মোদিকে পাকা বাড়ি দিতে চান মমতা! কিন্তু কেন?

মোদিকে পাকা বাড়ি দিতে চান মমতা! কিন্তু কেন?

বললেন, 'গোটা দেশে এখন একটাই সিন্ডিকেট, মোদী-শাহ সিন্ডিকেট।'

বললেন, 'গোটা দেশে এখন একটাই সিন্ডিকেট, মোদী-শাহ সিন্ডিকেট।'

  • Share this:

    #কলকাতা: ব্রিগেডের মঞ্চে যখন প্রবেশ করছেন নরেন্দ্র মোদি, তখন শিলিগুড়ির দার্জিলিং মোড় থেকে পদযাত্রা শুরু করে দিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর কলকাতায় মোদির বক্তব্যের মাঝের সময়ই শিলিগুড়ির সভামঞ্চে উঠে রীতিমতো তোপ দাগতে শুরু করলেন মমতা। বললেন, 'গোটা দেশে এখন একটাই সিন্ডিকেট, মোদী-শাহ সিন্ডিকেট।' ব্রিগেডের সমাবেশে যখন সকলের জন্য পাকা বাড়ির প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী, তখন মমতা কটাক্ষের সুরে বলছেন, 'এটা তো আমরা বাজেটেই বলে দিয়েছি। এখন তুমি বলছ। তোমার দরকার একটা? তোমায় একটা পাকা বাড়ি বানিয়ে দেব। এখানে আসবে, ওখানে থেকে মিটিং করবে।' সঙ্গে জুড়ে দিয়েছেন, 'নির্বাচনের আগে উজ্জ্বলা, আর নির্বাচনের পরে জুমলা।' যে ইস্যুতে এদিন শিলিগুড়ির পথে নেমেছিলেন মমতা, সেই গ্যাসের দামবৃদ্ধির প্রসঙ্গ উল্লেখ করেও দাবি তোলেন, 'সারা দেশের মানুষকে বিনামূল্যে গ্যাস দিতে হবে। এমন এক প্রধানমন্ত্রী যিনি শুধুই মিথ্যা কথা বলেন।' প্রশ্ন করেছেন, 'প্রচারের আগে জবাব দিন কেন সিলিন্ডারের দাম ৯০০ টাকা হল!'

    বাংলায় আজ আক্ষরিক অর্থেই ছিল সুপার সানডে। কলকাতায় মোদি, আর উত্তরে দিদি'র কর্মসূচিতে গমগম করছে বাংলার ভোট বাজার। এদিন রীতিমতো ক্ষুব্ধ মেজাজে ছিলেন মমতা। ব্রিগেডে নরেন্দ্র মোদি যখন মিঠুন চক্রবর্তীকে দেখিয়ে 'বাঙালির ঘরের ছেলে বলছেন, তখন শিলিগুড়িতে 'ঘরের মেয়ে' বলছেন, 'বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভেঙে, স্বামী বিবেকানন্দকে ঠাকুর পদবি দিয়ে বাংলার ঐতিহ্যকে বোঝা যায় না। আমরা এই বাংলায় সকলকে একসঙ্গে নিয়ে চলি। হিন্দু-মুসলিম-খ্রিস্টান কারও মধ্যে কোনও বিভেদ নেই বাংলায়। রোজ প্রধানমন্ত্রী মিথ্যে কথা বলে যাচ্ছেন।'

    তৃণমূলের 'খেলা হবে' স্লোগান নিয়ে ব্রিগেডে কটাক্ষের বন্যা বইয়ে দিচ্ছেন মোদি, সেখানে ফের মমতা শিলিগুড়িতে গর্জে উঠে মমতা বলেছেন, 'মিথ্যে কথা আর কত বলবে! ক্ষমতা থাকলে আমার সামনাসামনি তর্কে বসো। বলো কবে বসবে? দেখা হবে, খেলা হবে, বিজেপির বিদায় হবে।' রীতিমতো আত্মবিশ্বাসের সুরে বলেছেন, 'বাংলায় পরিবর্তন হবে না। দিল্লিতে পরিবর্তন হবে।' যে 'তোলাবাজি' ইস্যুতে প্রতিদিন তৃণমূলকে আক্রমণ করে চলেছেন বিজেপি নেতারা, তখন মমতা এদিন বলেন, 'তোলাবাজ সবচেয়ে বড় উনিই। রেল, সেল, এয়ার ইন্ডিয়া বিক্রি করলে কত তোলাবাজি হয়! দেশে এখন একটাই সিন্ডিকেট চলছে, মোদী, অমিত শাহ সিন্ডিকেড!'

    রাজনৈতিক মহলের মতে, নবান্ন দখলে বদ্ধপরিকর বিজেপি এখন নরেন্দ্র মোদিকেই মুখ করে এগোতে চাইছে। এর মধ্যেই মিঠুন চক্রবর্তীকে দলে টেনে অমিত শাহরা রীতিমতো চমক দিয়েছেন। কিন্তু মমতা এখন এইসব বিষয়ে গুরুত্ব দিতে চাইবেন না এখন। আপাতত তিনিই নিজেকে মুখ বলে প্রচার চালাবেন রাজ্যজুড়ে। আর দিনদিন যে আক্রমণের ঝাঁঝ আরও বাড়াবেন তিনি, তা বলাই বাহুল্য।

    Published by:Suman Biswas
    First published: