corona virus btn
corona virus btn
Loading

লাভ বাড়াতে মারাত্মক ক্ষতিকর রাসায়নিক ব্যবহার হচ্ছে আমে, বলছেন মালদহের আম ব্যবসায়ীরাই

লাভ বাড়াতে মারাত্মক ক্ষতিকর রাসায়নিক ব্যবহার হচ্ছে আমে, বলছেন মালদহের আম ব্যবসায়ীরাই
photo source: collected
  • Share this:

#মালদহ: 'আর দিন ২০ বাদে এলেই আম খেতে পারতেন৷' হাসতে হাসতে বললেন মালদহ বাজার সমিতির সভাপতি কমল সরকার৷ মালদহের আম চেখে দেখার সুযোগটা হল না৷ কিন্তু বাঙালির অতিপ্রিয় এই অমৃতসম ফলটি নিয়ে যা শুনলাম, তাতে আম খেতে গিয়ে একটু হলেও ভাবতে হতেই পারে৷ সৌজন্যে একটি মারাত্মক রাসায়নিক৷

বাজার সভাপতি সাফ জানালেন, এ বছর আমের ফলন ভালো হয়নি৷ গতবারের চেয়ে ৫০ শতাংশ কম৷ তাই আম বাগানের মালিকরা আম তাড়াতাড়ি পাকাতে ও অধিক লাভ করতে, দেদার সালফার ব্যবহার করছেন৷ কমল সরকারের কথায়,

'কার্বাইড বাংলাদেশে নিষিদ্ধ৷ আম তাড়াতাড়ি পাকিয়ে রফতানি করতে সালফার ব্যবহার দেদার বাড়িয়ে দিচ্ছেন আম বাগানের মালিকরা৷'

সালফারে কী হয়? বাজার সমিতির সভাপতির কথায়, 'দেখুন, সালফার শরীরের জন্য ক্ষতিকারক৷ সালফারে পাকানো আম ২ থেকে ৩ দিনের বেশি ভালো থাকে না৷ নরম হয়ে যায়৷ রাজ্য তো বটেই, অন্যান্য জায়গাতেও ওই আমই রফতানি করা হবে৷ এতে চাষিদের লাভ নেই৷'

প্রশাসনকে জানিয়েছেন বিষয়টি? অন্যমনস্ক হয়ে উনি বললেন,

'জানিয়ে কোনও লাভ হয় না৷ কেউ খোঁজ নিতে আসে না৷ নেতারা তো নয়ই৷ মালদহে ১৫ রকমের আম পাওয়া যায়৷ গোটা বিশ্বে সেই আম রফতানি হয়৷ অথচ, প্রশাসনের কোনও নজরই নেই৷'

মালদহে সবচেয়ে সুস্বাদু ও বিখ্যাত হল হিমসাগর ও ল্যাংড়া আম৷ এই আম ভারতের মধ্যে সবচেয়ে বেশি রফতানি হয় বিহারে৷ মালদহে আমের গুণগত মানে এগিয়ে কোতুয়ালি৷ বাজারের ব্যবসায়ীদের কথায়, 'প্রশাসন একটু নজর দিক৷ নেতারা ভোট চাইতে আসেন৷ কিন্তু মালদহের এই বিখ্যাত ফলটির ব্যবসা নিয়ে কেউ কিছু জিগ্গেস করেন না৷ বলেও লাভ হয় না৷'

মালদহ থেকে অরিন্দম গুপ্ত

First published: April 20, 2019, 10:56 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर