Home /News /north-bengal /

চলছিল মাধ্যমিকের পরীক্ষা, লিখতে লিখতে হঠাৎই জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ল ছাত্রী

চলছিল মাধ্যমিকের পরীক্ষা, লিখতে লিখতে হঠাৎই জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ল ছাত্রী

  • Share this:

Sebak DebSarma

#মালদহ: স্কুলে নির্বিঘ্নেই চলছিল মাধ্যমিক পরীক্ষা । একমনে উত্তর লিখছিলেন পরীক্ষার্থীরা। আচমকাই সশব্দে মাটিতে লুটিয়ে পড়ল এক ছাত্রী। অচৈতন্য হয়ে পড়ায় তড়িঘড়ি নিয়ে যাওয়া হল মানিকচক গ্রামীণ হাসপাতালে। সেখানে চিকিৎসার পর কিছুটা সুস্থ হয়ে হাসপাতালে বসেই বাকি পরীক্ষা শেষ করল ওই ছাত্রী। ঘটনা মালদহের এনায়েতপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ।

আপাতত পরীক্ষার পর ওই ছাত্রী চিকিৎসাধীন রয়েছে মানিকচক গ্রামীণ হাসপাতালে । জানা গিয়েছে, ফিরদৌসি খাতুন নামে ওই ছাত্রী মানিকচক উচ্চ বিদ্যালয়ের পড়ুয়া। মেধাবী হিসেবে তাঁর নাম রয়েছে। এদিন ছিল মাধ্যমিকের ভৌত বিজ্ঞান পরীক্ষা । কিন্তু দুপুর একটা নাগাদ পরীক্ষা দিতে দিতে আচমকা ছন্দপতন। সকলের চোখের সামনে জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে ফিরদৌসী। মুহুর্তের মধ্যে গোটা পরীক্ষার হলে রীতিমতো হৈচৈ পড়ে যায়।

স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকারা চোখে মুখে জল দিয়ে সুস্থ করার প্রাথমিক চেষ্টা করেন। কিন্তু সফল হননি তাঁরা । অবস্থা গুরুতর বুঝে সঙ্গে সঙ্গেই ওই ছাত্রীকে পাঠানো হয় মানিকচক গ্রামীণ হাসপাতালে। সেখানে তড়িঘড়ি চিকিৎসকরা তার চিকিৎসা শুরু করেন । ওষুধ দেওয়ার পর কিছুটা সুস্থ হয় ওই পরীক্ষার্থী । প্রায় ঘন্টা খানেক পর কিছুটা সুস্থ হয়ে নিজেই বাকি পরীক্ষা দেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করে । বিষয়টি সঙ্গে সঙ্গেই পর্ষদ নিযুক্ত প্রতিনিধিদের নজরে আনে হাসপাতাল এবং স্কুল কর্তৃপক্ষ। সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে তার পরীক্ষা নেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। প্রাথমিক চিকিৎসার পর চিকিৎসকরা জানান, শ্বাসকষ্ট ও দুর্বলতা জনিত কারণে ওই ছাত্রী আচমকা জ্ঞান হারিয়ে থাকতে পারে । এছাড়া অনিয়মিত ঘুমের সমস্যাও অসুস্থতার কারণ হতে পারে ।

ওই পরীক্ষা কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত ভেন্যু সুপারভাইজার মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, অন্যান্য ছাত্রীদের সঙ্গে নিঃশব্দে পরীক্ষা দিচ্ছিল ওই ছাত্রী । কিন্তু আচমকাই  অসুস্থ হয়ে জ্ঞান হারিয়ে  ফেলে সে। সঙ্গে সঙ্গেই তাকে চিকিৎসার আওতায় আনা হয় । তবে জ্ঞান ফিরতেই ওই ছাত্রী জানায় বাকি পরীক্ষা শেষ করতে চাই। কিন্তু অসুস্থতার জন্য প্রায় এক ঘন্টা সময় নষ্ট হয়ে যাওয়ায় সময়ের মধ্যে বাকি উত্তর শেষ করা নিয়ে সমস্যা তৈরি হয়। শেষে বিষয়টি নজরে আনলে হাসপাতালেই তাঁর পরীক্ষা নেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। পরীক্ষা বেশ ভালই হয়েছে বলে জানিয়েছে ওই ছাত্রী ৷

Published by:Simli Raha
First published:

Tags: Madhyamik Examination, Manikchalk

পরবর্তী খবর