corona virus btn
corona virus btn
Loading

ফের ৭ দিনের লকডাউন পাহাড়ের ৪ পুরসভা এলাকায়

ফের ৭ দিনের লকডাউন পাহাড়ের ৪ পুরসভা এলাকায়

রবিবার থেকে দ্বিতীয় দফায় টানা ৭ দিন লকডাউন থাকবে পাহাড়ের চার পুরসভা। কড়াভাবে লকডাউন চলবে ৮ আগস্ট পর্যন্ত

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: উত্তরবঙ্গে করোনার দাপট কমেনি! ক্রমেই বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। আর তাই ঝুঁকি নিতে চাইছে না জিটিএ এবং দার্জিলিং জেলা প্রশাসন। রবিবার থেকে দ্বিতীয় দফায় টানা ৭ দিন লকডাউন থাকবে পাহাড়ের চার পুরসভা। কড়াভাবে লকডাউন চলবে ৮ আগস্ট পর্যন্ত।

প্রথম দফার ৭দিনের লকডাউনের মেয়াদ শেষ হয় আজ, শনিবার। আর আজই জেলা প্রশাসনের কর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসেন জিটিএ'র প্রিন্সিপাল সেক্রেটারি, চেয়ারম্যান। পরে চেয়ারম্যান অনীত থাপা জানান, '' পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়নি। কাল থেকে দার্জিলিং, কার্শিয়ং, মিরিক এবং কালিম্পং পুরসভা এলাকায় ফের কড়া লকডাউন শুরু হবে। নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে, নতুন এলাকাতেও দাপট শুরু হয়েছে করোনা ভাইরাসের। পাহাড়কে কোভিড ফ্রি করাই প্রথম এবং প্রধান চ্যালেঞ্জ এখন। লকডাউন ছাড়া বিকল্প কোনও পথ খোলা নেই। অত্যন্ত প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে পা রাখা যাবে না।

 কার্শিয়ংয়ের চিমনি দেউরালি বাজারও বন্ধ থাকবে। সম্প্রতি ওই এলাকায় আক্রান্ত এক ব্যক্তির মৃত্যুও হয়েছে। চার পুরসভার পাশাপাশি আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ায় সোনাদা বাজার এলাকাকেও লকডাউনের আওতাভুক্ত করা হয়েছে। দার্জিলিংয়ের জেলাশাসক এস পুন্নমবালাম এক প্রেস বিবৃতিতে একথা জানিয়েছেন। একমাত্র নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর দোকান খোলা থাকবে, মিলবে সমস্ত জরুরি পরিষেবাও। এর আগে আরও পাঁচটা বাজার এলাকায় লকডাউন ছিল। তবে জেলাশাসকের নতুন নির্দেশিকায় তার উল্লেখ নেই।

দিন তিনেক আগে জিটিএ-র চেয়ারম্যান লকডাউন বাড়ার সম্ভাবনার কথা বলেছিলেন। এবারে দ্বিতীয় দফায় লকডাউনের সময়ে আক্রান্তের সমীক্ষা করবে প্রশাসনিক কর্তারা। তারপর পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে জিটিএ। প্রশাসনিক সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন পাহাড়বাসী। আক্রান্তের সংখ্যা নিম্নমুখী না হওয়া পর্যন্ত লকডাউনকেই সমর্থন করছে পাহাড়বাসী। এমনিতেই পর্যটক শূণ্য পাহাড়। একেবারে সুস্থ হয়ে উঠুক পাহাড়, তারপর আনলক হোক...এমনটাই চাইছেন পাহাড়ের বাসিন্দারা।

Partha Sarkar

Published by: Rukmini Mazumder
First published: August 1, 2020, 9:26 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर