করোনার প্রভাব, বাংলা সিকিম সীমান্তে কড়া সতর্কতা, চলছে হেলথ স্ক্রিনিং

করোনার প্রভাব, বাংলা সিকিম সীমান্তে কড়া সতর্কতা, চলছে হেলথ স্ক্রিনিং

ফিরছেন বাংলাদেশী পর্যটকেরাও। কেউ যাচ্ছেন দার্জিলিং বেড়াতে

  • Share this:

#রংপো: করোনা ভাইরাসের প্রভাব। বাংলা-সিকিম সীমান্ত রংপোতে কড়া সতর্কতা। গতকাল থেকেই সিকিমে বিদেশি পর্যটকদের প্রবেশে "না" জারি করেছে প্রশাসন। এমনকি সার্কের আওতাভুক্ত পর্যটকদেরও সিকিমে বেড়াতে যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। বহু বিদেশি পর্যটক শিলিগুড়ি থেকে ফিরছে। কেউ যাচ্ছে দার্জিলিং বেড়াতে, কেউ অন্যত্র। সিকিম বেড়াতে যাওয়ার স্বপ্নভঙ্গ। ব্যাপক প্রভাব পড়েছে পর্যটন শিল্পে। সকাল থেকেই রংপো সীমান্তে প্রতিটি গাড়ি থামিয়ে চলছে তল্লাশি। পর্যটক এবং সাধারন যাত্রীদের হেলথ স্ক্রিনিং  হচ্ছে।

বিশেষ হেলথ ক্যাম্প খোলা হয়েছে সীমান্তে। সিকিম সরকারের করোনা সতর্কতার প্রশংসা করেছেন পর্যটকেরা। এর মধ্যেও ভিন রাজ্য এবং কলকাতা থেকে পর্যটকেরা বেড়াতে যাচ্ছেন সিকিম। সীমান্তজুড়ে সতর্কতা নোটিশ জারি করা হয়েছে। সকলকেই মাস্ক পড়া বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। সিকিম থেকে যারা নেপাল এবং ভুটান বেড়িয়ে ফিরে আসছেন তাঁদের ওপর কড়া নজরদারি সিকিম স্বাস্থ্য দপ্তরের। সিকিমের স্বাস্থ্য বিভাগের এক অফিসার ছিরিং ভুটিয়া জানান, প্রতিটি সীমান্তেই চলছে হেলথ স্ক্রিনিং। পশ্চিম সিকিমের নেপাল-সিকিম সীমান্তেও চলছে হেলথ স্ক্রিনিং। আপাতত ভারত-চীন না থুলা সীমান্তেও দেশীয় পর্যটকদের প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না। ছাঙ্গু লেক পর্যন্ত পর্যটকদের ঘোরার পারমিট দেওয়া হচ্ছে। এদিকে এর প্রভাব এসে পড়ছে সমতলের শিলিগুড়িতেও। সিকিম রাষ্ট্রীয় পরিবহন দপ্তরেও বিদেশী পর্যটকদের ওপর জারি করা নোটিশ টাঙানো হয়েছে। বাংলাদেশী পর্যটকেরা বাস স্ট্যাণ্ডে এলে ফিরে যেতে হয়। সিকিম বেড়াতে আসার প্লান করে আসা বাংলাদেশী পর্যটকেরা হতাশ। তবে সিকিম সরকারের করোনা নিয়ে সতর্কতা জারিকে স্বাগত জানিয়েছে বাংলাদেশী পর্যটকেরা। বাধ্য হয়ে দার্জিলিং বেড়াতে যাচ্ছেন তাঁরা। আবার অনেকেই যাচ্ছেন কালিম্পং। পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত বিদেশী পর্যটকদের সিকিমে বেড়ানোতে "না" জারি থাকছে বলে প্রশাসন জানিয়েছে। এনিয়ে উদ্বিগ্ন পর্যটন ব্যবসায়ীরা। তারাও বৈঠক করেন রাজ্যের পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেবের সঙ্গে।

Partha Sarkar

First published: March 6, 2020, 7:14 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर