চেয়েছিল স্ত্রীকে শেষ করে দিতে, কিন্তু বাবার ছোড়া গুলিতে মৃত্য়ু হল ৪ বছরের ছেলের

চেয়েছিল স্ত্রীকে শেষ করে দিতে, কিন্তু বাবার ছোড়া গুলিতে মৃত্য়ু হল ৪ বছরের ছেলের
বিয়ের পর থেকে শ্বশুড় বাড়ি থেকে টাকা আনার জন্য স্ত্রীর উপর বিভিন্নভাবে চাপ সৃষ্টি করে নাস্তার আলি। এনিয়ে একাধিকবার দাম্পত্য কলহ হয়েছিল।

বিয়ের পর থেকে শ্বশুড় বাড়ি থেকে টাকা আনার জন্য স্ত্রীর উপর বিভিন্নভাবে চাপ সৃষ্টি করে নাস্তার আলি। এনিয়ে একাধিকবার দাম্পত্য কলহ হয়েছিল।

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: বাবার গুলিতেই লুটিয়ে পড়ল চার বছরের খুদে৷ দাম্পত্য কলহের শিকার হল সে। চূড়ান্ত ঝগড়ার সময় স্ত্রীকে গুলি করে খুন করেত চায় নাস্তার আলি৷ কিন্তু গুলি লাগে স্ত্রীর কোলে থাকা ছেলের মাথায়৷ বেআইনি কাজে যোগ ছিল নাস্তারের, তাই সঙ্গে ছিল বেআইনি অস্ত্র৷ সেই অস্ত্রেই শেষ হল নিজের সন্তান৷ এই নিশৃংস ঘটনাটি ঘটেছে রায়গঞ্জ থানার ঝিটকিয়া গ্রামে। অভিযুক্ত বাবা পলাতক। পুলিশ তার খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে।পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। জানা গিয়েছে, রায়গঞ্জ থানার ঝিটকিয়া গ্রামের বাসিন্দা নাস্তার আলির আট বছর পারুল খাতুনের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল। তার দুই ছেলে। নাস্তার আলি দিন মজুরির কাজ করে সংসার চালান। অভাবের সংসারে শ্বশুড় বাড়ি থেকে মাঝে মাঝেই টাকা আনার জন্য স্ত্রীর উপর বিভিন্ন ভাবে চাপ সৃষ্টি করত বলে অভিযোগ। ভিন রাজ্যে শ্রমিকের কাজ ছাড়াও বিভিন্ন ধরনের অসামাজিক কাজে নাস্তার আলি যুক্ত ছিল বলে অভিযোগ। অসামাজিক কাজের জন্যই তার কাছে বেআইনি অস্ত্র মজুত রাখত।

গতকাল, বুধবার, অধিক রাতে স্ত্রীর সঙ্গে বিবাদ শুরু হয়। স্ত্রীর কোলেই ছিল তার চার বছরের শিশু সন্তান। বচসা চলাকালীন নাস্তার আলি হাতে থাকা বেআইনি অস্ত্র দিয়ে স্ত্রীকে গুলি করে। গুলি তার স্ত্রীর না লেগে চার বছরের পুত্র সাহিলের মাথায় লাগে। গুলিবিদ্ধ সাহিলকে কোলে নিয়ে রাতের অন্ধকারে রায়গঞ্জ সরকারি মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের দিকে রওনা হলে কিছুক্ষণ পরে শিশুর মা পারুল খাতুন জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। রাস্তার ধারে দোকানদাররা ঘটনাটি দেখতে পেয়ে রক্তাক্ত সাহিলকে নিয়ে  হাসপাতালে ভর্তি করলে সেখানেই তার মৃত্য়ু হয়।

আরও পড়়ুনএকই চিতায় পুড়েলন স্বামী-স্ত্রী! ৮ মাসের মধ্যেই ছাড়খার হল সংসার, দেখুন ভিডিও


মৃত শিশুর আত্মীয় সামসুদ্দিন আহমেদ জানান, বিয়ের পর থেকে শ্বশুড় বাড়ি থেকে টাকা আনার জন্য স্ত্রীর উপর বিভিন্নভাবে চাপ সৃষ্টি করে নাস্তার আলি। এনিয়ে একাধিকবার দাম্পত্য কলহ হয়েছিল। পারুলের পরিবার আর্থিক দিক থেকে স্বচ্ছল না হওয়ায় তারা জামাইয়ের দাবি রক্ষা করতে পারেনি।  ভিন রাজ্যে গিয়ে শ্রমিকের কাজ করেত নাস্তার। বাড়িতে ফিরে বিভিন্ন ধরনের অসামাজিক কাজে যুক্ত হয়ে পড়ে।  অভাবের সংসারে চুরি ছিনতাই করে অর্থ উপার্জন করতে থাকে। সেই কাজ করতেই বেআইনি অস্ত্র নিয়ে ঘোরাফেরা করত। সেই বেআইনি অস্ত্র দিয়েই গতকাল রাতে গুলি ছোড়ে সে। রায়গঞ্জ গভঃ মেডিক্যাল কলেজ  হাসপাতালে পৌঁছায় রায়গঞ্জ থানার পুলিশ। অভিযুক্ত বাবা নাস্তার আলি পলাতক।পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারে জোর তল্লাশি চালাচ্ছেন ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ।

Published by:Pooja Basu
First published:

লেটেস্ট খবর