উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জঙ্গলে এবার ক্যামেরা বসানোর সিদ্ধান্ত বনদফতরের ! কিন্তু কেন ?

এর জন্য প্রয়োজনীয় বাজেটও ঠিক করা হয়েছে ৷

Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Jan 27, 2017 04:38 PM IST
উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জঙ্গলে এবার ক্যামেরা বসানোর সিদ্ধান্ত বনদফতরের ! কিন্তু কেন ?
Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Jan 27, 2017 04:38 PM IST

#দার্জিলিং: উত্তর বঙ্গে প্রথম বাঘের ছবি কয়েকদিন আগেই ধরা পড়ে ন্যাওড়া ভ্যালি ন্যাশনাল পার্কে। এর জেরে উত্তরবঙ্গের অন্যান্য জঙ্গলেও এবার ক্যামেরা বসানোর সিদ্ধান্ত নিল বনদফতর। এর জন্য প্রয়োজনীয় বাজেটও ঠিক করা হয়েছে ৷ রাজ্য বনদফতরে জমা দিচ্ছে নর্থান জোনের সি এফ। তৈরি হচ্ছে "টাইগার স্ট্যাটাস ইন নর্থবেঙ্গল ল্যান্ডস্কেপ ৷ " এই প্রকল্পে ৬০ লক্ষ টাকা ব্যয়ের ভাবনা রাজ্য বন দফতরের। বন কর্মীদের বিশেষ প্রশিক্ষণ দেবে বনদফতর। ফেব্রুয়ারিতেই রাজ্যে আসছেন ন্যাশনাল টাইগার কনজারভেশন অথরিটির প্রতিনিধিরা। উত্তরবঙ্গের ন্যাওড়া ও বক্সা পরিদর্শন করবেন তাঁরা।

জঙ্গলের গভীরে সিসিটিভি বসিয়েও যে কাজটি এতদিন করতে পারেনি বন দফতর, স্মার্টফোনের ক্যামেরা দিয়ে সেই কাজটিই কিছুদিন আগে করে দেখিয়েছিলেন অনমোল ছেত্রী নামের এক ব্যক্তি । উত্তরবঙ্গের নেওড়াভ্যালিতে বাঘের হদিশ দিয়ে এখন কার্যত হিরো পেশায় গাড়িচালক এই যুবক। ইতিমধ্যেই তাঁকে সংবর্ধনা দিয়েছে বন দফতর। অনমোলের ছবিকে হাতিয়ার করেই নেওড়াভ্যালি জাতীয় উদ্যানকে ব্যাঘ্রপ্রকল্প হিসেবে ঘোষণার দাবি তুলেছেন বন দফতরের আধিকারিকরা।

ঠিক কী হয়েছিল সেদিন ? পেডং থেকে গাড়ি নিয়ে লাভার উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিলেন অনমোল ছেত্রী। হঠাৎ তাঁর চোখ যায় পাহাড়ের কোলে একটি বড় পাথরের আড়ালে। গাড়ি থামিয়ে ভাল করে দেখতেই চক্ষু চড়কগাছ। পাথরের পিছনে এ যে ডোরা কাটা আস্ত একটা রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার! প্রায় চার দশক ধরে এই জাতীয় উদ্যানে যার থাকার কথা শুধু শুনে এসেছে বন দফতর, সেই বাঘকেই সাক্ষাৎ সামনে থেকে দেখেন অনমোল। শুধু দেখাই নয়, পকেট থেকে মোবাইল বের করে, বাঘের কয়েকটি ছবিও তুলে রাখেন তিনি। সেই ছবিগুলি তুলে দেন বন দফতরের হাতেও।

১৯৯৭ সালে নেওড়াভ্যালির জঙ্গলে রয়্যাল বেঙ্গল টাইগারের অস্তিত্ব মিলেছিল। পায়ের ছাপ, নখের আচড়, মল দেখে বাঘের অস্তিত্বের টের পায় বন দফতর। শুধু ওটুকুই। সরাসরি বাঘ দেখার সৌভাগ্য মেলেনি। সেই বাঘের ছবি তুলেই এখন কার্যত হিরো অনমোল ছেত্রী।

First published: 04:38:41 PM Jan 27, 2017
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर