corona virus btn
corona virus btn
Loading

হেমতাবাদের বিধায়কের রহস্য মৃত্যুতে মালদহ-যোগ, আটক এক অভিযুক্ত

হেমতাবাদের বিধায়কের রহস্য মৃত্যুতে মালদহ-যোগ, আটক এক অভিযুক্ত
পুলিশের সঙ্গে মালদহের এক অভিযুক্ত।

বিধায়কের সুইসাইড নোট এবং মৃত্যুর পর তাঁর স্ত্রীর অভিযোগপত্রে নাম রয়েছে পেশায় সমবায় ব্যাঙ্ক কর্মী মালদহের নিলয় সিংহের।

  • Share this:

মালদহ: হেমতাবাদের বিধায়কের রহস্য মৃত্যু কাণ্ডে মালদহ যোগের কথা শোনা যাচ্ছিল প্রথম থেকেই। মঙ্গলবার মালদহের মকদমপুর এলাকার আবাসন থেকে নিলয় সিংহ নামে  একজনকে আটক করেছে পুলিশ। পরে জিঞ্জাসাবাদের জন্য তাঁকে নিয়ে যায় সিআইডি। বিধায়কের সুইসাইড নোট এবং মৃত্যুর পর তাঁর স্ত্রীর অভিযোগপত্রে নাম রয়েছে পেশায় সমবায় ব্যাঙ্ক কর্মী মালদহের নিলয় সিংহের।

ওই ঘটনায় আরও এক অভিযুক্ত মালদহের চাঁচলের মতিহারপুর পঞ্চায়েতের ইসলামপুরের বাসিন্দা মাবুদ আলির খোঁজেও অভিযান চালায় পুলিশ। তবে তাঁকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। তবে তাঁর একটি বিলাসবহুল গাড়ি আটক করেছে পুলিশ।   এ দিন অভিযুক্ত নিলয়কে আটক করার পর ইংরেজবাজার থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। এরপর সিআইডি-র একটি বিশেষ দল তাঁকে থানা থেকে জেরার জন্য রায়গঞ্জে নিয়ে যায়। যদিও তাকে আটক করার পর এদিন ইংরেজবাজার থানায় সংবাদমাধ্যমের কাছে নিলয় বাবু দাবি করেন,  "বিধায়কের মৃত্যু বা লেনদেনে আমি যুক্ত নই। আমার নাম কি করে সুইসাইডা নোটে এল তা বুঝে উঠতে পারছি না।"

অন্য দিকে এ দিন মালদা আদালত চত্বরে  নিলয়  সিংহের স্ত্রী সম্পা সিনহা নিউজ ১৮ বাংলাকে বলেন,  "আমার স্বামী নির্দোষ। টাকা নিয়েছে মাবুদ আলি। বিধায়ক হওয়ার আগে থেকেই আমার স্বামীর সঙ্গে দেবেন বাবুর পরিচয়। আমার   স্বামী এক সময়ে দেবেন বাবুর  বাড়িতে ভাড়াও থাকতেন। দেবেনবাবু কো-অপারেটিভ সোসাইটির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন, আর স্বামী সমবায় ব্যাঙ্কে কাজ করতেন।   কর্মসূত্রে ওঁদের সঙ্গে পরিচয়  হয়। দুজনের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ছিল বলেই জানি। মাবুদকে আমার স্বামীও কিছু টাকা দেন। ওদের একসঙ্গে ব্যবসা করার  কথা ছিল । কিন্তু মাবুদ দীর্ঘদিন  ধরে টাকা ফেরত দিচ্ছিল না। বারবার টাকা দেওয়ার কথা বলে ঘোরাত। দেবেনবাবুর মৃত্যুর খবর পেয়ে আমার স্বামী ও ভেঙে  পড়েন। সঠিক তদন্ত হলে তিনি  নির্দোষ প্রমাণিত হবেন।"

Published by: Arka Deb
First published: July 15, 2020, 8:56 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर