Night Curfew in Malbazar: বাংলাতেও এবার নাইট লকডাউন! কিন্তু নির্দিষ্ট অংশে, আপনার এলাকা নয় তো?

Night Curfew in Malbazar: বাংলাতেও এবার নাইট লকডাউন! কিন্তু নির্দিষ্ট অংশে, আপনার এলাকা নয় তো?

রাতে লকডাউন মালবাজারে

এলাকায় করোনার মারাত্মক বাড়বাড়ন্তের কারণেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে ডুয়ার্সের মাল মহকুমার মালবাজার এলাকায় পুর কর্তৃপক্ষ।

  • Share this:

    #মালবাজার: গোটা দেশের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাংলাতেও বাড়ছে করোনা সংক্রমণ (Corona in West Bengal)। দৈনিক সংক্রমণ দশ হাজারের গণ্ডী ছুঁয়ে ফেলেছে প্রায়। কিন্তু বাংলাতে এখনই লকডাউন হবে না বলে স্পষ্ট করে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। এমনকী মঙ্গলবার করোনা পরিস্থিতি নিয়ে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিয়ে দেশে যাতে আর লকডাউন না করতে হয়, তার জন্য অনুরোধ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (Narendra Modi)। কিন্তু বাংলার মধ্যেই ডুয়ার্সের মালবাজার এলাকায় চালু হয়ে গেল নাইট লকডাউন। এলাকায় করোনার মারাত্মক বাড়বাড়ন্তের কারণেই এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে ডুয়ার্সের মাল মহকুমার মালবাজার এলাকায় পুর কর্তৃপক্ষ।

    মঙ্গলবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য নৈশ লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পুর কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, মঙ্গলবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য সন্ধ্যে ৭ টা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত গোটা এলাকায় লকডাউন থাকবে। নির্দেশিকা অনুযায়ী, সন্ধ্যে ৭টা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত জরুরি পরিষেবা ছাড়া আর সমস্ত কিছুই বন্ধ থাকবে। খোলা যাবে না দোকানপাটও। পাড়ার মোড়ে, চায়ের দোকানে আড্ডাও দেওয়া যাবে না।

    এদিকে গোটা জলপাইগুড়িতেই করোনা সংক্রমণ ক্রমেই বাড়ছে। রীতিমতো আতঙ্কিত জেলার বাসিন্দারা। জেলায় ভোট সম্পূর্ণ হয়ে গেছে। এরপরই করোনা মোকাবিলায় তৎপর হয়েছে জলপাইগুড়ি জেলা প্রশাসন। মঙ্গলবার দুপুরে স্বাস্থ্যকর্তা ও বিডিও দের নিয়ে জেলার করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকে বসেন জলপাইগুড়ির জেলাশাসক মৌমিতা গোদারা বসু। আর সেই বৈঠকেই, জেলার চা বাগানগুলিতে আলাদা কোভিড হাসপাতাল গড়ার পাশাপাশি জলপাইগুড়ির করোনা হাসপাতালেও অতিরিক্ত ২০০ শয্যা বাড়ানো হয়েছে। ইতিমধ্যেই একটি কোভিড হাসপাতাল আছেই, আরও একটি হাসপাতাল তাতে সংযুক্ত হল।

    উদ্বেগ বাড়িয়ে রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় দশ হাজার ছুঁয়ে ফেলেছে৷ গত চব্বিশ ঘণ্টায় রাজ্যে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৯,৮১৯ জন৷ মৃতের সংখ্যাও বেড়ে হয়েছে একদিনে ৪৬৷ তবে গত চব্বিশ ঘণ্টায় রাজ্যে ৫০ হাজারের বেশি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে৷ যা গত কয়েকদিনের তুলনায় অনেকটাই বেশি৷ ফলে টেস্ট বাড়ায় আরও বেশি সংখ্যক করোনা আক্রান্তকে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়েছে৷

    Published by:Suman Biswas
    First published:
    0