নারকীয়! নিজের দেড় মাসের পুত্র সন্তানকে বালিশ চাপা দিয়ে খুন করল মা

নারকীয় এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ও উত্তেজনা ছড়িয়েছে উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জ কর্নজোড়া কালীবাড়ি এলাকায়।

নারকীয় এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ও উত্তেজনা ছড়িয়েছে উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জ কর্নজোড়া কালীবাড়ি এলাকায়।

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: দেড় মাসের সন্তানকে খুনের অভিযোগ উঠল মায়ের বিরুদ্ধে । ঘটনায় গ্রেফতার মা ও মাসি ৷ নিজের দেড়মাস বয়সের পুত্র সন্তানকে খুন করার অভিযোগ উঠল মা ও মাসির বিরুদ্ধে। নারকীয় এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ও উত্তেজনা ছড়িয়েছে উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জ কর্নজোড়া কালীবাড়ি এলাকায়।  অভিযুক্ত মা উর্মিলা বর্মন ও মাসি কল্পনা বর্মন পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে স্থানীয় বাসিন্দারা তাদের ধরে ফেলে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে কর্নজোড়া পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে,  রায়গঞ্জ শহর সংলগ্ন কর্নজোড়া কালীবাড়ি এলাকার বাসিন্দা রতন বর্মন ও তার স্ত্রী উর্মিলার বছর তিনেক আগে বিয়ে হয়। একটি দেড় মাসের পুত্র সন্তানও রয়েছে। মাস খানেক আগে স্বামী রতন বর্মনের সাথে ঝগড়া অশান্তি করে শিশু সন্তানকে নিয়ে উর্মিলা বামনগ্রামে তার বাপের বাড়ি চলে যায়।

শুক্রবার সকালে উর্মিলা তার পুত্র সন্তান-সহ  দিদি কল্পনাকে নিয়ে স্বামীর বাড়ি কর্নজোড়া কালীবাড়িতে ফিরে আসে। স্বামী রতন বর্মন সেই সময় বাড়িতে ছিলেন না। পাড়া-প্রতিবেশীরা আচমকাই দেখতে পান রতনের বাড়িতে তাদের দেড়মাসের পুত্র সন্তানের নাক মুখ দিয়ে রক্ত বেড়িয়ে মরে পড়ে রয়েছে আর শিশুটির মা উর্মিলা ও মাসি কল্পনা বাড়ি থেকে পালানোর চেষ্টা করছে।

স্থানীয় বাসিন্দাদের সন্দেহ হতেই তারা তাদের দুজনকে ধরে ফেলে। স্থানীয় বাসিন্দা থেকে উর্মিলার স্বামী রতন বর্মনের অভিযোগ বিবাদের জেরে শিশুপুত্রকে বালিশ চাপা দিয়ে খুন করেছে মা ও মাসি। এই ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রধান প্রশান্ত দাস। তিনি খবর দেন কর্নজোড়া পুলিশ ফাঁড়িতে। পুলিশ আসলে স্থানীয় বাসিন্দারা অভিযুক্ত মা উর্মিলা বর্মন ও মাসি কল্পনা বর্মনকে পুলিশের হাতে তুলে দেন। শিশুর মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য রায়গঞ্জ  মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ মর্গে পাঠানোর পাশাপাশি ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: