• Home
  • »
  • News
  • »
  • north-bengal
  • »
  • টানা বৃষ্টিতে বিচ্ছিন্ন পাহাড়! বন্ধ বাংলা-সিকিম লাইফ লাইন! জাতীয় সড়কের বিধ্বংসী ধস, উৎকণ্ঠায় পাহাড়বাসী

টানা বৃষ্টিতে বিচ্ছিন্ন পাহাড়! বন্ধ বাংলা-সিকিম লাইফ লাইন! জাতীয় সড়কের বিধ্বংসী ধস, উৎকণ্ঠায় পাহাড়বাসী

নাগাড়ে বৃষ্টির জের। বিচ্ছিন্ন পাহাড়। একাধিক জায়গায় ধস। ধসে জেরবার শৈলশহর দার্জিলিং থেকে জাতীয় সড়ক । টানা ৩ দিন ধরে বৃষ্টি চলছে পাহাড়ে।

নাগাড়ে বৃষ্টির জের। বিচ্ছিন্ন পাহাড়। একাধিক জায়গায় ধস। ধসে জেরবার শৈলশহর দার্জিলিং থেকে জাতীয় সড়ক । টানা ৩ দিন ধরে বৃষ্টি চলছে পাহাড়ে।

নাগাড়ে বৃষ্টির জের। বিচ্ছিন্ন পাহাড়। একাধিক জায়গায় ধস। ধসে জেরবার শৈলশহর দার্জিলিং থেকে জাতীয় সড়ক । টানা ৩ দিন ধরে বৃষ্টি চলছে পাহাড়ে।

  • Share this:

#দার্জিলিং: নাগাড়ে বৃষ্টির জের। বিচ্ছিন্ন পাহাড়। একাধিক জায়গায় ধস। ধসে জেরবার শৈলশহর দার্জিলিং থেকে জাতীয় সড়ক । টানা ৩ দিন ধরে বৃষ্টি চলছে পাহাড়ে। গতকাল সন্ধ্যে থেকে মুষলধারায় বৃষ্টি পাহাড়ে। বৃষ্টির জেরে ১০ নং জাতীয় সড়কের একাধীক জায়গায় ধস। ২৯ মাইলে ফের বড় ধস নেমেছে। বেলা বাড়তেই ১০ নং জাতীয় সড়কে শ্বেতীঝোরায় বড় অংশ রাস্তা ধসে গিয়েছে। এর জেরে বাংলা এবং সিকিমের লাইফ লাইন পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গিয়েছে। শ্বেতীঝোরায় জাতীয় সড়ক ধসে যাওয়ায় আগামী ২ দিন অন্তত যান চলাচল সম্ভব নয় বলে পূর্ত দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে।

সকাল থেকেই ধস সরানোর কাজ শুরু করেছে পূর্ত দফতরের কর্মীরা। কিন্তু বাধ সেধেছে বৃষ্টি। বৃষ্টি না কমলে ধস পুরোপুরি সংস্কার করা সম্ভব নয়। অন্যদিকে ৩১ নং জাতীয় সড়কের সেবক কালীবাড়ির কাছেও ধস নেমেছে। এর জেরে শিলিগুড়ির সঙ্গে অসম এবং ডুয়ার্সের যোগাযোগ বন্ধ। অনেকটা ঘুরপথে গজলডোবা হয়ে গাড়ি চলাচল করছে। আর ১০ নং জাতীয় সড়কে ধসের জেরে শিলিগুড়ির সঙ্গে সিকিম এবং কালিম্পংয়ের মধ্যে যোগাযোগ সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন। পেশক হয়ে ঘুরপথে চলছে যান চলাচল।

জরুরি প্রয়োজনে সিকিম এবং কালিম্পং থেকে ঘুরপথে চলাচল করছে। সব মিলিয়ে জাতীয় সড়ক একেবারে বন্ধ। বিপাকে পাহাড় ও সমতল। আবহাওয়া দপ্তর পূর্বাভাসে জানিয়েছে শনিবার পর্যন্ত বৃষ্টি চলবে। এতে উৎকণ্ঠায় পাহাড়বাসী। উদ্বেগে জেলা প্রশাসনিক কর্তারা। অন্যদিকে শৈলশহর দার্জিলিংয়ের একাধীক জায়গায় ধস। দার্জিলিংয়ের সদর হাসপাতালের সামনে সহ পুরসভার বেশ কিছু এলাকায় ধস নেমেছে। এর জেরে স্থানীয় বাসিন্দারা বিপাকে। তারা অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে। এদিকে ধসের মোকাবিলায় তৈরী জিটিএ'র ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট টিম। দার্জিলিং ও কালিম্পং জেলার ৮টি ব্লকের ধস প্রবন এলাকায় পৌঁছে গিয়েছে ডিজাস্টার টিমের সদস্যরা। সঙ্গে ত্রিপল সহ প্রয়োজনীয় সামগ্রী নিয়ে।

Partha Sarkar

Published by:Shubhagata Dey
First published: