বড়দিনের উৎসবে মাতোয়ারা শিলিগুড়ি! সাফারি পার্ক থেকে গজলডোবায় দিনভর দেদার মজা! 

বড়দিনের উৎসবে মাতোয়ারা শিলিগুড়ি! সাফারি পার্ক থেকে গজলডোবায় দিনভর দেদার মজা! 

কোভিড বিধি মেনে দিনভর উৎসবের আনন্দে মেতে ওঠা।

কোভিড বিধি মেনে দিনভর উৎসবের আনন্দে মেতে ওঠা।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: বড়দিনে ফেস্টিভ মুডে শিলিগুড়ি। উৎসবের আবহে সকাল থেকেই বাড়ি থেকে বেড়িয়ে পড়া। শহর লাগোয়া একাধিক স্পটে ভিড় জমায়। ভিড় ছিল আশপাশের পর্যটনকেন্দ্রে। কেউ গজলডোবায়, আবার কেউ সেবক পাহাড়ের কোলে। আবার একটা বড় অংশ ভিড় জমিয়েছিল বেঙ্গল সাফারি পার্কে। আবার আজ অনেকেই মেতে ছিল পিকনিক মুডে!

কোভিড বিধি মেনে দিনভর উৎসবের আনন্দে মেতে ওঠা। আজ তো সবে শুরু। চলবে নতুন ইংরেজী নববর্ষকে বরণ করা পর্যন্ত। বেঙ্গল সাফারি পার্কে বেলা বাড়তেই ভিড় জমাতে থাকে পর্যটকেরা। উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলা থেকে পর্যটকেরা ছুটে আসে এখানে। দিনভর উল্লাস! সঙ্গে কার সাফারির মজা! কার সাফারিতে বেড়িয়ে একে একে লেপার্ড, রয়েল বেঙ্গল টাইগার, হরিণ, ভল্লুক, বাইসন, হরিণের মুখোমুখি! তখন কেউ ক্যামেরায়, কেউবা মোবাইলে ছবি তুলতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। রয়েল বেঙ্গল টাইগারকে এত কাছ থেকে দেখে অভিভূত অনেকেই। জঙ্গল সাফারি শেষে ক্যাম্পাসেই ইতিউতি সেল্ফি, গ্রুফি তোলার হিড়িক পড়ে যায়। আবার অনেকেই টয়ট্রেনে রাইড করেন পার্ক চত্বর। ঘোরা শেষে সাফারি পার্কেই খাওয়া, দাওয়া! দিনভর চুটিয়ে দেদার মজা! লকডাউনের পর নিউ নর্মালে খোলামেলা মেজাজে পর্যটকেরা। তবে কোভিড বিধি মেনেই হল সব। মাস্ক ছাড়া কাউকেই ঢুকতে দেওয়া হয়নি সাফারি পার্কে। সাফারি পার্ক কর্তৃপক্ষ কেক কেটে বড়দিনের উৎসবের সূচনা করে। কচিকাঁচাদের পড়িয়ে দেওয়া হয় সান্তা ক্যাপ! তবে অন্যবারের তুলনায় ভিড় কিছুটা কম ছিল। গত বছরও তিল ধারনের ঠাঁই ছিল না। করোনার জেরে এবার ভিড় কিছুটা হালকা ছিল। আবার আজ অনেকেই গোটা দিন গজলডোবায় ব্যস্ত ছিল নৌকাবিহারে। সঙ্গে ক্যানালের পাশে জমিয়ে আড্ডা। কেউ এসছে পরিবারের সঙ্গে। কেউ আবার বন্ধু, বান্ধবীদের সঙ্গে। অন্যদিকে পিকনিক স্পটগুলোতেও ছিল ভিড়ের ছবি। শিলিগুড়ি লাগোয়া তুড়িবাড়ি, দুধিয়াতে ছিল জমজমাট পিকনিকের আসর। সবমিলিয়ে বড়দিনে উৎসবে মাতলো আট থেকে আশি সকলেই!

Partha Sarkar

Published by:Debalina Datta
First published: