Home /News /north-bengal /
Cooch Behar: কোচবিহার রাজবাড়ীর সামনে পালিত হল রাজকন্যা তথা জয়পুরের রাজমাতা গায়ত্রী দেবীর ১০৪তম জন্ম জয়ন্তী

Cooch Behar: কোচবিহার রাজবাড়ীর সামনে পালিত হল রাজকন্যা তথা জয়পুরের রাজমাতা গায়ত্রী দেবীর ১০৪তম জন্ম জয়ন্তী

আজ ২৩শে মে কোচবিহাররের রাজকন্যা এবং জয়পুরের রাজমাতা গায়ত্রী দেবীর ১০৪তম জন্ম জয়ন্তী পালন করা হল

  • Share this:

    #কোচবিহার: রাজ আমলের ঐতিহ্য সম্বলিত কোচবিহার জেলা। এই জেলার বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে রাজ আমলের প্রচুর নিদর্শন। মূলত সেই কারণেই কোচবিহার শহরকে সরকারি ভাবে হেরিটেজ শহর হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। তবে রাজ আমল এখন ইতিহাস, কিন্তু তবুও কোচবিহারের সাধারণ নাগরিকেরা রাজাদের এখনও পর্যন্ত ভুলে যেতে পারেনি। তার প্রমাণ স্বরূপ আজ ২৩শে মে কোচবিহাররের রাজকন্যা এবং জয়পুরের রাজমাতা গায়ত্রী দেবীর ১০৪তম জন্ম জয়ন্তী পালন করা হল রাজবাড়ীর সিংহদুয়ারের সামনে।

    প্রতি বছর এই দিনে রাজবাড়ীর কোচবিহারের রাজকন্যা গায়ত্রী দেবীর জয়ন্তী পালন করে থাকে কোচবিহারের একটি সংস্থা 'আস্থা ফাউন্ডেশন'। আস্থা ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে প্রথমে গায়ত্রী দেবী ফটোর সামনে মোমবাতি জ্বালিয়ে এবং ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এছাড়া কোচবিহারকে একটি হেরিটেজ শহর হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। তাই এই হেরিটেজ শহরের সবুজ বাতাবরণ বজায় রাখার উদ্দেশ্যে গায়ত্রী দেবীর জন্মদিন উপলক্ষে পথচলতি মানুষদের হাতে একটি করে গাছের চারা তুলে দেওয়া হয়। এবং সংস্থার পক্ষ থেকে তাদেরকে আবেদন জানানো হয় যাতে তারা কোচবিহারের সবুজ বাতাবরণ বজায় রাখার লক্ষ্যে নিজেদের ভূমিকা গ্রহণ করেন।

    আরও পড়ুন - টার্গেট ফরেস্ট ল্যান্ড! বন দফতরের প্রথম দিনের অভিযানে দখলমুক্ত ১৮ একর

    আরও পড়ুন - ডেঙ্গি ও ম্যালেরিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশই বাড়ছে 'এই' জেলায়, আপনি কতটা চিন্তিত?

    গায়ত্রী দেবীর জন্মদিন উপলক্ষে সকল পথচলতি মানুষদেরকে মিষ্টিমুখ করানোর ব্যবস্থাও করা হয়েছিল। পথচলতি বিভিন্ন ধর্মের মানুষ এবং ছোট ছোট শিশুরা গায়ত্রী দেবী জন্মদিন উপলক্ষে গায়ত্রী দেবী ছবিতে ফুল নিবেদন করে তাদের শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। এদিনের এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত সংস্থার কয়েকজন কর্মী বিপ্লব দাস, সমীর রাউত, জিৎ সরকার, শংকর রায় জানান, "কোচবিহারের রাজকন্যার ১০৪তম জন্ম জয়ন্তী উপলক্ষে আজ আস্থা ফাউন্ডেশন এর পক্ষ থেকে পথচলতি সাধারণ মানুষদের হাতে গাছের চারা তুলে দেওয়া হয় এবং তাদের মিষ্টিমুখ করানো হয়। এছাড়াও তাদেরকে আবেদন জানানো হয় যাতে তারা কোচবিহারের সবুজ বাতাবরণ বজায় রাখার উদ্দেশ্যে তারা যেন নিজেদের ভূমিকা গ্রহণ করেন।

    কোচবিহার রাজকন্যার এই জন্মজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে পথ চলতি মানুষদের প্রশ্ন করা হলে তারা জানান, "আস্থা ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে কোচবিহারের রাজকন্যা গায়ত্রী দেবীর জন্মজয়ন্তী উদযাপন করার এই উদ্যোগকে আমরা সাধুবাদ জানাই। প্রতিবছরই তারা এই দিনে রাজকন্যার জন্মজয়ন্তী উদযাপন করেন। কোচবিহারের মানুষ এখনো পর্যন্ত যে কোচবিহারের রাজাদের ভুলে যায়নি এটা তার প্রমাণ।"

    সার্থক পণ্ডিত

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published:

    Tags: Coochbehar

    পরবর্তী খবর