১০৮ যুগলের গণবিবাহ, অনুষ্ঠানের শেষে শুরু হল ব্যাপক ইট বৃষ্টি, মারধর

১০৮ যুগলের গণবিবাহ, অনুষ্ঠানের শেষে শুরু হল ব্যাপক ইট বৃষ্টি, মারধর

ঝাড়খণ্ড দিশম পার্টি অভিযোগ তোলে যাঁদের বিয়ে দেওয়া হচ্ছে তাঁরা অধিকাংশই আদিবাসী সম্প্রদায়ের। প্রলোভন দিয়ে তাঁদের গনবিবাহে নিয়ে আসা হয়েছে।

  • Share this:

Sebak DebSarma

#মালদহ: পুরাতন মালদহের আট মাইল হাটে ২০০-র বেশী পাত্রপাত্রীর বিয়ের অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের ধর্মপ্রসার বিভাগ। এই বিয়ের অনুষ্ঠানেই ধর্মান্তরিতকরণের অভিযোগ তুলে হামলা চালায় আদিবাসী সংগঠন ঝাড়খণ্ড দিশম পার্টি এবং আদিবাসী সিঙ্গেল অভিযান।আচমকা হামলার জেরে গণবিবাহ পণ্ড হওয়ার পরিস্থিতি তৈরি হয়। বিয়ে মণ্ডপে ব্যাপক ভাঙচুর চলে। এরপর অবশ্য পাল্টা প্রতিরোধ গড়ে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। পাল্টা ধাওয়া করা হয় আদিবাসী সংগঠনের আন্দোলনকারিদের। এই পরিস্থিতিতে পুলিশের সামনেই দুই পক্ষের মধ্যে বেঁধে যায় সংঘর্ষ।

একপক্ষ অন্যপক্ষকে লক্ষ্য করে ইট-পাথর ছুঁড়তে থাকে। পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। ইঁটের আঘাতে জখম হন এক পুলিশ কর্মীও। মালদহ থেকে বাড়তি পুলিশ বাহিনী এলাকায় গিয়ে দুই পক্ষকেই সরিয়ে দেয়। পরে অবশ্য পুলিশি পাহারায় তড়িঘড়ি গণবিবাহের বাকি অনুষ্ঠান শেষ করা হয়।

এদিন পুরাতন মালদহের আট মাইল হাট এলাকায় সকাল থেকেই শুরু হয়ে যায় গনবিবাহের অনুষ্ঠান। স্থানীয় হাট চত্বরে বাঁধা হয় বড় প্যাণ্ডেল। বাজনা বাজিয়ে, বিয়ের জল ভরেন কয়েকশো মহিলা। এলাকা জুড়ে শোভাযাত্রা হয়। কিন্তু, ঝাড়খণ্ড দিশম পার্টি অভিযোগ তোলে যাঁদের বিয়ে দেওয়া হচ্ছে তাঁরা অধিকাংশই আদিবাসী সম্প্রদায়ের। প্রলোভন দিয়ে তাঁদের গনবিবাহে নিয়ে আসা হয়েছে। শুধু তাই নয়, আদিবাসীদের প্রকৃত ধর্ম সারনা হলেও তাঁদের হিন্দু ধর্মের আচার মেনে গনবিবাহ দেওয়া হচ্ছে। যা কার্যত ধর্মান্তরকরণের সামিল।

এই অভিযোগ তুলে এদিন বিয়ে বন্ধের দাবিতে প্রথমে ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে আদিবাসীরা। এরপর বিয়ের অনুষ্ঠানে হানা দেন তাঁরা।  যদিও ধর্মান্তকরণের অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। তাঁদের পাল্টা দাবি, দুঃস্থ-দরিদ্র আদিবাসীদের বিয়েতে সহযোগিতা করা হয়েছে। যা সংগঠনের সামাজিক কাজ।

First published: February 2, 2020, 7:15 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर