corona virus btn
corona virus btn
Loading

আনুষঙ্গিক কোনও ফি নয়, টিউশন ফি নিতে হবে ৫০ শতাংশ, দাবিতে শিলিগুড়িতে বিক্ষোভ অভিভাবকদের

আনুষঙ্গিক কোনও ফি নয়, টিউশন ফি নিতে হবে ৫০ শতাংশ, দাবিতে শিলিগুড়িতে বিক্ষোভ অভিভাবকদের

শিলিগুড়ির দাগাপুরের একটি বেসরকারি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের সামনে বিক্ষোভ দেখায় অভিভাবকেরা।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: টিউশন ফি, বাস ভাড়া তো রয়েছে। সঙ্গে দিতে হত বিদ্যুতের বিল সহ একাধীক আনুষঙ্গিক ফি। করোনা আবহে লকডাউনের জেরে তিন মাস বন্ধ রয়েছে স্কুল। জুলাইয়েও ক্লাস শুরু হওয়ার কোনও সম্ভাবনাই নেই। ইতিমধ্যেই নির্দেশিকা জারি করেছে রাজ্যের শিক্ষা দফতর। অগাস্টেও স্কুল খোলার সম্ভাবনা কম। অথচ স্কুল কর্তৃপক্ষ ফি জমা দেওয়ার চাপ দিয়ে চলেছে বলে অভিযোগ অভিভাবকদের। এর আগে কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানালেও সদুত্তর মেলেনি বলে অভিযোগ। তাই আজ, শুক্রবার স্কুলের গেটে গিয়ে বিক্ষোভ৷

শিলিগুড়ির দাগাপুরের একটি বেসরকারি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের সামনে বিক্ষোভ দেখায় অভিভাবকেরা। প্ল্যাকার্ড হাতে চলে বিক্ষোভ প্রদর্শন। আজও দীর্ঘক্ষণ বিক্ষোভ চালালেও স্কুল কর্তৃপক্ষ দেখা পর্যন্ত করতে আসেনি। গেটে তালা ঝুলিয়ে রাখা হয়। শুধু স্কুলের নিরাপত্তা রক্ষীরাই ছিলেন। অভিভাবকদের দাবি, স্কুল বন্ধ রয়েছে। তাই আনুষাঙ্গিক কোনো ফি দেওয়া হবে না। এখন কেন বিদ্যুতের বিল বা গাড়ি ভাড়া বাবদ টাকা দেব আমরা? যেহেতু অনলাইনে ক্লাস হচ্ছে। তাই টিউশন ফি দিতে চাই। তাও পুরো নয়। ৫০ শতাংশ ফি নিতে হবে। এই দাবিতেই সরব হন বনশ্রী সাহা, সুব্রত দাসরা। কিন্তু কথা বলা তো দূরে থাক স্কুল কর্তৃপক্ষ বাইরে পর্যন্ত আসেনি বলে অভিযোগ অভিভাবকদের।

লকডাউনের প্রভাব সব পেশাতেই কমবেশি পড়েছে। কর্মহীন হয়েছেন অনেকেই। বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে ছাঁটাইও হয়েছে। আর যারা ব্যবসায়ী, তাদের ব্যবসাও মন্দা। এই অবস্থায় দাঁড়িয়ে স্কুলের সব ফি দেওয়া সম্ভব নয় বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে অভিভাবকেরা। এই মূহূর্তে সেই আর্থিক ক্ষমতাও নেই। তাদের দাবি, অন্তত আলোচনায় বসুক স্কুল কর্তৃপক্ষ। আলাপ আলোচনার মাধ্যমে একটা সমাধান সূত্র বেরিয়ে আসতে পারে। প্রশাসনকেও এগিয়ে আসতে হবে। স্কুলের অনড় মনোভাব ভাঙাতে হবে। কঠোর হতে হবে প্রশাসনিক কর্তাদের বলে দাবি অভিভাবকদের। প্রসঙ্গত বেসরকারি স্কুল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠকও করেন রাজ্যের পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব। তারপরও স্কুল কর্তৃপক্ষ কেন চাপ দিচ্ছে, তা বোধগম্য হচ্ছে না অভিভাবকদের।

Partha Pratim Sarkar

Published by: Elina Datta
First published: June 27, 2020, 9:44 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर