corona virus btn
corona virus btn
Loading

শিলিগুড়ির রাস্তায় ভিড়, দিনভর চলল ধরপাকড়! আটক গাড়ি, টোটো

শিলিগুড়ির রাস্তায় ভিড়, দিনভর চলল ধরপাকড়! আটক গাড়ি, টোটো

এক দিন বা দু'দিনের জন্য নয়, এক্কেবারে এক মাসের ওষুধ কিনে বাড়ি ফেরানো হয়। অনেককেই ঘণ্টা পর ঘণ্টা দাঁড় করিয়ে রাখা হয়।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: দেশ জুড়েই চলছে লকডাউন! শহর শিলিগুড়ির ছবি কি তাই বলছে? সকাল থেকেই শহরের রাস্তায় দু'চাকা, তিন চাকা আর চার চাকার গাড়ির দাপট। শহরের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত। ছবির মিল সর্বত্রই এক। লোক আর লোক। কেন বেড়িয়েছেন রাস্তায়? চটজলদি জবাব, ওষুধ কিনতে। কেউ বলছেন, এক্সরে করাতে। অন্য প্রান্ত থেকে জবাব এল, কেমো করাতে যাচ্ছি। আবার কেউ বেড়িয়েছেন এটিএম থেকে ৫০০ টাকা তুলতে!

বাড়ি থেকে হাসমিচক আসছেন ঘুর পথে। যেন শহর পরিক্রমায় বেড়িয়েছেন! আবার অনেকেই বেড়িয়েছেন বিনা প্রশাসনিক অনুমতিতে গাড়ি, বাইক নিয়ে। হাসমিচক থেকে বিবাদি চক, মহাত্মা গান্ধি মোড় থেকে দার্জিলিং মোড়। সর্বত্রই পুলিশের নাকা চেকিং। কার্যত গোটা শহর, মহকুমা আজ চলে আসে পুলিশি ঘেরাটোপে। শহর দেখে মনেই হবে না যে লকডাউন চলছে! যেন এক উৎসব চলছে! আর তাই বাড়ি থেকে বেড়িয়ে সোজা রাস্তায়। আর যারা ওষুধ কিনতে বেড়িয়েছেন, তাদের দাঁড় করিয়ে সঙ্গে এক পুলিশ কর্মীকে দিয়ে পাঠানো হয় ওষুধের দোকানে।

এক দিন বা দু'দিনের জন্য নয়, এক্কেবারে এক মাসের ওষুধ কিনে বাড়ি ফেরানো হয়। অনেককেই ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। বার বার করে ঘর বন্দী থাকার আর্জি জানাচ্ছে রাজ্য ও কেন্দ্র। তবুও এক শ্রেণীর মানুষ তা মানছেন না। অবাধেই বের হচ্ছেন বাড়ি থেকে। মাঝে পুলিশ হালকাভাবে নিয়েছিল। ফের কড়া হাতে লকডাউন মোকাবিলায় রাস্তায় নেমেছেন পুলিশ। তবু হুঁশ ফিরছে না এক শ্রেণীর অতি উৎসাহী জনতার। আজ বহু গাড়ি, টোটো বাজেয়াপ্ত করেছে পুলিশ। এরপরও কি টনক নড়বে? থাকবেন ঘর বন্দী? নাকি ফের রুটিন মাফিক রাস্তায় বের হবেন লোকেরা। আজ মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছেন, শিলিগুড়িতে আরো কড়াকড়ি হবে লকডাউন। প্রয়োজনে সশস্ত্র পুলিশ নামানো হবে। লকডাউন মানতে হবে। নইলে কড়া ব্যবস্থার কথা ঘোষণা রাজ্যের। তাহলে কি ছবি বদলাবে শিলিগুড়ির?

First published: April 17, 2020, 5:51 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर