• Home
  • »
  • News
  • »
  • north-bengal
  • »
  • ভাঙন মালদহেও, শাহের সভায় বিজেপিতে গেলেন গাজোলের বিধায়ক দিপালী বিশ্বাস

ভাঙন মালদহেও, শাহের সভায় বিজেপিতে গেলেন গাজোলের বিধায়ক দিপালী বিশ্বাস

উল্লেখ্য, দিপালী বিশ্বাসের স্বামী রঞ্জিত বিশ্বাস শুক্রবারে তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে ইস্তফা দেন।

উল্লেখ্য, দিপালী বিশ্বাসের স্বামী রঞ্জিত বিশ্বাস শুক্রবারে তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে ইস্তফা দেন।

উল্লেখ্য, দিপালী বিশ্বাসের স্বামী রঞ্জিত বিশ্বাস শুক্রবারে তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে ইস্তফা দেন।

  • Share this:

Sebak DebSarma

#মালদহ: মালদহে তৃণমূলে ভাঙন। দল ছাড়লেন গাজোলের বিধায়ক দিপালী বিশ্বাস। অনেক প্রতিশ্রুতি দিয়ে দলে নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু প্রতিশ্রুতি রাখেনি দল, বরং বিশ্বাসঘাতকতা করেছে। অভিযোগ তুলেছেন গাজলের বিধায়ক দিপালী। ২০১৬ সালে সিপিএম- কংগ্রেস জোটের সমর্থনে সিপিএম প্রার্থী হিসেবে গাজোল বিধানসভায় জেতেন দিপালী বিশ্বাস। এর কয়েক মাসের মধ্যেই ২১ জুলাই সভামঞ্চে দিপালী বিশ্বাস তৃণমূলে যোগ দেন।

২০১৬ বিধানসভার পর মালদহের প্রথম বিধায়ক হিসেবে দলবদল করে তৃণমূলে যোগ দিয়েছিলেন দিপালী। এরপর বেশ কিছুদিন তিনি গাজলের ব্লক তৃণমূল সভাপতির পদ সামলেছেন। দলত্যাগের আগে পর্যন্ত বিধায়কের পাশাপাশি তৃণমূলের গাজোল ব্লকের কো-অর্ডিনেটর ছিলেন দিপালী। মেদিনীপুরে অমিত শাহের সভামঞ্চে যোগ দিতে যাওয়ার পথে দিপালী বলেন, ২০১৬-তে যখন সিপিএম ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়েছিলাম তখন অনেক প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু, উন্নয়ন হয়নি বরং সভাপতির পদ কেড়ে নিয়ে অপমান করেছে। দলে অসম্মানিত হয়েছি। তাই তৃণমূলের থেকে আর কাজ করতে চাই না। শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে কথা হয়েছে। উল্লেখ্য, দিপালী বিশ্বাসের স্বামী রঞ্জিত বিশ্বাস শুক্রবারে তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে ইস্তফা দেন।

একসময় গাজলের দাপুটে সিপিএম নেতা রঞ্জিত বিশ্বাস দিপালীদেবীর সঙ্গেই তৃণমূলে যোগ দিয়েছিলেন। এরপর থেকে গাজোল তৃণমূল সংগঠনের রাশ ছিল রঞ্জিত বিশ্বাসের হাতেই। শুক্রবার দলের জেলা সভাপতি মৌসম বেনজির নুরকে হোয়াটসঅ্যাপে নিজের পদত্যাগপত্র পাঠান রঞ্জিত। সেই সময়েই দিপালী বিশ্বাসের দলত্যাগের বিষয়টি কার্যত পরিস্কার হয়ে গিয়েছিল। যদিও দিপালী বিশ্বাসের দলত্যাগকে আমল দিতে নারাজ জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব। মালদহের তৃণমূল সভাপতি মৌসম বেনজির নূর বলেন, দিপালী দেবীকে যথেষ্ট কাজ করার সুযোগ দেওয়া হয়েছিল। এখন দল বদলানোর জন্য অনেক কথাই বলছেন। যিনি দল ছেড়েছেন তাঁর সম্পর্কে বিশেষ কিছু বলতে চাইনা। দীপালির  দল ছাড়াই তৃণমূলের কোন ক্ষতি হবে না।

Published by:Simli Raha
First published: