উত্তরবঙ্গ

  • Associate Partner
  • diwali-2020
  • diwali-2020
  • diwali-2020
corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা রুখতে কালিয়াগঞ্জ বয়রা কালীপুজোতে পুজো দেওয়া বন্ধ,বন্ধ পাঠাবলিও

করোনা রুখতে কালিয়াগঞ্জ বয়রা কালীপুজোতে পুজো দেওয়া বন্ধ,বন্ধ পাঠাবলিও

কালিয়াগঞ্জ করোনা সংক্রামন ঠেকাতে এবারে কালিয়াগঞ্জ বয়রা কালী মন্দিরে ভক্তদের পুজো দেওয়া বন্ধ।

  • Share this:

#কালিয়াগঞ্জ: কালিয়াগঞ্জ করোনা ঠেকাতে এবারে কালিয়াগঞ্জ বয়রা কালী মন্দিরে ভক্তদের পুজো দেওয়া বন্ধ। বন্ধ থাকবে পাঠাবলি। উদ্যোক্তাদের দাবি সবাই সুস্থ এবং ভাল থাকলে আগামী বছর মহা ধূমধামে পুজো হবে। কালীপূজায় ঠাকুরের কাছে ভোগ দিতে না পারায় মন খারাপ ভক্তদের।

উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ শহরে রায়গঞ্জ- বালুরঘাট রাজ্য সড়কের ধারে অবস্থিত বয়রা কালীবাড়ির শ্যামাপুজো বহু প্রাচীন। দীপাবলির আমাবস্যায় বয়রা কালীমাতার পুজোকে ঘিরে হাজার হাজার ভক্তের সমাগম ঘটে কালিয়াগঞ্জ শহরে। মায়ের অষ্টধাতুর মূর্তিতে সারা  অঙ্গজুড়ে থাকে সোনার অলঙ্কার। কথিত আছে, শ্রীমতি নদী দিয়ে বড় বড় নৌকা নিয়ে দূর দূরান্ত থেকে বাণিজ্য করতে আসতেন বণিকরা। নৌকা নোঙর করে জঙ্গলাকীর্ন অরণ্যে বিশ্রাম নিতেন। এক বণিক বয়রা গাছের নীচে বিশ্রাম নিচ্ছিলেন। মূর্তি দিয়ে কালীপুজো করার জন্য স্বপ্নাদেশ পান।

সেই বয়রা গাছের তলায় প্রথম পুজো শুরু হয়। শ্রীমতি নদী আগের অবস্থার পরিবর্তনের পর বণিকরা কালিয়াগঞ্জে আসা বন্ধ করে দেয়। কালিয়াগঞ্জের বাসিন্দারা সেই জঙ্গল পরিস্কার করে বাঁশ ও মাটির মায়ের মন্দির।  এরপর ১৯৬২ সালে তৈরী হয় দেবীর নতুন মন্দির। যা আজ বয়রা কালীমন্দির নামে খ্যাত।মায়ের মূর্তিও তৈরী হয়েছে অষ্টধাতুর।দীপাবলির রাতে বয়রা কালীপুজোকে ঘিরে কালিয়াগঞ্জ, রায়গঞ্জ,বালুরঘাট সহ উত্তরবঙ্গের মানুষের আলাদা উন্মাদনা থাকে।কয়েকলক্ষ মানুষের সমাগম হয়। রাতে দুই থেকে তিন হাজার পাঠাবলি হয়। উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলা ছাড়াও বিহার এবং বাংলাদেশ থেকেও অসংখ্য ভক্ত আসেন। মন্দিরে কয়েক হাজার ভোগ পড়ে। কিন্তু এবছর নিয়ম মেনে পূজা হলেও করোনা সংক্রামন ঠেকাতে বেশ কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে মন্দির চত্বরে।

জনসমাগম আটকাতে এবছর বয়রা কালীমন্দিরে ভোগ দেওয়া যাবে না।বন্ধ থাকবে মানতের পাঠাবলিও। করোনা সংক্রামন প্রতিরোধে পূজা কমিটি বেশ কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করায় মন খারাপ এলাকার ভক্তদের। কারন কালিয়াগঞ্জের বাসিন্দারা বয়রা কালী মন্দিরে পূজো দিয়ে দিনের কাজ শুরু করেন। কালীপূজার দিনে ঠাকুরের কাছে পূজা দিতে না পারায় তাদের মন খারাপ।পূজা কমিটির সম্পাদক বিদ্যুৎ বিকাশ ভদ্র জানান, করোনা সংক্রামন ঠেকাতে তাদের এই সিদ্ধান্ত। পূজাকে ঘিরে নতুন করে সংক্রামন ছড়িয়ে না পড়ে তারজন্য এই সিদ্ধান্ত।মানুষ সুস্থ এবং ভাল থাকলে আগামীতে তারা ধুমধাম করে পূজো করবেন।

Published by: Akash Misra
First published: November 11, 2020, 9:58 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर