• Home
  • »
  • News
  • »
  • north-bengal
  • »
  • পাহাড়ে চরম খাদ্য সংকট, এই পরিস্থিতিতে খাবার পৌঁছাতে রাজ্যের খরচ ১০০ কোটি

পাহাড়ে চরম খাদ্য সংকট, এই পরিস্থিতিতে খাবার পৌঁছাতে রাজ্যের খরচ ১০০ কোটি

পাহাড়ে চরম খাদ্য সংকট, এই পরিস্থিতিতে খাবার পৌঁছানোর খরচ ১০০ কোটি

পাহাড়ে চরম খাদ্য সংকট, এই পরিস্থিতিতে খাবার পৌঁছানোর খরচ ১০০ কোটি

পাহাড়ে চরম খাদ্য সংকট, এই পরিস্থিতিতে খাবার পৌঁছানোর খরচ ১০০ কোটি

  • Share this:

     #দার্জিলিং: মোর্চার জঙ্গি আন্দোলনে পাহাড়ে খাদ্য সংকট। খুলতে দেওয়া হচ্ছে না রেশন দোকান। মোর্চার আন্দোলনের জেরে পাহাড়ে বন্ধ ছশো সত্তরটি রেশন দোকান। খাদ্যসামগ্রী নিয়ে সমতলে দাঁড়িয়ে আশিটি লরি। উঠতে গেলেই মারধর করা হচ্ছে লরি চালকদের। প্রতিদিন চার লক্ষ টাকা বাড়তি খরচ হচ্ছে বলে জানিয়েছেন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।

    বনধের দ্বাদশ দিনেও থমথমে পাহাড় ৷ খোলেনি দোকানবাজার, বন্ধ যানবাহন ৷ দার্জিলিঙের বিভিন্ন এলাকায় পুলিশি টহল ৷পাহাড়ে মোর্চার লাগাতার বনধ। টান রসদে । সাধারণ মানুষ থেকে বন্য প্রাণী। বাদ যাচ্ছে না কেউই। ইতিমধ্যেই পেরিয়ে গিয়েছে ১২ দিন। বনধে অনড় মোর্চা ৷ জমিয়ে রাখা শাকসবজি ফুরোতে শেষ করেছে ৷ চা পাতা বিস্কুট পর্যন্ত নেই। পাল্লা দিয়ে সংকট বেড়েছে জলেরও। রংবুল থেকে জল সরবরাহ করা হয় পাহাড়ে। গাড়িতে করে জলা আনা হয়। দৈনিক প্রত্যেক তিন ঘন্টা অন্তর ১৫টি লরি সরবরাহ করে। বর্তমান পরিস্থিতিতে দৈনিক সাত ঘণ্টা অন্তর তিনটি করে গাড়ি জল সরবরাহ করছিল। পানীয় জল অন্যান্য কাজে ব্যবহারের করার ফলে জল মিলছে না পাহাড়ে। ফলে পাহাড়ে চরম খাদ্য সংকট ৷ চিন্তায় খাদ্য দফতর ৷

    খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের মন্তব্য, ‘যুদ্ধ পরিস্থিতিতেও খাদ্য সরবরাহ বন্ধ হয় না ৷ ইগোর লড়াইয়ে মানুষের গ্রাস কেড়ে নিচ্ছে মোর্চা ৷ এবার পাহাড়ের মানুষই ওদের বিরুদ্ধে লড়াই করবে ৷’

    পাহাড়ে ৬৭০টি রেশন দোকানে কোনও সামগ্রী নেই ৷ একটি রেশন দোকান খুললেও তা মারধর করে বন্ধ করে দেয় মোর্চা সমর্থকরা ৷ মালবোঝাই একটি লরিও উঠতে দিচ্ছে না মোর্চা ৷ কোনওমতে লরি উঠলেও চালককে মারধর করছে মোর্চা সমর্থকরা ৷ ৮০টি মাল বোঝাই লরি দাঁড়িয়ে সমতলে ৷ খাদ্যশস্য পৌঁছতে ১০০ কোটি টাকা খরচ করে খাদ্য দফতর ৷ মাল বোঝাই লরি দাঁড়িয়ে থাকায় রাজ্যের সঙ্গে সঙ্গে পাহাড়ের বাসিন্দাদের ক্ষতির খতিয়ানও ক্রমাগত দীর্ঘ হচ্ছে ৷

    First published: