়ী চিকিৎসকেরাও শিবির করে সচেতনতার বার্তা দিয়ে চলেছেন। শুনছেন। কিন্তু কার্যকরী করছেন না। আর তার ফল মিলছে হাতেনাতে! গ্রাফ উর্ধমুখী। পাহাড়ে নেমে গিয়েছিল সংক্রমণের মাত্রা। ফের সেখানেও ছড়িয়ে পড়েছে মারণ করোনা!

প্রতিদিনই সংক্রমণ ছড়াচ্ছে। গত ২৪ ঘন্টায় শিলিগুড়ি পুরসভার ৪৭টি ওয়ার্ড এবং দার্জিলিংয়ের পাহাড় ও সমতলের গ্রামাঞ্চল মিলিয়ে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৯০ জন! এর মধ্যে পাহাড়ে আক্রান্তের সংখ্যা ১৯! বিজনবাড়ি সবচাইতে বেশী সংক্রমিত। আজও নতুন করে ৫ আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে। দার্জিলিং পুর এলাকায় আক্রান্ত ৪ জন। কার্শিয়ংয়ে ১ জন। ৩ জন করে আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে মিরিক, সুখিয়াপোখরি এবং তাগদায়। গ্রামাঞ্চলের চার ব্লকে আক্রান্তের সংখ্যা ৩৪ জন। অপরিবর্তিতই রয়েছে। নকশালবাড়িতে ১২ জন, মাটিগাড়ায় ১১ জন, খড়িবাড়িতে ৮ জন এবং ফাঁসিদেওয়ায় নতুন করে আক্রান্ত ৩ জন। আর পুর এলাকায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩৭ জন। অন্যদিকে সুস্থতার হার অপরিবর্তিত। নতুন করে আজ কোভিড জয় করেছেন ৪১ জন। যা আশার আলো। জেলার তিন কোভিড স্পেশাল হাসপাতালে এই মূহূর্তে চিকিৎসা চলছে ২৬৮ জনের। আরো কয়েকজন আক্রান্তের চিকিৎসা চলছে বেসরকারী হাসপাতালে।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: