corona virus btn
corona virus btn
Loading

জ্বরের উপসর্গ নিয়ে কেউ ফিরছেন কিনা তা দেখার কোনও ব্যবস্থা নেই মালদাহ টাউন স্টেশনে

জ্বরের উপসর্গ নিয়ে কেউ ফিরছেন কিনা তা দেখার কোনও ব্যবস্থা নেই মালদাহ টাউন স্টেশনে

দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে প্রতিদিনই হাজার হাজার শ্রমিক এবং সাধারণ যাত্রীরা ট্রেনে করে ফিরছেন মালদহে।

  • Share this:

#মালদহ: করোনা নিয়ে সচেতনতা প্রচার চলছে গোটা রাজ্যে এবং দেশজুড়ে। কিন্তু করোনা নিয়ে সতর্কতা উধাও মালদা টাউন স্টেশনে। দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে প্রতিদিনই হাজার হাজার শ্রমিক এবং সাধারণ যাত্রীরা ট্রেনে করে ফিরছেন মালদহে। শুধু মালদহ নয়, এই স্টেশন হয়েই দৈনিক যাতায়াত করে মুর্শিদাবাদ, উত্তর ও দক্ষিণ দিনাজপুরের বড় অংশের মানুষের। প্রতিদিন গড়ে ১২ থেকে ১৪ হাজার লোকের আনাগোনা হয় মালদাহ টাউন স্টেশনে। করোনা আতঙ্কে গত কয়েকদিনে রেল যাত্রী সংখ্যা কিছুটা কমলেও ভয়ে ভিন রাজ্য থেকে দলে দলে শ্রমিকরা ফিরছেন মালদহে। কিন্তু প্ল্যাটফর্ম টিকিটের দাম বাড়ানো ছাড়া জ্বরের উপসর্গ নিয়ে কেউ ফিরছেন কিনা তা দেখার কার্যত কোনও ব্যবস্থা নেই অতি গুরুত্বপূর্ণ স্টেশনে। গত দু'দিনে ট্রেনযোগে মালদা টাউন স্টেশনে আসার পরে অনেকেই নিজেরাই সরাসরি মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসা করিয়েছেন । ইতিমধ্যে সৌদি আরব থেকে ফেরা ১৪ জন শ্রমিক নিজেরাই স্টেশন থেকে মালদা মেডিকেল কলেজে গিয়ে চিকিৎসা করিয়েছেন । কারণ, তাঁরা জানিয়েছেন মালদা টাউন স্টেশনে তাঁদের কোনোরকম পরীক্ষা-নিরীক্ষায় হয়নি। শুধু এরাই নয় অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে সন্দেহজনক জ্বরের উপসর্গ নিয়ে মালদহে ফেরার পর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৩ জন রেলযাত্রী। এদের ক্ষেত্রেও মালদা টাউন স্টেশনে কোনরকম পরীক্ষার ব্যবস্থা ছিল না বলে অভিযোগ। মালদহের জেলাশাসক রাজর্ষি মিত্র জানিয়েছেন, মালদা টাউন স্টেশনে বাইরে থেকে আসা রেলযাত্রীদের পরীক্ষা করার জন্য রেল কে বলা হয়েছে।

মালদা মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ট্রেনযোগে বাইরে থেকে আসার লোকেরা সকলেই যে নিজেরা সচেতন হয়ে হাসপাতলে আসছেন বা আসবেন তা মনে করার কোনও কারণ নেই। এই অবস্থায় মালদা টাউন স্টেশনে থার্মাল স্ক্রিনিংয়ের বন্দোবস্ত রাখা প্রয়োজন । তা না হলে অসচেতন রেলযাত্রীদের কেউ করোনার উপসর্গ নিয়ে এলে তা অন্যান্যদের মধ্যে ছড়ানোর আশঙ্কা থাকছে। রেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, মালদা টাউন স্টেশনে করোনার সতর্কতার ফ্লেক্স ঝোলানো হয়েছে। ঘনঘন মাইকে প্রচার হচ্ছে । আগের তুলনায় যাত্রী সংখ্যা অনেকটাই কমেছে। অবাঞ্ছিত লোকজনের আনাগোনা ঠেকাতে বাড়ানো হয়েছে প্ল্যাটফর্ম টিকিটের দাম। তবে এর পাশাপাশি যাত্রীদের স্ক্রিনিংয়ের ব্যবস্থা করা যায় কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Sebak DebSarma

First published: March 21, 2020, 9:08 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर