"নন্দীগ্রামে জিতব, প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ প্রয়োজন নেই", মুষলপর্ব শেষে উত্তরে ভারমুক্ত মমতা

"নন্দীগ্রামে জিতব, প্রধানমন্ত্রীর পরামর্শ প্রয়োজন নেই", মুষলপর্ব শেষে উত্তরে ভারমুক্ত মমতা

দিনহাটার জনসভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ছবি ফেসবুক থেকে নেওয়া।

আত্মবিশ্বাসী মমতা বললেন, "আমিই নন্দীগ্রামে জিতব। কিন্তু শুধু আমি জিতলেই হবে না, ২০০-র বেশি আসনে জিততে হবে।"

  • Share this:

    #দিনহাটা: নন্দীগ্রামের ভোট শেষ হতেই পরবর্তী দফার প্রচারে নেমে পড়লেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার ডেস্টিনেশান উত্তরবঙ্গ। নজরে ৫৪ আসন। দিনহাটায় তাঁর প্রথম সভায় ভোটপ্রার্থনার সঙ্গে সঙ্গে অবশ্য নন্দীগ্রাম প্রসঙ্গও এল বারংবার। আত্মবিশ্বাসী মমতা বললেন, "আমিই নন্দীগ্রামে জিতব। কিন্তু শুধু আমি জিতলেই হবে না, ২০০-র বেশি আসনে জিততে হবে।"

    গতকালই (বৃহস্পতিবার) নরমেগরমে মিটেছে নন্দীগ্রামের ভোট। জয় নিশ্চিত মানলেও মমতা ভোট পরিচালনার সামগ্রিক পদ্ধতিতে খুশি নন একথা বুঝিয়ে দিলেন এদিনও।তাঁর কথায়, বিনম্র শ্রদ্ধা নিয়েই বলছি এই ভোট নির্বাচন কমিশন নয়, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পরিচালনা করছে।

    নন্দীগ্রামে ভোটের আগের দিন রাতে তাণ্ডব হয়েছে বলে এদিনও অভিযোগ করেন মমতা। মমতা বলেন, "সারারাত ওরা তাণ্ডব করেছে আবু তাহের, আব্দুর সামাদের বাড়ি গিয়ে।" পাশাপাশি এই ধরনের অপরাধে জড়িত দুষ্কৃতীদের জন্য তাঁর কড়া বার্তা, "নির্বাচন পর্যন্ত সহ্য করব, তারপর দেখব গুণ্ডাগুলি কোথায় যায়। অমিত শাহ কোথা থেকে বাাঁচাবে।" মমতার অভিযোগ সিআরপিএফ জওয়নরাও কেন্দ্রের অঙ্গুলিহেলনে এই ধরনের নাশকতায় জড়িয়ে পড়ছে। সনির্বন্ধ অনুরোধ করে বললেন, বিএসএফ, সিআরপিএফকে আমার অনুরোধ এমনটা যেন ওরা না করে।

    উত্তরের মাটি কঠিন ঠাঁই। গত লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি এখানে এগিয়ে ছিল অন্তত ৩৭টি আসনে। শুধুমাত্র মুখ রেখেছিল চোপড়া, রাজগঞ্জের মতো কয়েকটি ব্যাতিক্রমী বিধানসভা কেন্দ্র। লোকসভার সিটের নিরিখে দেখলে আটটির মধ্যে সাতটি আসনই পেয়েছিল বিজেপি, কংগ্রেস পেয়েছিল একটি । তৃণমূলের চ্যালেঞ্জ আপাতত তাই জমি পুনরুদ্ধার। উত্তরবঙ্গ, জঙ্গলমহলের মতো হারানো জায়গাগুলিতে জমি কামড়ে থেকে শেষবেলায় যতটা সম্ভব ডিভিডেন্ট তুলতে চাইছে তৃণমূল। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ও দিন কতক আগে গোটা উত্তর চষে গিয়েছেন, মমতাও নির্বাচনের সময়ে এই নিয়ে এলেন দ্বিতীয় বার, লক্ষ্য একটাই যত বেশি আসন সংগ্রহ করা যায়। এই অবস্থায় মমতা আরও একবার মনে করিয়ে দিতে চাইলেন, ২৯৪ টি কেন্দ্রেই তিনিই প্রার্থী। মনে করালেন, সদ্য পিপিএফ ও অন্যান্য খাতে সুদ কমিয়েও রাতারাতি ঘোষণা বদলের বিষয়টি। এল পেট্রোপণ্যের দামও। উপস্থিত জনতাকে উজ্জীবীত করতে মমতা বললেন, "বাংলায় আমি একা, আমার বিরুদ্ধে লড়ার জন্য হাজারটা হেলিকপ্টার, হাজারটা নেতা নিয়ে এসেছে। দিনহাটার মানুষ প্রতিবাদ করুন। আমি একপায়ে চলে আসছি।"

    প্রসঙ্গত গতকালই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি একটি জনসভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে টিপ্পনীর সুরে অন্য কোনও কেন্দ্র থেকে লড়ার পরামর্শ দেন। মমতা আজ উত্তর ফিরিয়ে বললেন, "আমি নন্দীগ্রাম থেকেই জিতব আপনাদের মুখে চুনকালি দেবো। আপনার পরামর্শ নেবো না।"

    আত্মবিশ্বাস উপচে পড়ল, উপস্থিত কর্মী সমর্থকরা করতালিও দিলেন, এখন দেখার মমতার ভোকাল টনিক লোকাল ইভিএম-এ কতটা প্রতিফলিত হয়।

    Published by:Arka Deb
    First published: