Home /News /north-bengal /
Malda: ব্লক অফিসে শূকরছানা ছেড়ে দিয়ে তুমুল বিক্ষোভ মহিলাদের! এলাকায় তুমুল চাঞ্চল্য

Malda: ব্লক অফিসে শূকরছানা ছেড়ে দিয়ে তুমুল বিক্ষোভ মহিলাদের! এলাকায় তুমুল চাঞ্চল্য

Malda : আদিবাসীদের শূকরছানা বিলির প্রকল্পে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ পুরাতন মালদহে।

  • Share this:

#মালদহ: আদিবাসী মহিলা স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলিকে শূকরছানা বিলির প্রকল্পে বড় সড় দুর্নীতির অভিযোগ মালদহে। পুরাতন মালদহ ব্লক অফিসে শূকর ছানা ছেড়ে দিয়ে তুমুল বিক্ষোভ আদিবাসী মহিলাদের। ব্লক অফিসের কর্মীদের সঙ্গে বচসা, তর্কাতর্কি উপভোক্তা মহিলাদের। ব্লক অফিসের কর্মীদের হেনস্থারও অভিযোগ। এলাকায় গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা পুলিশের। পুরাতন মালদহের বিডিও তথা ব্লক প্রশাসনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে সরব খোদ পঞ্চায়েত সমিতির তৃণমূল সভাপতিও। যদিও দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে মুখ খুলতে নারাজ বিডিও।

ব্লক অফিসে গিয়ে প্রকল্পে পাওয়া শূকরছানাগুলি ফেলে দেওয়ার ঘটনায় হুলস্থুল পরিস্থিতি তৈরি হয় সরকারি দফতরে। রাজ্য সরকার প্রায় সাড়ে ১২ হাজার টাকা করে বরাদ্দ করলেও অসুস্থ শূকরছানা বিলি করা হয়েছে বলে দাবি উপভোক্তাদের।

আদিবাসী স্বনির্ভর মহিলা গোষ্ঠীকে আর্থিকভাবে স্বনির্ভর করতে পালনের জন্য শূকর ছানা দেওয়ার প্রকল্প নেওয়া হয়েছে পুরাতন মালদহে। চলতি সপ্তাহেই শতাধিক উপভোক্তাকে এই প্রকল্পে শূকরছানা বিলি করে ব্লক প্রশাসন। বিক্ষোভকারীদের দাবি, শূকরছানা বাবদ তাঁদের জন্য সাড়ে ১২ হাজার টাকা করে বরাদ্দ ছিল। কিন্তু, ব্লক প্রশাসন থেকে অসুস্থ ও নিম্নমানের শূকর ছানা কিনে আদিবাসী মহিলাদের বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা হয়।

উপভোক্তাদের আরও দাবি, বিডিও-র উপস্থিতিতে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ব্লক প্রশাসন ভাবুক গ্রাম পঞ্চায়েতের বিভিন্ন এলাকায় শূকরছানা বিলি করে। কিন্তু, এই শূকরছানা অত্যন্ত নিম্নমানের। শুধু তাই নয়, এরমধ্যে একাধিক শূকরছানা অসুস্থ এবং অচল। কয়েকটি শূকরছানা ইতিমধ্যে মারাও গিয়েছে। এদিন পঞ্চায়েতের বেশকিছু আদিবাসী মহিলা শূকর ছানাগুলিকে গাড়িতে চাপিয়ে নিয়ে আসেন পুরাতন মালদা ব্লক অফিসে। ব্লক প্রশাসনের কাছে তাঁরা শূকরছানা গুলি ফেরত দিতে যান।

কিন্তু, আন্দোলনকারীদের দাবি, তাদের আসার খবর পেয়ে বিডিও অফিসের মূল দরজা বন্ধ করে দেওয়া হয়। এরপর পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। বস্তা ভরে শূকরছানা নিয়ে ব্লক অফিস চত্বরে ছেড়ে দেন আদিবাসী মহিলারা। বাঁধা দিতে গেলে ব্লক অফিসের সরকারি কর্মীদের সঙ্গে তাঁদের শুরু হয় বচসা ও তর্কাতর্কি। তবে শুধু উপভোক্তা মহিলারাই নয়, পুরাতন মালদহে শূকরছানা বিলির প্রকল্পে দুর্নীতির অভিযোগ তুলেছেন খোদ পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মৃণালিনী মণ্ডল মাইতি। সভাপতির অভিযোগের তির পুরাতন মালদহের বিডিও-র বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন- গেমে আসক্ত ছেলের থেকে মোবাইল কেড়ে নেন বাবা! সাংঘাতিক পদক্ষেপ নবম শ্রেণির ছাত্রের

ঘটনার তদন্ত দাবি করেন তৃণমূল পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি। তদন্তের দাবিতে সরব হন ব্লক অফিসে বিক্ষোভ দেখাতে আসা উপভোক্তারাও। আদিবাসী মহিলারা নগদ টাকা দাবি করছিলেন। কিন্তু, সেই টাকা না দিয়ে শূকরছানা দেওয়া হয়েছে। এই কারণেই বিক্ষোভ, এমনই পাল্টা দাবি ব্লক প্রশাসনের। যদিও এনিয়ে সংবাদমাধ্যমে কোনও মন্তব্য করতে চাননি বিডিও ।

সেবক দেবশর্মা

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published:

Tags: Malda

পরবর্তী খবর