corona virus btn
corona virus btn
Loading

পেসমেকার সহ দেহ সৎকার করতে গিয়ে বিপত্তি, বৈদ্যুতিক চুল্লি বিকল মালদহে

পেসমেকার সহ দেহ সৎকার করতে গিয়ে বিপত্তি, বৈদ্যুতিক চুল্লি বিকল মালদহে
representative image

অভিযোগ, বৈদ্যুতিক চুল্লি বিকল থাকলেও পুরসভার তরফ থেকে এনিয়ে প্রয়োজনীয় প্রচার করা হয়নি।

  • Share this:

#মালদহ: গত দশদিন ধরে বিকল হয়ে রয়েছে পুরাতন মালদহ পুরসভার বৈদ্যুতিক চুল্লি। তিন কোটি টাকা খরচে গত মার্চ মাসে এই চুল্লির উদ্বোধন করা হয়। কিন্তু গত ২১ জুলাই থেকেই চুল্লি বিকল হয়ে পড়েছে। ফলে শবদেহ সৎকার করতে এসে প্রতিদিনই সমস্যায় পড়ছেন মৃতের পরিবারের লোকজন। অভিযোগ, বৈদ্যুতিক চুল্লি বন্ধ থাকার বিষয়ে কোন রকম নোটিশ দেয়নি পুরাতন মালদহ পুরসভা কর্তৃৃপক্ষ। শুধু তাই নয়, কবে নাগাদ এই বৈদ্যুতিক চুল্লি চালু হবে তাও নিশ্চিত করে জানাতে পারছেনা পুরসভা কর্তৃপক্ষ ।

যদিও ওল্ড মালদহ পুরসভার প্রশাসকের দাবি, গত ২১ শে জুলাই পেসমেকার সহ এক ব্যক্তির দেহ সৎকারের জন্য দেওয়া হয় বৈদ্যুতিক চুল্লিতে। এতেই বিপত্তি ঘটে। তারপর থেকেই বিকল হয়ে রয়েছে চুল্লিটি। ইতিমধ্যেই পূর্ত দপ্তরের ইলেকট্রিক্যাল বিভাগে সমস্যার কথা জানানো হয়েছে। দ্রুত সমস্যার সমাধান হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন পুরসভার প্রশাসক । যদিও এ বিষয়ে পুরসভার ভূমিকায় ক্ষুব্ধ স্থানীয় বাসিন্দারা।

পেসমেকার সহ কীভাবে সৎকারের জন্য চুল্লিতে দেহ পৌঁছল তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন স্থানীয়রা। শুধু তাই নয়, চুল্লির দ্রুত মেরামতের জন্য পুরসভা কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলেও অভিযোগ।রাজ্য সরকারের উদ্যোগে মালদহে দ্বিতীয় বৈদ্যুতিক চুল্লি বসানো হয় পুরাতন মালদহ পৌরসভা এলাকায়। পুরাতন মালদহ শহরের ২ নম্বর ওয়ার্ডে গত মার্চ মাসে ঘটা করে বৈদ্যুতিক চুল্লির উদ্বোধন করা হয়। বৈদ্যুতিক চুল্লি বসাতে খরচ হয় প্রায় তিন কোটি টাকা। চালুর পর থেকেই পুরাতন মালদহ ছাড়াও আশপাশের বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রতিদিনই একাধিক শবদেহ সৎকারের জন্য আসে ওল্ড মালদহ শ্মশানে। কিন্তু গত দশদিন ধরে দেহ শ্মশানে এনে ফিরিয়ে নিয়ে যেতে হচ্ছে পরিবারের লোকজনকে।

অভিযোগ, বৈদ্যুতিক চুল্লি বিকল থাকলেও পুরসভার তরফ থেকে এনিয়ে প্রয়োজনীয় প্রচার করা হয়নি। যদিও পুরপ্রশাসক কার্তিক ঘোষ বলেন,  এনিয়ে আরো বেশি প্রচার চালানো হবে । এর পাশাপাশি দ্রুত যাতে বৈদ্যুতিক চুল্লি চালু করা যায়, সেই চেষ্টা শুরু করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

Sebak Deb Sharma

Published by: Debamoy Ghosh
First published: July 31, 2020, 7:11 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर