corona virus btn
corona virus btn
Loading

মাথাব্যথা মালদহ, গোষ্ঠাীদ্বন্দ্বের অসুখ সারাতে মমতার কড়া দাওয়াই

মাথাব্যথা মালদহ, গোষ্ঠাীদ্বন্দ্বের অসুখ সারাতে মমতার কড়া দাওয়াই

পুরসভা ও বিধানসবা ভোটের আগে এই অসুখ সারাতে কড়া দাওয়াই দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

  • Share this:

মালদহ: মাথাব্যথা মালদহ। গোষ্ঠাীদ্বন্দ্বের অসুখ সারাতে, মালদহে গিয়ে কড়া দাওয়াই তৃণমূলনেত্রীর। মালদহে তৃণমূলের কাঁটা গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। পুরসভা ও বিধানসবা ভোটের আগে এই অসুখ সারাতে কড়া দাওয়াই দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবার, ছোট সুজাপুরের সভা থেকে ধমক দিলেন জেলার নেতাদের। মালদহ যে কতটা মাথাব্যথা, তা সোমবারই স্পষ্ট হয়। সে দিন নেতাজি ইন্ডোরের সভা থেকেও মালদহের নেতাদের সতর্ক করে দেন মমতা। এরপর তিনি কি বার্তা দেন সেদিকে নজর ছিল রাজনৈতিক মহলের। এদিন নিজের বক্তব্যের শুরুতেই মালদহে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নিয়ে একের পর এক নেতাকে ধমক দেন মুখ্যমন্ত্রী। মালদহে দলের অনেক খবরই যে তাঁর কাছে রয়েছে তা এদিন নিজের বক্তব্যে স্পষ্ট করে দেন তৃণমূল নেত্রী।

২০১৬ সালে, মালদহ থেকেই বিধানসভা ভোটের প্রচার শুরু করেন মমতা। সেবার তৃণমূল রাজ্যে দুশো পার করলেও, মালদহে কিন্তু খাতা খুলতে পারেনি। ১২টি বিধানসভা কেন্দ্রের একটিও তৃণমূল জিততে পারেনি। ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটেও জেলার দুটি কেন্দ্রেই তৃণমূল হারে। ইংরেজবাজার ও মালদহ পুরসভার বেশিরভাগ ওয়ার্ডেই লিড পায় বিজেপি। এই ছবিটা পালটাতে চান মমতা। গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বন্ধে তাই, এ দিন একাধিক নির্দেশ দেন। ইংরেজবাজার ও মালদহ পুরসভা এবং বারোটি বিধানসভা কেন্দ্রের দায়িত্ব স্থানীয় নেতাদের মধ্যে ভাগ করে দেন। তবে পর্যবেক্ষকদের অনেকের প্রশ্ন, এতে কি কাজ হবে। কারণ, মালদহে তো তৃণমূলের সেরকম মুখই নেই। শুভেন্দু অধিকারী দায়িত্ব পেয়ে মুর্শিদাবাদে জমি দখল করলেও মালদহে তিনি ব্যর্থ। মমতা তখন দায়িত্ব দেন মৌসম বেনজির নূরকে। কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়ে মৌসম গত লোকসভা ভোটে দাঁড়ান। কিন্তু, হেরে যান। গনি আবেগ, সংখ্যালঘু মুখ, কোনও ফ্যাক্টরই কাজ করেনি। সূত্রের খবর, এখনও জেলা তৃণমূল নেতৃত্বের অনেকেই মৌসমের পাশে নেই। তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের এই ছবি বারবারই প্রকট হয়। এখনও মালদহে তৃণমূলের নির্দিষ্ট কোনও জেলা অফিসই নেই। যিনি জেলা সভাপতি হন তিনি তাঁর অফিস থেকে দল চালান। অভিযোগ, তৃণমূল জেলা নেতৃত্বের অনেকেই নিজেদের আখের গোছাতে ব্যস্ত। অনেকের আবার সাধারণ মানুষের সঙ্গে সেরকম যোগাযোগই নেই। মুখ্যমন্ত্রী এদিন যেভাবে প্রকাশ্যে মঞ্চে জেলার নেতাদের তুলোধোনা করে ছেড়েছেন তা নিয়ে শাসক দলের অন্দরে চর্চা শুরু হয়েছে। তবে মুখ্যমন্ত্রীর  করা  দাওয়াইয়ের পরও জেলা নেতারা একজোট হয়ে কাজ করেন কিনা এখন তাই দেখার।

Sebak DebSarma

Published by: Ananya Chakraborty
First published: March 4, 2020, 11:10 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर