Home /News /north-bengal /
Gta Election: অনীত বনাম এডওয়ার্ড, পাহাড়ে চড়ছে পারদ! কার দখলে থাকবে জিটিএ?

Gta Election: অনীত বনাম এডওয়ার্ড, পাহাড়ে চড়ছে পারদ! কার দখলে থাকবে জিটিএ?

আসছে জিটিএ নির্বাচন

আসছে জিটিএ নির্বাচন

Gta Election: দেশ, বিদেশের পর্যটকদের কাছে আরো সুন্দর পাহাড় উপহার দেওয়ার লক্ষ্যেই ভোট ময়দানে নেমেছেন অজয় এডওয়ার্ড, অনীত থাপা, বিনয় তামাংরা।

  • Share this:

#কলকাতা: আগামী ২৬ জুন গোর্খাল্যাণ্ড টেরিটোরিয়াল অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (জিটিএ) নির্বাচন। ২০১২-র পির ২০২২! ১০ বছর পর পাহাড়ে ভোট। মুখ্যমন্ত্রী পাহাড় সফরে এসেই ঘোষণা করেছিলেন জিটিএর নির্বাচন মে, জুন মাসেই হবে। জিটিএর বিরোধীতায় একাধীক রাজনৈতিক দল। মোর্চা সভাপতি বিমল গুরুং এর বিরোধীতায় আমরণ অনশনেও বসেছিলেন। বিরোধীতায় বিজেপি, জিএনএলএফ, সিপিআরএম সহ একাধীক আঞ্চলিক দল। ভোট প্রক্রিয়া কিন্তু থেমে থাকেনি। দেশ, বিদেশের পর্যটকদের কাছে আরো সুন্দর পাহাড় উপহার দেওয়ার লক্ষ্যেই ভোট ময়দানে নেমেছেন অজয় এডওয়ার্ড, অনীত থাপা, বিনয় তামাংরা। শেষ মূহূর্তের প্রচারে ব্যস্ত তারা। লড়ছে সিপিএম, কংগ্রেসও।

বিরোধিতা করেও বহু আসনে "নির্দল" হয়ে লড়ছেন একাধিক গুরুং অনুগামী। আসরে বিজেপি, জিএনএলএফও! রাজনৈতিক মহলের ধারনা, অনীতকে চাপে ফেলতেই "নির্দল" হয়ে ময়দানে নেমেছেন। রাজনীতির ভোট কাটাকাটির খেলা ছিল, থাকবে। তবে একপেশে নির্বাচন হচ্ছে না পাহাড়ে। দার্জিলিং পুরসভার নির্বাচনেই তার প্রমাণ মিলেছে। জিটিএর নির্বাচনে ত্রিমুখী লড়াই হলেও মূলত সম্মানের লড়াইয়ে মুখোমুখি এডওয়ার্ড বনাম অনীত।

আরও পড়ুন: রাজ্য পুলিশের প্রচারে রুদ্রনীল ঘোষ! রাজ্য রাজনীতিতে তুমুল শোরগোল শুরু, বিষয় কী?

একাধিক সমস্যায় জড়িত পাহাড়। যানজট থেকে বেহাল রাস্তা। ভেঙে পডা স্বাস্থ্য ব্যবস্থা থেকে শিক্ষা। বাড়ছে বেকার সমস্যাও। আর পানীয় জলের কষ্ট তো নিত্য দিনের সঙ্গী। ভোট আসে, ভোট যায়! পাহাড় কিন্তু সমস্যামুক্ত হতে পারেনি আজও। এবারেও স্থানীয় বাসিন্দারা একই অভিযোগের কথা তুলে ধরেছেন। সঙ্গে বাড়তি গুরুত্ব পাচ্ছে জিটিএর দূর্ণীতির কথা। গত ১০ বছরে রাজ্য এবং কেন্দ্র পাহাড়ের উন্নয়নে বহু টাকা বরাদ্দ করলেও কোনো কাজই হয়নি বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। তারা চান পাহাড়ের সার্বিক বিকাশ এবং দূর্ণীতিমুক্ত জিটিএ। নেতাদের গলাতেও সেই সুর। সমস্যার কথা মেনে নিলেও ক্ষমতায় এলে উন্নয়নই যে একমাত্র চাবিকাঠি তা স্পষ্টতই বলেছেন দুই প্রতিদ্বন্দ্বীই। অনীত থাপার দাবী, জিটিএ বোর্ড দখল সময়ের অপেক্ষা। মানুষ পাশে আছে। পাহাড়ে শান্তি ফিরেছে। পর্যটকেরা ভিড় জমাচ্ছেন। বোর্ড গঠনের পর মানুষের দাবী মেটানো হবে। অন্যদিকে এডওয়ার্ডের দাবী, পুরসভার পর জিটিএর মসনদেও তারাই বসবেন। প্রথম কাজ হবে ১০ বছরের অডিট রিপোর্ট তৈরী করা। আর ক্ষমতায় আসার পর লক্ষ্য সোশ্যাল অডিট করেই বিল পাস করা। সঙ্গে পাহাড়ের ভেঙে পড়া শিক্ষা, স্বাস্থ্য, ট্র‍্যাফিক, পানীয় জলের মতো নিত্য সমস্যার হাল ফেরানো।

আরও পড়ুন: নবান্ন যাওয়ার পথে হঠাৎ এসএসকেএম-এ মুখ্যমন্ত্রী! কেন? গুঞ্জন শুরু নানা মহলে

নির্বাচন ২৬ জুন। ফল ঘোষণা ২৯ জুন। ৪৫ আসনের লড়াইয়ের দিকে তাকিয়ে পাহাড়বাসী। এর মধ্যে দার্জিলিংয়ের ১৭, কার্শিয়ংয়ের ১৫ এবং কালিম্পংয়ের ১৩টি আসন রয়েছে। নির্দলরাই বা দাঁত ফোটাতে পারে কিনা, সেদিকেও সমান নজর রাজনৈতিক মহলের।

Published by:Suman Biswas
First published:

Tags: GTA, Mamata Banerjee

পরবর্তী খবর