corona virus btn
corona virus btn
Loading

মালদহ ‘সমবায়িকা’-তে কোটি কোটি টাকা লোপাট ! অনলাইন প্রতারনায় যুক্ত সংস্থারই কর্মী

মালদহ ‘সমবায়িকা’-তে কোটি কোটি টাকা লোপাট ! অনলাইন প্রতারনায় যুক্ত সংস্থারই কর্মী

গত আর্থিক বছরে এই সংস্থার কারবার হয় ৪৩ কোট টাকা। চলতি আর্থিক বছরেও সংস্থার লেনদেন ইতিমধ্যে চল্লিশ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। কিন্তু, এই নামী সংস্থায় এবার কোটি কোটি টাকা উধাও হওয়ার ঘটনা ধরা পড়ল।

  • Share this:

#মালদহ: রাজ্য সমবায় দফতরের অধীনস্থ সংস্থা মালদহ ‘সমবায়িকা’-তে কোটি কোটি টাকা লোপাটের ঘটনা প্রকাশ্যে এল। গত কয়েক বছর ধরে  সমবায়িকার অ্যাকাউন্ট থেকে ধাপে ধাপে কোটি টাকারও বেশি গায়েব হয়ে গিয়েছে। সংস্থার অ্যাকাউন্ট থেকে নিজের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্টে টাকা সরানোর ঘটনায় গ্রেফতার করা হয় স্টেশনারী ইনচার্জকে। তদন্তে নেমেছে মালদহের ইংরেজবাজার থানা। সংস্থার আরও রাঘব বোয়াল ধরা পড়ার সম্ভাবনা তাই প্রবল।

রাজ্য সমবায় দফতরের বিচারে রাজ্যে অন্যতম সেরা সমবায় সংস্থা মালদহ সমবায়িকা। মালদহ শহরে একটা বড় অংশের মানুষের দৈনন্দিন নানা সামগ্রীর চাহিদা  মেটায় সমবায়িকা। গত আর্থিক বছরে এই সংস্থার কারবার হয় ৪৩ কোট টাকা। চলতি আর্থিক বছরেও সংস্থার লেনদেন ইতিমধ্যে চল্লিশ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। কিন্তু, এই নামী সংস্থায় এবার কোটি কোটি টাকা উধাও হওয়ার ঘটনা ধরা পড়ল।

বিভাগীয় তদন্তে আর্থিক দুর্নীতি ধরা পড়ায় ইংরেজবাজার থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন মালদহের সমবায় সমিতি সমূহের সহকারি নিবন্ধক এবং সংস্থার কার্যনির্বাহী আধিকারিক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেফতার করা হয়েছে সমবায়িকার পদস্থ কর্মী কল্যানব্রত ঘোষকে। ধৃত ব্যক্তি সমবায়িকার অনলাইন আর্থিক লেনদেন দেখভাল করতেন।

3210_5e19d64682f00_11_01_20_MALDA_COOPERATIVE_CORRUPTION_PIC_5

সংস্থার ব্যাঙ্কের অনলাইন আই,ডি এবং পাসওয়ার্ড ব্যবহার করে নিজের সেভিংস অ্যাকাউন্টে তিনি প্রায়ই টাকা সরাতেন বলে ধরা পড়েছে। ওই টাকার বেশিরভাগ  অংশ এরপর ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট থেকে তুলেও নেওয়া হয়েছে। ওই টাকার ভাগ আরও অনেকে পেয়েছেন বলে অনুমান সমবায় আধিকারিকদের। এর জন্যই এফআইআর করে পুলিশী সাহায্য চাওয়া হয়েছে।

কিভাবে ধরা পড়ল এতবড় দূর্নীতি ? সমবায়ের ভারপ্রাপ্ত আধিকারিক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, মালদহের এই নামী সরকারি সংস্থায় গত কয়েক বছর ধরেই ব্যবসার তুলনায় লাভ হচ্ছিল অনেক কম। এর থেকেই প্রথম সন্দেহ দানা বাঁধে। শুরু হয় গোপনে তদন্তের কাজ। কিন্তু, কোটি কোটি টাকা লোপাট হয়ে গেলেও কেন এতদিন তা টের পাননি সংস্থার দায়িত্বে থাকা ম্যানেজার বা অ্যাকাউনট্যান্ট। তা নিয়ে দানা বেঁধেছে প্রশ্ন।

সমবায়িকার সরকার নিযুক্ত স্পেশাল অফিসার অম্লান ভাদুড়ি দাবি করেছেন লোপাট হওয়া টাকার ভাগ অনেকেই পেয়েছেন। তাঁর দাবি, সব মিলিয়ে দূর্নীতির পরিমান তিন থেকে চার কোটি টাকা। মালদহ শহরের পরিচিত ও নামী সংস্থা সমবায়িকায় এমন ঘটনা নজরে আসতেই হৈচৈ পড়েছে। ধৃতকে জিঞ্জাসাবাদের জন্য হেফাজতে নিয়েছে  পুলিশ।

Sebak Deb Sharma

First published: January 11, 2020, 8:24 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर