উত্তরবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

তিন দিনে আক্রান্ত ৪২৪ ! কিছুতেই সচেতন হচ্ছেন না শিলিগুড়ির মানুষ !

তিন দিনে আক্রান্ত ৪২৪ ! কিছুতেই সচেতন হচ্ছেন না শিলিগুড়ির মানুষ !

গ্রামাঞ্চলেও লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ!

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: না, নামেনি আক্রান্তের গ্রাফ! টানা তিন দিন ১০০-র নীচে নামেনি গ্রাফ! শহরকে পেছনে ফেলে লাফিয়ে লাফিয়ে গ্রামাঞ্চলে বাড়ছে সংক্রমণ! এখন তো আর পরিযায়ী শ্রমিকের ফিরে আসা বা ভিন রাজ্য থেকে ঘরে ফেরার বিষয়টি কোনও বিষয় নয়। আনলক থ্রি চলছে। শিক্ষা ব্যবস্থা বাদ দিলে প্রায় সব পরিষেবাই স্বাভাবিক। তাহলে কি গোষ্ঠী সংক্রমণ? আক্রান্তের গ্রাফ তো অন্তত তাই বলছে। শিলিগুড়ির দুই ব্লকে র‍্যাপিড এন্টিজেন টেস্ট শুরু হতেই বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। প্রতিদিনই এই দুই ব্লকে সংক্রমণ অন্যদের টেক্কা দিচ্ছে। দুই এলাকায় বাড়ছে আতঙ্ক।

এক স্বাস্থ্য কর্মীর কথায়, 'স্বাস্থ্য বিধি না মেনে চলার মাশুল গুনতে হচ্ছে। গ্রামাঞ্চলের হাট, বাজারের ছবি ভয়ঙ্কর। মাস্ক ছাড়াই চলা ফেরা! দেদার কেনাকাটা! যত্র তত্র থুথু ছেটানো! সোশ্যাল ডিস্টেনশিং দূর অস্ত! যা ফল পাওয়ার, তাই পাচ্ছে! আরো আক্রান্তের খোঁজ মিলবে।' গত ২৪ ঘন্টায় শিলিগুড়ি পুরসভার ৪৭টি ওয়ার্ড এবং দার্জিলিংয়ের পাহাড় ও সমতলের গ্রামীন এলাকা মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা ১১৪ জন! বৃহস্পতিবারে ছিল ১৭২, শুক্রবারে ১৩৮ জনের পর আজ ১১৪! টানা ৭২ ঘন্টায় আক্রান্তের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ালো ৪২৪! যথেষ্টই উদ্বেগের! এরপরও কি সচেতন হবে না শিলিগুড়ি? আরো অন্তত দেড় মাসের কাছাকাছি কঠিন সময়। এদিন পুর এলাকায় আক্রান্তের সংখ্যা ৪৩ জন! গতকালের তুলনায় অর্ধেক। গ্রামাঞ্চলের ৪ ব্লকে সংখ্যাটা ৪৪! যার মধ্যে মাটিগাড়ায় আক্রান্ত ২২ জন। নকশালবাড়িতে ১৮ জন। ২ জন করে আক্রান্ত ফাঁসিদেওয়া এবং খড়িবাড়ি ব্লকে। পাহাড়েও বেড়েছে সংক্রমণ! গত ২৪ ঘন্টায় পাহাড়ে সংক্রমিত হয়েছে ২৭ জন! সাম্প্রতিককালে সবচাইতে বেশী আক্রান্ত! এর মধ্যে দার্জিলিং পুর এলাকায় ১০ জন। আর গ্রামীন এলাকায় ১১ জন। কার্শিয়ং পুরসভা এবং গ্রামীন এলাকা মিলিয়ে আক্রান্ত ৬ জন। অন্যদিকে কালিম্পং জেলায় আরাও ২ আক্রান্তের খোঁজ মিলেছে। পাহাড়ে নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ায় উদ্বেগ বেড়েছে। এদিকে এদিন সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২৩ জন। যা স্বস্তিদায়ক!

PARTHA PRATIM SARKAR 

Published by: Piya Banerjee
First published: August 22, 2020, 10:53 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर