corona virus btn
corona virus btn
Loading

কুলিক নদীবাঁধের স্লুইস গেট লিক করে জল ঢুকছে বাড়িতে, ডুবেছে ঘরবাড়ি, দিশেহারা মানুষ

কুলিক নদীবাঁধের স্লুইস গেট লিক করে জল ঢুকছে বাড়িতে, ডুবেছে ঘরবাড়ি, দিশেহারা মানুষ
Raiganj

কুলিক নদীবাঁধের স্লুইস গেট লিক করে নদীর জলে প্লাবিত হল রায়গঞ্জ পুরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের শক্তিনগর, মিলনপাড়া এলাকা। নদীর জল বাড়িতে প্রবেশ করে ডুবে গিয়েছে ঘরবাড়ি।

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: কুলিক নদীবাঁধের স্লুইস গেট লিক করে নদীর জলে প্লাবিত হল রায়গঞ্জ পুরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের শক্তিনগর,  মিলনপাড়া এলাকা। নদীর  জল বাড়িতে প্রবেশ করে ডুবে গিয়েছে ঘরবাড়ি।  পলিথিন টাঙিয়ে কুলিক নদীবাঁধের উপর আশ্রয় নিলেন কয়েকশো পরিবার। অভিযোগ, পানীয় জল নেই, খাবার নেই, নেই শৌচালয়ের ব্যাবস্থা। অবিলম্বে শক্তিনগর এলাকার কুলিক নদীবাঁধের ভাঙা স্লুইস গেট মেরামত না করলে ভাসবে গোটা রায়গঞ্জ শহর।

রায়গঞ্জ পুরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের তৃণমূল কাউন্সিলর বরুন বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন ইতিমধ্যেই সেচ দফতর স্লুইস গেট মেরামতের টেন্ডার দিয়েছে। খুব শীঘ্রই কাজ শুরু হবে। পুরসভার পক্ষ থেকে দুর্গত বাসিন্দাদের জন্য পানীয় জল ও পলিথিন দেওয়ার ব্যাবস্থা করা হয়েছে। স্লুইস গেট লিক করে প্লাবিত হওয়া কুলিক নদীর জল ঢুকছে রায়গঞ্জ শহরের পুরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের শক্তিনগর ও পশ্চিম মিলনপাড়ার বাঁধ সংলগ্ন এলাকায়। ইতিমধ্যেই বাড়িঘরে জল ঢুকে প্লাবিত হয়েছে কয়েকশো পরিবার। বাড়িঘর ছেড়ে বাধ্য হয়ে বাঁধের উপরে  আশ্রয় নিয়েছেন দুর্গত বাসিন্দারা।

শক্তিনগর এলাকার বাসিন্দা নীলম পাশমান, দুখু পাসমানরা জানিয়েছেন, কুলিক নদীবাঁধের স্লুইস গেট লিক করে নদীর জলে তাদের বাড়িঘর ডুবে গিয়েছে। ছোট ছোট ছেলে মেয়ে ও পরিবার পরিজন, গবাদি পশু নিয়ে বাঁধের উপর আশ্রয় নিয়েছেন তারা সকলে। স্থানীয় কাউন্সিলর পলিথিন দিয়েছেন সেই পলিথিন টাঙিয়ে অস্থায়ী ছাউনি তৈরি করে দুরবস্থার মধ্যে রয়েছেন তারা। পানীয়জল ও খাবার নেই। নেই শৌচালয়ের ব্যাবস্থাও।

স্থানীয় তৃনমূল কংগ্রেস কাউন্সিলর বরুন বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন দুর্গত মানুষদের পানীয় জলের জন্য পুরসভা থেকে পানীয় জলের ট্যাঙ্ক দেওয়ার পাশাপাশি বাঁধে কয়েকটি টিউবওয়েল বসানোর কাজ শুরু হয়েছে। পলিথিন দেওয়া হয়েছে। খাদ্যসামগ্রী বিতরণের ব্যাবস্থাও নেওয়া হয়েছে।

Published by: Pooja Basu
First published: July 1, 2020, 5:15 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर