corona virus btn
corona virus btn
Loading

লকডাউনে ১১০টি দিনমজুর পরিবারের হাতে খাদ্য সামগ্রী তুলে দেওয়া হল !

লকডাউনে ১১০টি দিনমজুর পরিবারের হাতে খাদ্য সামগ্রী তুলে দেওয়া হল !

আজ অম্বিকা নগরের ১১০টি পরিবারের হাতে তুলে দিল খাদ্য সামগ্রী। যাতে অন্তত প্রতিদিনের খাবার জোটে তাদের মুখে।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: করোনার প্রকোপ কমাতে দেশ জুড়ে চলছে লকডাউন। গোটা দেশ স্তব্ধ। বন্ধ যোগাযোগ ব্যবস্থা। রেল, সড়ক, আকাশ পথ পুরোপুরি বন্ধ। দেশবাসীকে গৃহবন্দি থাকবার আর্জি প্রধানমন্ত্রীর। আজ লকডাউনের চতুর্থ দিন। বাজারঘাট, নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দোকান খোলা থাকছে নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত। সমস্যায় পড়েছেন হাজার হাজার দিনমজুর। যাদের প্রতিদিনের আয়ে সংসার চলতো, সেইসব রিকশাওয়ালা, ভ্যান চালক, টোটো চালক, শ্রমিকদের ঘরে চরম খাবারের সংকট। কাজ নেই। তাই রোজগারও নেই। কি খাবেন আর কিভাবে সংসার চালাবেন? এই দুশ্চিন্তা তাড়া করে বেড়াচ্ছে প্রতি মূহূর্তে। ছোট্ট দুধের শিশুর মুখেই বা কি তুলে দেবেন? বাইরে করোনার কোপ। আর ঘরে খাবার নেই। এক উভয় সংকটের মধ্যে রয়েছে তারা। এই সময়ে এলাকার গরিব, দুঃস্থদের পাশে দাঁড়ালো ডাবগ্রাম-ফুলবাড়ি যুব তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীরা।

আজ অম্বিকা নগরের ১১০টি পরিবারের হাতে তুলে দিল খাদ্য সামগ্রী। যাতে অন্তত প্রতিদিনের খাবার জোটে তাদের মুখে। দুঃস্থদের মুখে হাসি ফোটাতেই এই উদ্যোগ। বেশ কিছু স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন যেমন এগিয়ে এসছে, তেমনি রাজ্য সরকারও খাদ্য সামগ্রী নিয়ে এগিয়ে এসছে। আজ অম্বিকানগরে পরিবারপিছু ১০ কেজি চাল, ১ কেজি ডাল, ৫০০ গ্রাম তেল, ১ কেজি লবণ, ৩ কেজি আলু, ১টি করে সাবান তুলে দেন তারা। করোনা সতর্কতায় মাস্কও তুলে দেওয়া হয় প্রতিটি পরিবারের হাতে। সেইসঙ্গে করোনা নিয়ে এলাকাবাসীকে সচেতনও করে তোলা হয়। অহেতুক যাতে কেউ বাড়ির বাইরে বের না হন, তা বোঝানো হয় গ্রামবাসীদের। ধারাবাহিকভাবে এই প্রক্রিয়া বিভিন্ন এলাকা জুড়ে চলবে বলে জানান স্থানীয় নেতা গৌতম গোস্বামী। প্রতিদিনই ডাবগ্রাম-ফুলবাড়ি এলাকায় দুঃস্থদের হাতে পৌঁছে দেওয়া হবে খাবারের রসদ। কেননা এই একাকায় দুঃস্থদের সংখ্যাই বেশী। করোনায় এক কিরুণ অবস্থার মুখে হাজার হাজার পরিবার। একেই নুন আনতে পান্তা ফুরোয়। তারওপর লকডাউন।

PARTHA PRATIM SARKAR
First published: March 29, 2020, 12:25 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर