উত্তরবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

হোম আইশোলেশনে থেকেও করোনা বিধি মানছেন না মানুষ ! উদ্বেগ শিলিগুড়িতে !

হোম আইশোলেশনে থেকেও করোনা বিধি মানছেন না মানুষ ! উদ্বেগ শিলিগুড়িতে !

শিলিগুড়ির কোভিড পরিস্থিতি ক্রমেই উদ্বেগ বাড়াচ্ছে।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: শিলিগুড়ির কোভিড পরিস্থিতি ক্রমেই উদ্বেগ বাড়াচ্ছে। সাধারণ বাসিন্দাদের একটা বড় অংশের চূড়ান্ত অসাবধানতায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ। গত ১০ দিনের পরিসংখ্যান ভাবিয়ে তুলেছে পুরসভাকে। গড়ে ৭০ জন করে আক্রান্ত হয়েছে পুর এলাকায়। গতকাল একদিনে ৯২ জনের লালা রসের নমুনা রিপোর্ট পজিটিভ এসছে। পরিস্থিতি বিচার করে রাজ্যের হস্তক্ষেপ চেয়ে গতকালই মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি পাঠিয়েছেন পুরসভার প্রশাসক তথা শিলিগুড়ির বিধায়ক অশোক ভট্টাচার্য। আর আজ জেলা স্বাস্থ্য দফতর এবং মহকুমা প্রশাসনের প্রতিনিধিদের নিয়ে জরুরি বৈঠক করেন পুর প্রশাসক। বৈঠক শেষে তিনি জানান, চূড়ান্ত অসেচতনতার ছবি শহরে। অনেকেই হোম আইশোলেশনে থাকলেও স্বাস্থ্য বিধি মানছেন না। বেরিয়ে পড়ছেন বাজারে, রেস্টুরেন্টে। যা মাথা ব্যাথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আগে আক্রান্তদের বাড়ির বাইরে বাঁশের ব্যারিকেড এবং পরবর্তীতে রিবন লাগানো হত। এখন আর তা লাগানো হচ্ছে না। ফলে চিহ্নিতকরণও করা যাচ্ছে না। তাই এবারে আক্রান্তদের বাড়িতে স্টিকার সাঁটাবে পুর কর্মীরা। যে স্টিকারে লেখা থাকবে কোভিড আক্রান্ত হলে কি করবেন আর কি করবেন না। এছাড়া বিকল্প উপায় নেই। পাশাপাশি আক্রান্তদের বাড়িতে হলুদ প্লাস্টিক দেওয়া হবে। যেখানে তাদের ব্যবহৃত বর্জ্য ফেলানো হবে। তাঁর আর্জি, বেয়াদপি বন্ধ করতে হবে। রোগের বিরুদ্ধে লড়তে হবে। কেননা মহকুমায় দুটি সেফ হাউস সরকার প্রত্যাহার করে নিয়েছে। একটি মাত্র সেফ হাউস পুর এলাকায় থাকলেও কম সংখ্যক আক্রান্ত সেখানে থাকছেন। অধিকাংশই বাড়িতে চিকিৎসা করাচ্ছেন স্বাস্থ্য দফতরের কর্তাদের নির্দেশ মেনে। কিন্তু নিয়ম ভাঙার খেলা চলছে। যা বড় বিপদ ডেকে আনছে শহরে।

সেইসঙ্গে প্রশাসকের আর্জি, উৎসবের দিনে বাজি, পটকা না পোড়ানো যেন হয়। তাতে আক্রান্তদের শারীরিক অবস্থার ওপর প্রভাব ফেলবে। পুরসভা ফের পাড়ায় পাড়ায় সচেতনতা প্রচার চালাবে। লিফলেট বিলি করবে। এম্বুলেন্স পরিষেবাও ফের চালু করবে। যাতে কম খরচে আক্রান্তদের কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করানো যায়। অশোকবাবু জানান, শারোদৎসবের পর পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। সামনে দীপাবলি, ছট পুজা রয়েছে। তাই সাবধানতাই একমাত্র পথ।

PARTHA PRATIM SARKAR

Published by: Piya Banerjee
First published: November 3, 2020, 11:01 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर