হোমওয়ার্ক করেই উত্তরবঙ্গে এসেছি,উত্তরবঙ্গ সফর তীর্থযাত্রা, বলেন রাজ্যপাল

রাজ্যপাল আরও বলেন, 'উত্তরবঙ্গ এরাজ্যের অতি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। উত্তরবঙ্গের সম্ভাবনা প্রচুর। এখানে পর্যটন, অর্থনীতি, ব্যবসা বাণিজ্য উন্নয়নের প্রভূত সম্ভাবনা রয়েছে।

রাজ্যপাল আরও বলেন, 'উত্তরবঙ্গ এরাজ্যের অতি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। উত্তরবঙ্গের সম্ভাবনা প্রচুর। এখানে পর্যটন, অর্থনীতি, ব্যবসা বাণিজ্য উন্নয়নের প্রভূত সম্ভাবনা রয়েছে।

  • Share this:

#মালদহ: 'উত্তরবঙ্গ সফরকে আমি তীর্থযাত্রা হিসেবে দেখছি। হোমওয়ার্ক করেই উত্তরবঙ্গে এসেছি। দার্জিলিংয়ে আমার দ্বিতীয় কার্যালয় রয়েছে। এক কার্যালয় থেকে আরেক কার্যালয়ে যাচ্ছি। দার্জিলিং যাওয়া আমার কাছে রাজ্যের বাইরে যাওয়া নয়। পাহাড়বাসীর সমস্যা আমি বোঝার চেষ্টা করব হৃদয় দিয়ে, বিচার বুদ্ধি দিয়ে, সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য দিয়ে। এরপর যথাসম্ভব সমাধানের পথ খোঁজার চেষ্টা করব'। শনিবার উত্তরবঙ্গে যাওয়ার পথে মালদহ টাউন স্টেশনে এমনই মন্তব্য করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়।

রাজ্যপাল আরও বলেন, 'উত্তরবঙ্গ এরাজ্যের অতি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। উত্তরবঙ্গের সম্ভাবনা প্রচুর। এখানে পর্যটন, অর্থনীতি, ব্যবসা বাণিজ্য উন্নয়নের প্রভূত সম্ভাবনা রয়েছে। চা শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলা হবে, চা বাগান মালিকদের সঙ্গে কথা বলব। পর্যটনের উন্নতি, যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন নিয়ে আলোচনা করা হবে। সমাজের বিভিন্ন অংশের মানুষের সমস্যা নিয়ে আলোচনা হবে। আচার্য হিসেবে উপাচার্যদের সঙ্গেও কথা বলব'।

গোর্খাল্যান্ড প্রসঙ্গে রাজ্যপাল বলেন,'৭০ বছরে মানুষ যা ভাবেননি তা হয়েছে। উত্তরবঙ্গের সমস্যার চিরস্থায়ী সমাধান হবে এনিয়ে আমার মনে সংশয় নেই'। এদিন,রাজ্যের পদস্থ আমলাদের হুঁশিয়ারি দেন রাজ্যপাল‌। বলেন, রাজ্যের অনেক অফিসার নিজেদের ভুল বুঝতে পেরেছেন। অনেকে বুঝতে দেরি করছেন। তাঁদের হাত জোর করে অনুরোধ করছি, রাজনৈতিক দলের হয়ে কাজ না করে মানুষের জন্য কাজ করুন। অনেক সরকারি আমলা রাজনৈতিক দলের হয়ে কাজ করছেন। আমার চোখের সামনেই এমন ঘটনা হচ্ছে। আইন কিন্তু তাঁদের ছেড়ে কথা বলবে না। অনেক আইপিএসকে অবসরের পরেও বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে রাখা হচ্ছে, এ নিয়েও প্রশ্ন তোলেন রাজ্যপাল। রাজ্যপাল বলেন, 'এবার করোনার কারণে দুর্গাপুজো হলেও সেভাবে উৎসব হয়নি। হাইকোর্ট পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে যথার্থ নির্দেশিকা দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করেছেন। আগামী বছর দ্বিগুণ উৎসাহে দূর্গাপূজার উৎসব হবে' ।

Sebak Deb Sarma

Published by:Pooja Basu
First published: