corona virus btn
corona virus btn
Loading

দক্ষিণ দিনাজপুরে প্রকাশ্যে নিষেধাজ্ঞা জারি ধূমপানে

দক্ষিণ দিনাজপুরে প্রকাশ্যে নিষেধাজ্ঞা জারি ধূমপানে

প্রকাশ্যে ধূুমপান এবং তামাক জাত দ্রব্য সেবনে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা প্রশাসন।

  • Share this:

#দক্ষিণ দিনাজপুর: প্রকাশ্যে ধূুমপান এবং তামাক জাত দ্রব্য সেবনে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা প্রশাসন। শুধু নিষেধাজ্ঞাই নয়, নজরদারির জন্য ভিজিল্যান্স টিমও তৈরি হয়েছে। বুধবার তবুও নেশার নেশা থেকে বিরত থাকলেন না বহু মানুষ। প্রকাশ্যেই চলল ধূমপান।

মঙ্গলবার ছিল তামাক বিরোধী দিবস। প্রকাশ্যে ধূমপান ও তামাক জাত দ্রব্য সেবনে নিষেধাজ্ঞা জারি করে সাহসী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিল দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা প্রশাসন। ধূমপান ছাড়ানোর জন্য বালুরঘাট জেলা হাসপাতালের বর্হিবিভাগে টোব্যাকো কাউন্সেলিং সেন্টারও খোলা হয়েছে।

প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে ধূমপানের জন্য যারা ক্ষতিগ্রস্ত হন তাদের চিকিৎসাও করা হবে সেখানে। শুধু তাই না, প্রতিটি ব্লকের বিডিওদের নেতৃত্বে ভিজিল্যান্স টিমও তৈরি করা হয়েছে।জেলা প্রশাসনের তরফে এই নিষেধাজ্ঞায় যে কিছুটা কাজ হয়েছে, তা মানলেন এক বিক্রেতা। জানালেন, অন্যান্য দিনের থেকে অনেকটাই বিক্রি কম সিগারেটের।

প্রশাসনের উদ্যোগ আছে, প্রচারও হচ্ছে। তবে এসব নিষেধাজ্ঞাকে বুড়ো আঙুল ও দেখাচ্ছেন অনেকে। মৃত্যুর হাতছানি উপেক্ষা করেই প্রকাশ্যে ধূমপান করছেন বেশ কয়েকজন। অনেকে মনে করছেন, খাওয়াতে না, বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা দরকার।ঘুরে ফিরে তাই প্রশ্নটাই উঠছে বারবার।

প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞাই কি যথেষ্ট এই মারণ নেশাকে আটকাতে ? নাকি প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা, উদ্যোগের আগেও দরকার মানসিকতার পরিবর্তন। তাহলেই হয়তো মারণ নেশার ফাঁদ থেকে বেরোতে পারবেন নেশাপ্রেমীরা।

নিশ্চিত মৃত্যুর হাতছানি। তবু নেশার জাল কেটে বেরনো যায় না। তাই তামাকজাত দ্রব্য প্রতি বছর প্রাণ কাড়ে অসংখ্য মানুষের। ক্রমশ দীর্ঘ হচ্ছে এই মৃত্যুমিছিল।বিশ্বে প্রতিবছর ৬০ লক্ষ ধূমপায়ীর মৃত্যু হয়।পরোক্ষ ধূমপানে মৃত্যু  হয় ৬ লক্ষ মানুষের। ২০৩০ সালের মধ্যে মৃত্যু বেড়ে ৮০ লক্ষ হবার আশঙ্কা ।

 
First published: June 1, 2016, 7:05 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर