বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গিয়ে সিপিএম নেতাকে খুন! চাঞ্চল্য উত্তর দিনাজপুরে

বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গিয়ে সিপিএম নেতাকে খুন! চাঞ্চল্য উত্তর দিনাজপুরে
বাড়ি থেকে ফোন করে ডেকে নিয়ে গিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে খুন সিপিএমের শাখা সম্পাদক। ঘটনাটি উত্তর দিনাজপুর জেলার ডালখোলা থানার পাতনর গ্রামের।

বাড়ি থেকে ফোন করে ডেকে নিয়ে গিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে খুন সিপিএমের শাখা সম্পাদক। ঘটনাটি উত্তর দিনাজপুর জেলার ডালখোলা থানার পাতনর গ্রামের।

  • Share this:

#উত্তর দিনাজপুর: বাড়ি থেকে ফোন করে ডেকে নিয়ে গিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে খুন সিপিএমের শাখা সম্পাদক। ঘটনাটি উত্তর দিনাজপুর জেলার ডালখোলা থানার পাতনর গ্রামের। ডালখোলা থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। জানা গিয়েছে, উত্তর দিনাজপুর জেলার ডালখোলা থানার পাতনোর গ্রামের প্রাক্তন গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য রফিক আলমকে গতকাল রাতে কেউ ফোন করে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়।

কিছুক্ষন বাদে তার ফোন বন্ধ হয়ে যায়। তারপর তাঁর আর কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি। আজ সোমবার সকালে স্থানীয় মানুষ গ্রামের পেট্রোল পাম্পের পিছনে গেলে রফিক আলমের রক্তাক্ত দেহ দেখতে পান। এখবর ছড়িয়ে পড়তে এলাকায় ব্যপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। তাঁকে দেখতে হাজার হাজার মানুষ সেখানে উপস্থিত হন। স্থানীয় মানুষের কাছে তিনি ভালো মানুষ হিসেবে পরিচিত ছিলেন।

বাম জামানায় তিনি রানীগঞ্জ গ্রাম পঞ্চায়েতের সিপিএম সদস্য হওয়ার সুবাদে তাঁর পরিচিতি ছিল। গ্রামবাসীরা দুষ্কৃতীদের গ্রেফতারের দাবি জানান। খবর পেয়ে বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে পৌঁছন। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। মৃতার মেয়ে সুরমানি বেগম জানান, রাত্রি আটটা নাগাদ কয়েকজন ফোন করে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায় তাঁকে। তার পরে আর তার খোঁজ পাওয়া যায়নি। আজ সকালে গ্রামবাসীরা পেট্রোল পাম্পের পাশে প্রাতঃকৃত করতে গেলে তাঁর রক্তাক্ত দেহ দেখতে পান।


মৃতের মেয়ে সুরমানি বেগম দাহি করেছেন, যারা তাঁর বাবাকে নৃশংসভাবে খুন করেছেন তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক। সিপিএমের উত্তর দিনাজপুর জেলা সম্পদাক অপূর্ব পাল জানিয়েছেন, পাতনর এলাকার জনপ্রিয় মানুষ ছিলেন রফিক আলম। বাড়ি থেকে টেলিফোনে ডেকে নিয়ে গিয়ে দুষ্কৃতীরা তাঁকে ধারলো অস্ত্র দিয়ে খুন করেছে।

দুষ্কৃতীদের হাতে প্রচুর বেআইনি অস্ত্র মজুত থাকায় এধরনের খুনের ঘটনা ঘটছে।পুলিশকে বেআইনি অস্ত্র উদ্ধারের দাবি জানানো হলেও কাজের কাজ কিছুই হয় নি বলে অপূর্ববাবু অভিযোগ করেছেন।

করনদিঘি বিধায়ক মনোদেব সিংহ জানিয়েছেন, মৃত ব্যাক্তি কোন দল করেন তা তাঁর জানা নেই। তবে এই খুনের ঘটনায় যারাই যুক্ত আছেন তাদের অবিলম্বে খুজে বের করার জন্য পুলিশ আধিকারিকদের তিনি নির্দেশ দিয়েছেন। ইসলামপুর পুলিশ জেলার পুলিশ সুপার শচীন মক্কার জানিয়েছেন, আজ সকালে একটি দেহ উদ্ধার হয়েছে। পুলিশের প্রাথমিক অনুমান তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে খুন করা হয়েছে। কী কারণে খুন, পুলিশ তদন্ত করে দেখছে বলে পুলিশ সুপার জানিয়েছেন।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: