বিজেপির যুব মোর্চার প্রাক্তন জেলা সভাপতির উপর হামলা! অভিযোগ তৃণমূলের দিকে, এলাকায় চাঞ্চল্য

বিজেপির যুব মোর্চার প্রাক্তন জেলা সভাপতির উপর হামলা!   অভিযোগ তৃণমূলের দিকে, এলাকায় চাঞ্চল্য

উত্তর দিনাজপুর জেলার বিজেপি যুব মোর্চার প্রাক্তন জেলা সভাপতি ভক্ত রায়ের উপর হামলার অভিযোগ তৃণমূল দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। আহত ভক্ত রায় রায়গঞ্জ গভর্নমেন্ট মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

উত্তর দিনাজপুর জেলার বিজেপি যুব মোর্চার প্রাক্তন জেলা সভাপতি ভক্ত রায়ের উপর হামলার অভিযোগ তৃণমূল দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। আহত ভক্ত রায় রায়গঞ্জ গভর্নমেন্ট মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: উত্তর দিনাজপুর জেলার বিজেপি যুব মোর্চার প্রাক্তন জেলা সভাপতি ভক্ত রায়ের উপর হামলার অভিযোগ তৃণমূল দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। আহত ভক্ত রায় রায়গঞ্জ গভর্নমেন্ট মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। ঘটনাটি রায়গঞ্জ পৌরসভার বন্দর এলাকার ঘটনা। পুলিশ এই হামলার ঘটনায় একজনকে আটক করেছে। রায়গঞ্জ থানার পুলিশ জানিয়েছে বন্দরে একটি মারামারির ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ একজনকে আটক করেছে। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

প্রতিদিনের মতো গতকাল রাতেও রায়গঞ্জ পৌরসভার বন্দর কদমতলা এলাকায় বাড়ির এবং রাস্তার সারমেয়দের খাবার দিতে বের হয়েছিলেন প্রাক্তন যুব মোর্চার ভক্ত রায়। সেই সময়ে ওই এলাকার কয়েকজন যুবক তাঁর উপর বাঁশ ও লাঠি দিয়ে হামলা চালায় বলে অভিযোগ। তাদের বাধা দিতে এসে তাঁর দাদা এবং মায়ের উপর হামলা চালানো হয়। আহত ভক্ত রায়কে রায়গঞ্জ গভর্নমেন্ট মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

খবর পেয়ে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে যায়। ঘটনার সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে একজনকে আটক করা হয়েছে। আহত ভক্তের অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রেস আশ্রিত সমাজ বিরোধীরা তাঁর উপর হামলা চালিয়েছে। যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সহ সভাপতি সানকিং দাস জানিয়েছেন, ভক্তবাবু পুরোপুরি মিথ্যা অভিযোগ করছেন। এলাকায় সমাজবিরোধী হিসেবে তাঁর পরিচিতি আছে। রাতে শিবপুজো চলার সময়ে মদ্যপ অবস্থায় সেখানে আসেন। এলাকার মানুষ সেখান থেকে বের করে দেওয়ায় নিজেরাই গন্ডগোলে জড়িয়ে পড়েন। মারামারির ঘটনায় তৃণমূলের দলের কেউ যুক্ত নয় বলে তিনি জানান।

রায়গঞ্জ থানার পুলিশ জানিয়েছেন, বন্দরে একটি মারামারির ঘটনা ঘটেছে। একজনকে আটক করা হয়েছে। ঘটনাটির তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। বিজেপি যুব মোর্চার প্রাক্তন জেলা সভাপতি ভক্ত রায়ের উপর হামলার ঘটনার প্রতিবাদে রায়গঞ্জ শহরে এম জি রোড এবং হেমতাবাদের রায়গঞ্জ বালুরঘাট রাস্তা অবরোধ করেছে যুব মোর্চার সদস্যরা। এই অবরোধের ফলে ব্যপক যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। তৃণমূল কংগ্রেস আশ্রিত দুষ্কৃতীদের গ্রেফতার এবং শহরে বেআইনি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধারের দাবি জানানো হয়েছে।

বিজেপি উত্তর দিনাজপুর জেলা সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ীর অভিযোগ, রায়গঞ্জ পৌরসভার ২২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর তপন দাস এবং তাঁর ছেলে সানকিং এলাকায় সন্ত্রাসের বাতাবরন তৈরি করেছেন। ভোটের আগে বাড়ি বাড়ি আগ্নেয়াস্ত্র মজুত করা হয়েছে। পুলিশকে বেআইনি অস্ত্র উদ্ধারের জন্য আবেদন করা হলেও পুলিশ বেআইনি অস্ত্র উদ্ধারে কোনও পদক্ষেপ গ্রহন করেনি। আগেও বিজেপি কার্যকর্তাদের উপর হামলা চালানো হয়েছিল বলে তাঁর অভিযোগ। পুলিশ সেই অভিযোগের ভিত্তিতে কোনও পদক্ষেপ গ্রহণ করে নি।

হুশিয়ারির সুরে তিনি বলেছেনে, এবার পুলিশ সানকিং ও তপনকে গ্রেফতার করা না হলে আগামীতে তাঁরা আরও বৃহত্তর আন্দোলনে নামবেন। তৃণমূল কংগ্রেস দলীয় কর্মীদের উপর এই হামলা বন্ধ না করলে আগামীতে আরও বৃহত্তর আন্দোলনে নামার হুমকি দিয়েছেন জেলা সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ী।

Uttam Paul

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published:

লেটেস্ট খবর