এবার ট্রেনে চেপে সিকিম, সেবক থেকে রংপো পর্যন্ত ট্রেন

রেল মানচিত্রে যুক্ত হতে চলেছে সিকিম, শিলিগুড়ির কাছে সেবক থেকে সিকিমের রংপো পর্যন্ত নতুন রেলপথ ৷

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Aug 30, 2019 04:40 PM IST
এবার ট্রেনে চেপে সিকিম, সেবক থেকে রংপো পর্যন্ত ট্রেন
Photo- Video Grab
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Aug 30, 2019 04:40 PM IST

#নয়াদিল্লি : নাথুলার ওপারে সড়ক ও রেল পরিবহণের ব্যবস্থা করে ফেলেছে চিন। এবার ভারতও রেলপথ তৈরির পথে। সেবক থেকে সিকিএমের রংপো পর্যন্ত নতুন রেলপথ। ২০২১ সালে এই প্রকল্প শেষ করার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে কাজ করছে নর্থ ইস্ট ফ্রন্টিয়ার রেলওয়ে।

রেল মানচিত্রে যুক্ত হতে চলেছে সিকিম, শিলিগুড়ির কাছে সেবক থেকে সিকিমের রংপো পর্যন্ত নতুন রেলপথ ৷

২০০৯ সালে রেলমন্ত্রী থাকাকালীন এই রেলপথের শিলান্যাস করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

অবস্থান ও কৌশলগত কারণে এই রেলপথ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, সিকিএমেই রয়েছে চিন সীমান্ত নাথুলা। এই নাথুলা দিয়েই এখন বছরের একটা নির্দিষ্ট সময়ে ভারত-চিন বাণিজ্য চলে। ওপারে চিন কিন্তু সীমান্ত পর্যন্ত সড়ক ও রেল পরিকাঠামো তৈরি করে ফেলেছে। এবার সেই লক্ষ্যে এগোচ্ছে ভারতও।

নর্থইস্ট ফ্রন্টিয়ার রেলওয়ের লক্ষ্য ২০২১ সালের জুন মাসের মধ্যে এই প্রকল্পের কাজ শেষ করা।

Loading...

এর জন্য খরচ হবে ৪ হাজার ৮৪ কোটি টাকা।

সিকিমের নিকটতম রেলস্টেশন শিলিগুড়ি ও এনজেপি। তারপর পাহাড়ি পথে সাড়ে তিন ঘণ্টা সময় লাগে গ্যাটক পৌঁছতে। একমাত্র সেই রাস্তা বছরের অনেক সময়ই ধসের কারণে বন্ধ থাকে। রেলপথ চালু হলে সহজেই রসদ ও সামরিক সরঞ্জাম পৌঁছনো যাবে।

আরও পড়ুন - পরণে লাল পাড় সাদা শাড়ি, মাথা ভর্তি সিঁদুর, হাতে শাঁখা-পলা, স্বামী সোহাগে শুভশ্রী

সেবক থেকে রংপোর মাঝে এই রেলপথ চুয়াল্লিশ দশমিক নয় আট কিলোমিটার দীর্ঘ। এর মধ্যে পশ্চিমবঙ্গে পড়বে ৪১ দশমিক পাঁচ চার কিলোমিটার। বাকি তিন দশমিক চার চার কিলোমিটার সিকিমে। মাঝে পড়বে ১৯টি ব্রিজ। ১৪টি টানেল। সবচেয়ে বড় টানেল পাঁচ দশমিক দুই সাত কিলোমিটারের। সবচেয়ে ছোট টানেলটির দৈর্ঘ ৫৩৮ মিটার। ইতিমধ্যেই ৬টি টানেল তৈরির কাজ শুরুও হয়ে গিয়েছে।

এই রুটে থাকবে পাঁচটি স্টেশন। সেবক, রিয়াং, তিস্তাবাজার, মেইলি এবং রংপো

এটি একটি গ্রিন প্রজেক্ট। পরিবেশের কোনওরকম ক্ষতি না করেই চলবে ট্রেন। পথে পড়বে - মহানন্দা অভয়ারণ্য এবং চারটি ফরেস্ট ডিভিশন - কারশিয়ং, কালিম্পং, দার্জিলিং এবং পূর্ব সিকিম। এই রেলপথ চালু হয়ে গেলে পর্যটকরা অনেক স্বাচ্ছন্দ্যে যাতায়াত করতে পারবেন। সিকিএমে বিনিয়োগ টানতেও এই রেলপথ বড় ভূমিকা নেবে বলে আশা রেলের।

আরও দেখুন

First published: 04:40:32 PM Aug 30, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर