বর্ষা আসতেই পরিযায়ী পাখিরা ভিড় জমাতে শুরু করেছে কুলিকে

ফের পরিযায়ীদের গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে এশিয়ার অন্যতম বৃহত্তম পক্ষীনিবাস কুলিক পাখিরালয়ে।

Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Jun 24, 2017 03:16 PM IST
বর্ষা আসতেই পরিযায়ী পাখিরা ভিড় জমাতে শুরু করেছে কুলিকে
Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Jun 24, 2017 03:16 PM IST

#রায়গঞ্জ: ফের পরিযায়ীদের গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে এশিয়ার অন্যতম বৃহত্তম পক্ষীনিবাস কুলিক পাখিরালয়ে। বর্ষা আসতেই শুরু হয়েছে তাদের আনাগোনা। ইতিমধ্যেই প্রায় হাজার হাজার পরিযায়ী অতিথির আগমন ঘটেছে কুলিকে।

ওপেন বিল স্টর্ক, নাইট হেরন, ইগ্রেট-সহ বাংলার নানা ধরনের পাখির আবাসস্থল এই কুলিক। জুনের মাঝ থেকে শুরু হয় এদের আগমন। কুলিকের কুলে জাম, জারুল, অর্জুন গাছে বাসা বাঁধে ওরা। এরপর সঙ্গিনীদের সঙ্গে প্রজনন ক্রিয়ায় লিপ্ত হয়ে ডিম প্রসব থেকে ছানা বড় করার প্রক্রিয়া চলে সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত।

অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর সন্তানদের নিয়ে এদের ভরা সংসার। এরপর নতুন প্রজন্ম ডানা মেলে উড়তে শিখলেই ধীরে ধীরে তারা পাড়ি দেয় অন্য কোনও দেশের উদ্দেশ্যে। এইভাবেই চলে আসছে বছরের পর বছর। পরিযায়ীদের আনাগোনা দেখে বন দফতর কুলিক নদীর পাড়ে দেড় বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে ১৯৮৫ সালে গড়ে তুলেছিলেন সামাজিক বন সৃজন প্রকল্পের মাধ্যমে কুলিক পক্ষীনিবাস। ধীরে ধীরে পাখিদের সংখ্যা বাড়তে থাকায় এশিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম পাখিরালয়ে হয়ে উঠেছিল এই পক্ষীনিবাস।

এরপর দিল্লির বাসিন্দা বিশিষ্ট পরিবেশবিদ তরুন রায় বিগত চার বছরের পরিসংখ্যান ধরে এশিয়া মহাদেশ জুড়ে একটি সমীক্ষা চালিয়েছিলেন ওপেন বিল স্টর্কের প্রজনন এলাকার ওপরে। এরপরই এশিয়ার প্রথম বৃহত্তম পাখিরালয়ের শিরোপা মেলে রায়গঞ্জ কুলিক পক্ষীনিবাসের। প্রতি বছরের মতো এই বছরও কয়েক হাজার পাখির সমাগম হতে চলেছে। বেশ কয়েক হাজার পাখি ইতিমধ্যেই চলে এসেছে কুলিকে। বর্ষাকাল সময়মত চলে আসায় পাখিদের সংখ্যাও এই বছর বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন বন বিভাগ।

First published: 03:15:41 PM Jun 24, 2017
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर