Home /News /north-bengal /
Malda News- মালদহে বসবাসকারী মৈথিল জনজাতির প্রাচীন খাদ্য 'বড়ার টক' স্থান পেল জনজাতির বিবর্তনের ইতিহাস গবেষণায়

Malda News- মালদহে বসবাসকারী মৈথিল জনজাতির প্রাচীন খাদ্য 'বড়ার টক' স্থান পেল জনজাতির বিবর্তনের ইতিহাস গবেষণায়

Malda News- বর্তমানে মালদহে বসবাসকারী মৈথিলদের জনপ্রিয় খাদ্যর মধ্যে একটি বড়ার টক। মিথিলা অঞ্চলের নানা অংশ থেকে মাইগ্রেশনের ফলে মৈথিলরা যখন বাংলায় আসতে থাকেন, তাদের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক বিষয়ের সঙ্গে এই রান্নাটিকেও তারা নিয়ে আসেন।

আরও পড়ুন...
  • Share this:

    #মালদহ-  শুধু কলাইয়ের ডালবাটার মিশ্রণ। আর তাতে স্বাদ মতো লবণ আর মশলা। কখনও কখনও তার সঙ্গে কুচি করে মেশানো দশদলের পাতা। তারপর আমচুর বা আমসির টকে সেই ভাজা বড়া সহযোগে বড়ার টক। মৈথিল সমাজে বহু প্রাচীনকাল থেকে চলে আসছে এই ঘরোয়া রান্নাটি। প্রবীণ মানুষেরা বলেন এই খাবার নাকি উত্তর বিহারের মিথিলাঞ্চল থেকে চালু হয়ে ছড়িয়ে পড়ে সারা ভারতে। দ্বারভাঙা বা মধুবনীতে যা 'আরিকাঞ্ছ কি চাটনি', মালদহে তাই 'আলকোছার টক'। এই রান্না যেন হয়ে উঠেছে মৈথিলদের আত্মপরিচয়ের এক অংশ।

    আরও পড়ুন : আজ বজ্রবিদ্যুৎ-সহ বৃষ্টি রাজ্যের এই জেলাগুলিতে, কলকাতায় বৃষ্টির সম্ভাবনা কবে ?

    বর্তমানে মালদহে বসবাসকারী মৈথিলদের জনপ্রিয় খাদ্যর মধ্যে একটি বড়ার টক। মিথিলা অঞ্চলের নানা অংশ থেকে মাইগ্রেশনের ফলে মৈথিলরা যখন বাংলায় আসতে থাকেন, তাদের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক বিষয়ের সঙ্গে এই রান্নাটিকেও তারা নিয়ে আসেন। সময়ের পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে এই রান্না বিবর্তিত হতে হতে ছড়িয়ে পড়ে দক্ষিণ ভারতের নানা অংশে। সেখানেও বড়াকে একটি ভিন্ন চেহারায় দেখা যায়। এইভাবে রান্না হয়ে ওঠে লোকসংস্কৃতির একটি অংশ এবং রান্নাকে নির্ভর করে তৈরি হয় লোকসংস্কৃতির ইতিহাস। মৈথিলদের বিভিন্ন আচার অনুষ্ঠানে প্রাধান্য পেয়ে এসেছে এই বড়ার টক। রান্নার বিবর্তনের ইতিহাস থেকে জনজাতির বিবর্তনের ইতিহাসমূলক গবেষণায়, এই বড়ার টক বিশেষ স্থান পেয়েছে।

    আরও পড়ুন :  বাণিজ্যে বসতে লক্ষ্মী! বাংলার বিশ্ববঙ্গ সম্মেলনে 'সর্ববৃহৎ' প্রতিনিধি দল পাঠাচ্ছে ব্রিটেন

    মালদহ কলেজের অধ্যাপিকা দীপাঞ্জনা শর্মা, গৌড় মহাবিদ্যালয়র অধ্যাপক ঋষি ঘোষ এবং গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগার বিভাগের কর্মী সৌমেন্দু রায়ের গবেষণায়, মৈথিলী বড়ার টক একটি সাংস্কৃতিক পরিযানের গল্প হয়ে উঠেছে। গবেষণা গ্রন্থটি আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশিত হয়েছে গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ে। 'মৈথিলী বড়ার টক- একটি সাংস্কৃতিক পরিযান এর গল্প', এই ছোট বইটি মালদহে বসবাসকারী মৈথিল জনজাতির ঘরোয়া রান্নাকে অবলম্বন করে লেখা হয়। এই বিশেষ জনজাতির মাইগ্রেশনের ইতিবৃত্ত তুলে ধরা হয়েছে বইটিতে।

    বইটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, চেতনার সম্পাদক রবিন দাস, গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য শান্তি ছেত্রী, কন্ট্রোলার ডক্টর বিশ্বরুপ সরকার, ডেপুটি রেজিস্ট্রার ও উন্নয় আধিকারিক রাজীব পতিতুন্ডী, বাংলা বিভাগের প্রধান প্রফেসর সাধন কুমার সাহা, অ্যাকাউন্ট অফিসার রবীন্দ্রনাথ কর্মকার, লাইব্রেরী বিভাগের প্রধান প্রবীণ কারকি সহ অন্যান্য কর্তা আধিকারিকেরা।

    Harashit Singha

    Published by:Rachana Majumder
    First published:

    Tags: Malda, Malda News

    পরবর্তী খবর