Home /News /north-bengal /
সাত সকালে 'কু ঝিক ঝিক' শব্দে ঘুম ভাঙল পাহাড়ের! দীর্ঘদিন বাদে শুরু হল টয় ট্রেনের ট্রায়াল রান

সাত সকালে 'কু ঝিক ঝিক' শব্দে ঘুম ভাঙল পাহাড়ের! দীর্ঘদিন বাদে শুরু হল টয় ট্রেনের ট্রায়াল রান

শিলিগুড়ি জংশন থেকে রংটং পর্যন্ত পরীক্ষামূলক ভাবে চলতে শুরু করেছে খেলনা গাড়ি। আবার ফিরে আসছে সুকনা স্টেশন ছুঁয়ে।

  • Share this:

#দার্জিলিং: দীর্ঘদিন বাদে পাহাড়ের ঘুম ভাঙল সেই চেনা কু ঝিক ঝিক শব্দে! লকডাউনের পর খেলনা গাড়ি ছুটল পাহাড়ের পথে। আনলক থ্রি চলছে। ছন্দে ফেরার চেষ্টায় হাঁটতে শুরু করেছে হেরিটেজ টয়ট্রেন।শুরু হল ট্রায়াল রান।

শিলিগুড়ি জংশন থেকে রংটং পর্যন্ত পরীক্ষামূলক ভাবে চলতে শুরু করেছে খেলনা গাড়ি। আবার ফিরে আসছে সুকনা স্টেশন ছুঁয়ে। কবে থেকে পর্যটক নিয়ে ছুটবে টয়ট্রেন? দিনক্ষণ অবশ্য চূড়ান্ত হয়নি। কারণ পাগলাঝোড়া থেকে কার্শিয়ং পর্যন্ত একাধিক জায়গায় ভারী বর্ষায় ধস নামায় ট্র‍্যাক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। যদিও সংস্কারের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

সোমবার তিনধরিয়ায় দার্জিলিং হিমালয়ান রেলওয়ের ওয়ার্কশপ পরিদর্শন করেন ডিরেক্টর একে সিং। রেলের এক কর্তা জানান, দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ রয়েছে ট্রেন পরিষেবা। কারশেডেই ছিল ইঞ্জিন। ইঞ্জিন কী অবস্থায় দাঁড়িয়ে, তারই ট্রায়াল শুরু হয়েছে। ধসে ক্ষতিগ্রস্ত ট্র‍্যাক পুরনো অবস্থানে ফিরলেই চালু করা হবে পরিষেবা। পর্যটকও নেই পাহাড়ে। পর্যটন শিল্প ফেরার চেষ্টা চালাচ্ছে। গতকালই দার্জিলিংয়ে বৈঠক করে ট্যুর অপারেটার্স থেকে হোটেল মালিক, গাড়ির চালক এবং মালিকেরা। সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহেই পর্যটকদের জন্যে পাহাড় খোলার সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে তারা। এখন প্রশাসনিক সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে সব পক্ষ। সূত্রের খবর, শীঘ্রই জিটিএ চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত ঘোষণা করবে।

আনলক থ্রি'তে পর্যটন ব্যবসায়ীদের ফোন বাজতে শুরু করেছে। ওপার থেকে আসছে পর্যটকদের ফোন। তারা জানতে চাইছে হোটেল কবে খুলবে? হোম স্টে গুলোও বা কবে থেকে বুকিং নেবে? কী কী নিয়ম মেনে চলতে হবে? ফিট সার্টিফিকেট সঙ্গে আনতে হবে কী? পর্যটন ব্যবসায়ী সম্রাট সান্যাল জানান, কেন্দ্র এবং রাজ্যের মধ্যে মেলবন্ধন করে একটা সিদ্ধান্তে আসা জরুরি। যাতে ঘুরতে এসে নাজেহাল হতে না হয় পর্যটকদের। ভিন দেশের পর্যটকদের ক্ষেত্রে এখনও অনুমতি দেয়নি কেন্দ্র। তবে আন্তঃরাজ্য পর্যটকদের ঘোরাফেরার ক্ষেত্রে কোনও অনুমতির প্রয়োজন নেই বলে রাজ্যকে জানিয়ে দিয়েছে কেন্দ্র।

তাহলে আর আপত্তি কোথায়? আসছে বাঙালির সেরা পার্বন। তারপর আলোর উৎসব দীপাবলী। শেষে নতুন ইংরেজী বর্ষবরণ। ফেস্টিভ্যালের মরসুম আসছে। হয়তো আগের মতো ভিড় এবারে হবে না। তবে একটা পর্যটনের আবহ তৈরী হবে, তারই চেষ্টায় এই শিল্পের সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে যুক্ত সকলে।

Partha Sarkar

Published by:Shubhagata Dey
First published:

Tags: Darjeeling, Toy train Darjeeing

পরবর্তী খবর