দেশ-ধর্ম সব বেচে দেবে ওরা, বাজেট বিশ্লেষণ করে গেরুয়া শিবিরকে তোপ মমতার

দেশ-ধর্ম সব বেচে দেবে ওরা, বাজেট বিশ্লেষণ করে গেরুয়া শিবিরকে তোপ মমতার

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল চিত্র।

মমতা আগেই একে কটাক্ষ করে বলেছিলেন, ভেকধারী সরকারের ফেকধারী বাজেট। আজও সেই মেজাজটাই ধরে রাখলেন তিনি।

  • Share this:

    #আলিপুরদুয়ার: কেন্দ্রীয় বাজেট নিয়ে আগই উষ্মা প্রকাশ করেছিল তৃণমূল। আজ আলিপুরদুয়ারের কর্মীসভায় ক্ষোভ উগরে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও।  গেরুয়া শিবিরকে আক্রমণ শানিয়ে তৃণমূলসুপ্রিমোর  উবাচ, "দেশ, ধর্ম, সব বেচে দেবে ওরা।"

    এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রথম থেকেই ছিলেন রণং দেহি মেজাজে। তিনি বলেন, "রেল, বিএসএনএল সব বেসরকারিকরণ করে দিচ্ছে। জ্বালানির দাম বাড়ছে। কৃষকরা মরছে। আর ওনার সময় নেই।"  রাজনৈতিক মহলের ব্যখ্যা কৃষি আন্দোলন নিয়ে নরেন্দ্র মোদির নীরবতাকেই কটাক্ষ করেন মমতা।

    কেন্দ্রীয় বাজেটে  কলকাতা-শিলিগুড়ি সড়ক নির্মাণের জন্য ব্যয় বরাদ্দ হয়েছে। মমতা আগেই  একে কটাক্ষ করে বলেছিলেন, ভেকধারী সরকারের ফেকধারী বাজেট। আজও সেই মেজাজটাই ধরে রাখলেন তিনি। পরিসংখ্যান তুলে এনে বললেন," বাংলায় ৮৫ হাজার কিমি রাস্তা করেছি। এখন বলছে ৬৫০ কিমি রাস্তা করবে। আপনি আসুন একটু হাঁটি হাঁটি পা পা করে যান।"

    এদিন কথার ফাঁকে ফাঁকে নতুন নতুন স্লোগান তুলছিলেন মমতা। বলছিলেন, জনগণ বিদায় দিন,জনগণ বিদায় দিন, বিদায় দিন, বিজেপিকে বিদায় দিন। কখনও আবার বলছিলেন, ফিরিয়ে দাও, ফিরিয়ে দাও, আমার দেশ ফিরিয়ে দাও। জনতার মন বুঝতে পারদর্শী জননেত্রী একটু থেমেই আবার ফিরে যাচ্ছিলেন নানা রাজনৈতিক প্রসঙ্গে। তিনি বলেন, এন আর সি নাম করে আসামে কি করল দেখুন। এখানে আমি করতে দেব না। পাশাপাশি মমতার এদিনের বার্তা, আমার কাছে বাঙালি-অবাঙালির ফারাক নেই।বাংলাকে শাসন গুজরাট করবে না।" পেট্রোল-ডিজেলে সেস, কেরোসিনের ভর্তুকি তোলা নিয়েও সরব হন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

    তৃণমূলের তরফে আগেই বাজেট নিয়ে ক্ষোভ উগরে দেওয়া হয়েছিল। ঘাসফুল শিবির বলেছিল এই বাজেটে  ধনীরা আরও ধনী, মধ্যবিত্তের জন্য কিছুই নেই, দরিদ্ররা আরও দরিদ্র হবে। কলকাতা- শিলিগুড়ি সড়ক প্রসঙ্গে তৃণমূল একটি পরিসংখ্যান তুলে ধরে। দেখানো হয় গ্রামীণ সড়ক উন্নয়নের নিরিখে ২০১১ সালে ৩৯,৭০৫ কিমি গ্রামীণ রাস্তা ছিল। ২০১১-২০২০ সালের মধ্যে ৮৮,৮৪১ কিমি গ্রামীণ রাস্তা তৈরি হয়েছে। গ্রামীণ রাস্তায় বাংলা এক নম্বরে। তৃণমূল মনে করছে এই বাজেট  যুক্তরাষ্ট্রিয় পরিকাঠামোর ওপর আবার আঘাত। রাজ্যগুলি থেকে রাজস্ব ছিনতাই করে নেওয়া হচ্ছে এই বাজেটে।

    Published by:Arka Deb
    First published:

    লেটেস্ট খবর