রায়গঞ্জ কুলিক পক্ষীনিবাসে এবছর পরিযায়ী পাখির সংখ্যা কমল প্রায় সাড়ে ৫ হাজার

রায়গঞ্জ কুলিক পক্ষীনিবাসে এবছর পরিযায়ী পাখির সংখ্যা কমল প্রায় সাড়ে ৫ হাজার
কুলিকের পাখি গণনার ফলাফল, কমল পরিযায়ীদের সংখ্যা

প্রকাশ পেল কুলিকের পাখি গণনার ফলাফল, কমল পরিযায়ীদের সংখ্যা

  • Share this:

UTTAM PAUL

#রায়গঞ্জ: রায়গঞ্জ কুলিক পক্ষীনিবাসে এবছর পরিযায়ী পাখির সংখ্যা কমল প্রায় সাড়ে ৫ হাজার। বনদপ্তরের দাবি খুব সামন্য পাখি কমেছে। এধরনের পাখির সংখ্যা কমবেশী হয়েই থাকে। তবে পরিযায়ী পাখির সংখ্যা কমে যাওয়ায় উদ্বিগ্ন পরিবেশ প্রেমী সংগঠন। পরিবেশ প্রেমি সংগঠনের অভিযোগ বিপুল সংখ্যক পরিযায়ী পাখি কুলিকে বাসা বাধলেও বন দপ্তর তাদের জন্য সেই পরিমান খাদ্যের ব্যবস্থা করে নি। ফলে বন ছাড়িয়ে জলাভুমি এলাকায় তারা প্রতিবছর বাসা বাধে।

১৯৮৪ সালে প্রথমবার রায়গঞ্জ কুলিক পক্ষীনিবাসে পরিযায়ী পাখি বাসা বাধে। এখানে ওপেনবিল ষ্টক,নাইট হেরন, ইগরিট এবং করমোরেন্ট এই চার প্রজাতি বাসাবাধে। জুন মাসের শেষ দিকে পরিযায়ী পাখিদের কোলাহল শুরু হয় রায়গঞ্জ কুলিক পক্ষীনিবাসে। ১.৩০ স্কোয়ার কিলোমিটার জুড়ে বিস্তৃত এই পক্ষীনিবাস। বসতি স্থাপনের পর শুরু হয় এদের দাম্পত্য জীবন।

আগষ্ট থেকে সেপ্টম্বর হল পরিযায়ী পাখিদের প্রজনন সময়। মূলত এই সময় তাদের ভরা সংসার।প্রথম বছর এই পক্ষীনিবাসে ২৯ হাজার পাখি বাসা বাধে।পরবর্তী বছর থেকে পরিযায়ী সংখ্যা বাড়তেই থাকে। ২০১৮ সাল পর্যন্ত পাখির সংখ্যা বেড়ে হয় ৯৮ হাজার ৫৬২। এই বিপুল পরিমান পরিযায়ী পাখি এখানে বাসা বাধলে নতুন করে এখানে পাখিদের জন্য জলাশয় তৈরী করা হয় নি। উল্টে কুলিক পক্ষীনিবাস সংলগ্ন জলাশয় বন্ধ করে বসতি গড়ে উঠেছে।

কুলিক পক্ষীনিবাসে পাখির খাদ্যের সংকট থাকায় খাওয়ার খোঁজে পক্ষীনিবাস সংলগ্ন জনবসতি এলাকাতে বাসা বাধে। এবছর পরিযায়ী পাখির সংখ্যা প্রায় সাড়ে পাচ হাজার কমে দাড়িয়েছে ৯৩ হাজার ৮৮টি। জেলা বনাধিকারি সোমনাথ সরকার জানিয়েছেন,পাখির সংখ্যা খুব অল্প পরিমান কমেছে। প্রতি বছর এধরনের হেরফের হয়েই থাকে। বনদপ্তর উদ্বেগের কারন না দেখলেও পরিবেশ প্রেমী সংগঠন উদ্বিগ্ন।

পরিবেশ প্রেমী সংগঠনের সাধারন সম্পাদক শঙ্কর ধর জানিয়েছেন,খাদ্যের অভাবেই পরিযায়ী পাখিরা কুলিকে কম আসছে। বিপুল পরিমান পরিযায়ী পাখি কুলিকে বাসা বাধলেও বনদপ্তর সেই পরিমান খাদ্যের ব্যবস্থা করে নি। খাদ্যের খোঁজেই পরিযায়ী পাখিরা জলাশয়ের ধারে বাসা বাধে।

First published: 05:38:57 PM Dec 13, 2019
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर